• রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬

হলিউড

কেটি পেরির নতুন রেকর্ড

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯

জনপ্রিয় মার্কিন গায়িকা কেটি পেরি। তার গানের জাদুতে পুরো দুনিয়ার সংগীতপ্রেমীরা থাকেন মাতোয়ারা। বিশ্ব সংগীতের টপ চার্টলিস্টেও থাকে তার গানের নাম। এসবই পুরনো কথা। নতুন খবর হলো, এবার কেটির গানের সর্বোচ্চ ভিউয়ের বিচারে তার নাম গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে উঠেছে।

সম্প্রতি এ শিল্পীর একটি গান প্রথমবারের মতো বিলিয়ন ভিউয়ে পৌঁছায়। যেকোনো নারী গায়িকা হিসেবে কেটিই প্রথম, যার গানে এত পরিমাণ ভিউ এসেছে। সে হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডিজিটাল চার্টের সেরা হিসেবেও তার নাম ঘোষণা করা হয়েছে। তবে গানটি নতুন কোনো গান নয়। তার চতুর্থ অ্যালবামের ‘প্রিজম’-এর জন্যই সম্প্রতি এমন সম্মাননা পেলেন তিনি। এর আগে এই অ্যালবামটি প্রায় ২০০ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়েছিল। এদিকে কেটি পেরি গান গাওয়ার পাশাপাশি গীতিকার উপস্থাপক হিসেবেও জনপ্রিয়।

কেটি পেরি শৈশবে তিনি খ্রিস্টান যাজক অভিভাবক দ্বারা পালিত হন। তিনি শৈশবে গোস্পেল সংগীত শুনতেন এবং শিশু হিসেবেই চার্চে গান করতেন। মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে জিইডি পরীক্ষা দেওয়ার পর তিনি সংগীতকে পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। ২০০১ সালে তিনি নিজের নামে প্রথম সংগীত অ্যালবাম প্রকাশ করেন। অ্যালবামটিতে পেরি প্রধানত গোস্পেল ধারার গান করেছেন।

পরে ২০০৪ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত তিনি তার দ্বিতীয় অ্যালবাম ও টিম ম্যাট্রিক্সের সঙ্গে একটি মিশ্র অ্যালবামের কাজ করেন, তবে অ্যালবাম দুটি শেষ পর্যন্ত প্রকাশিত হয়নি।

২০০৭ সালে পেরি ক্যাপিটল মিউজিক গ্রুপের সঙ্গে চুক্তি করেন এবং তার নাম পরিবর্তন করে কেটি পেরি রাখেন। এ সময় তিনি ইন্টারনেটে তার প্রথম একক সংগীত ‘ইউর সো গে’ প্রকাশ করেন। এই গান তাকে কিছুটা খ্যাতি এনে দিলেও গানটি চার্টে অন্তর্ভুক্ত হয়নি। ২০০৮ সালে তিনি সর্বাধিক খ্যাতি অর্জন করেন তার দ্বিতীয় একক সংগীত প্রকাশের মাধ্যমে। গানটির নাম ‘আই কিসড এ গার্ল’। এটি আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করে এবং বিভিন্ন দেশের টপ চার্টে স্থান করে নেয়। পেরির প্রথম প্রধান অ্যালবাম ওয়ান অব দ্য ভয়েস একই সালে প্রকাশিত হয়। অ্যালবামটি ওই বছরের বিশ্বের ৩৩তম সর্বোচ্চ বিক্রীত অ্যালবামে পরিণত হয়। রেকর্ডিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন অব আমেরিকা অ্যালবামটিকে প্লাটিনাম সনদ দেয়। বিলবোর্ড কর্তৃক প্রকাশিত ২০০০-১০ দশকের সেরা ১০০ শিল্পীর তালিকায় পেরি ৯৭তম স্থান দখল করেন। অদ্ভুত ধরনের পোশাক পরিধানের মাধ্যমে পরিচিতি লাভ করেন। তার পরবর্তী অ্যালবাম টিনএজ ড্রিম  ২০১০ সালের ২৪ আগস্ট যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় প্রকাশিত হয়। অ্যালবামটি ৩০ আগস্ট বিশ্বব্যাপী প্রকাশিত হয়। বিলবোর্ড ২০০ তালিকায় অ্যালবামটি শীর্ষস্থান দখল করে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads