• সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads

হলিউড

মৃত্যুর পরেও মাইকেলের আয়

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৪ নভেম্বর ২০১৯

কিংবদন্তি পপতারকা মাইকেল জ্যাকসন মারা যাওয়ার পর ১০ বছর অতিক্রান্ত হলেও জনপ্রিয়তায় এতটুকু ভাটা পড়েনি। আজো সর্বোচ্চ আয় করা অন্যতম তারকা তিনি। ২০১৯ সালে সর্বোচ্চ আয় করা মৃত তারকাদের তালিকায় উঠে এসেছে মাইকেলের নাম।

চলতি বছর তার আয় ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অ্যাকশোবিজ ডটকমের বরাত দিয়ে ইন্ডিয়া টিভির অনলাইন সংস্করণ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০১৯ সালে সর্বোচ্চ আয় করা মৃত তারকাদের তালিকায় উঠে এসেছে মাইকেলের নাম। চলতি বছরে তার আয় ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

সম্প্রতি জনপ্রিয় সাময়িকী ফোর্বস ‘টপ-আর্নিং ডেড সেলিব্রিটিস ২০১৯’-এর তালিকা প্রকাশ করে। সেখানে ওই তথ্য জানানো হয়। তালিকার ১০ নম্বরে আছেন র্যাপার নিপসি হাসল, যিনি ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। এক বছরে তার আয় ১১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (অক্টোবর ২০১৮ থেকে অক্টোবর ২০১৯)।

২০০৯ সালে কিংবদন্তি পপতারকা মাইকেল জ্যাকসন মারা যান। পশ্চিমা সংগীতজগৎকে পাল্টে দিয়েছিলেন পপ কিংবদন্তি মাইকেল জ্যাকসন। তার সংগীতপ্রতিভার স্বীকৃতি হিসেবে জীবনে একাধিক মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। এ ছাড়া ভক্তদের কাছে তিনি জনপ্রিয় ছিলেন প্রযোজনা, গান রচনা, অভিনয় আর বিশেষ করে তার নাচের জন্য।

বিভিন্ন বিভাগে মোট ১৩ বার পশ্চিমা সংগীতের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার হিসেবে বিবেচিত ‘গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড’ জিতেছেন মাইকেল জ্যাকসন।

উপস্থাপনায় সৃজনশীলতা, গানের সঙ্গে মানানসই মনোমুগ্ধকর নৃত্য, ব্যক্তিগত আদর্শ, জীবনযাপনের ধারাসহ আলোচিত-সমালোচিত নানা চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের কারণে তার সময়কার সংগীতজগতে তুমুল আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন এ তারকা। ১৯৮২ সালে প্রকাশিত মাইকেল জ্যাকসনের ষষ্ঠ একক অ্যালবাম ‘থ্রিলার’ বিপুল জনপ্রিয়তা পায়। সে সময় থেকেই তাকে ‘কিং অব পপ’ বলা শুরু হয়।

কৃষ্ণাঙ্গ সম্প্রদায়ের অনেকেই মনে করেন, সে সময়কার সংগীতজগতে বিদ্যমান বর্ণবৈষম্য দূর করার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা মাইকেল জ্যাকসনের। তাকে বলা হতো সর্বপ্রথম কৃষ্ণাঙ্গ তারকা, যিনি জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের মনে জায়গা করে নিতে পেরেছিলেন। মানুষের মধ্যে তার গ্রহণযোগ্যতা সে সময়কার উদীয়মান আফ্রিকান-আমেরিকান সংগীতশিল্পীদের মধ্যে দারুণ অনুপ্রেরণা সৃষ্টি করেছিল।

পরবর্তী সময়ে ‘স্মুথ ক্রিমিনাল’, ‘ব্ল্যাক অর হোয়াইট’, ‘বিট ইটে’র মতো দুর্দান্ত ব্যবসাসফল ভিডিও প্রকাশ করেন জ্যাকসন। টিভিপর্দায় মাইকেল জ্যাকসনের নাচ-গানই ভক্তকূলের হূদয় জয় করে নিয়েছিল। কিন্তু ‘লাইভ’ কনসার্টে তার পারফরম্যান্সে বিমোহিত হতে বাধ্য হয়েছে জ্যাকসন বিদ্বেষীরাও। আলোচনার পাশাপাশি মৃত্যুর পর নানা ঘটনায় বিতর্কিত হয়েছেন এ কিংবদন্তি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads