• শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮
 মমতার ‘বাংলা’য় আপত্তি মোদি সরকারের

প্রতীকী ছবি

ভারত

পশ্চিমবঙ্গের নাম পরিবর্তন

মমতার ‘বাংলা’য় আপত্তি মোদি সরকারের

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২১ অক্টোবর ২০১৮

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নাম পরিবর্তন করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রস্তাবিত ‘বাংলা’ নিয়ে আপত্তি রয়েছে মোদি সরকারের। নাম বদলের প্রক্রিয়ায় গতি আনতে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি লিখিত অনুরোধ জানালেও এখনো কোনো জবাব আসেনি। লোকসভা নির্বাচনের আগে ‘বাংলা’ নিয়ে মোদি-মমতার সংঘাত রাজনৈতিক লড়াইয়ে নতুন মাত্রা যোগ করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকা ও কলকাতা ২৪।

পশ্চিমবঙ্গ ‘বাংলা’ বলে পরিচিত হবে- এ-সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব গত ২৬ জুলাই রাজ্যের বিধানসভায় সর্বসম্মতভাবে পাস হয়। বিধানসভায় পাস হলেও আদৌ ‘বাংলা’ নাম হবে কি না তা নিয়ে দেখা দিয়েছে সন্দেহ। নয়াদিল্লির মতে, বাংলাদেশ ও বাংলার মধ্যে মিল রয়েছে। বাংলাদেশ কলকাতার পাশের দেশ। সেক্ষেত্রে এ নাম নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বিড়ম্বনা তৈরি হতে পারে। এছাড়া বিতর্কের সূত্রপাত হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। ফলে ভারতের বিদেশনীতির ওপর প্রভাব পড়তে পারে। এমনকি বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কেও প্রভাব পড়তে পারে।

কেন্দ্রীয় রাজ্যসভা ‘বাংলা’ নামটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের কাছে পাঠিয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অনুমোদন দিলেও তা মন্ত্রিসভায় পাস করাতে হবে। এরপর হবে নাম সংশোধনী বিল। সেই বিল পেশ করা হবে সংসদে। সংসদের অনুমোদন মিললে তবেই পশ্চিমবঙ্গের নাম হবে ‘বাংলা’। এ বিষয়ে প্রশাসনের এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার এখনো আমাদের কিছু জানায়নি। নামটি তারা গ্রহণ করছে কি না, তাও স্পষ্ট নয়। ফলে রাজ্যের নাম পরিবর্তন প্রক্রিয়ায় আরো কত দিন লাগবে, তা বোঝা যাচ্ছে না। ‘বাংলা’ নাম নিয়ে ভাবনাচিন্তা করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। আদৌ পশ্চিমবঙ্গের নাম ‘বাংলা’ করা উচিত হবে কি না, সেই প্রশ²ও ত্রলছে মোদি সরকার।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২৯ আগস্ট রাজ্য বিধানসভায় পশ্চিমবঙ্গ নাম পরিবর্তন নিয়ে তিনটি ভাষায় তিনটি নামের প্রস্তাব পাস হয়। ওই তিন ভাষার মধ্যে বাংলায় রাজ্যের নামের ‘বাংলা’ প্রস্তাব করা হয়, যা হিন্দিতে ‘বাঙাল’ আর ইংরেজিতে ‘বেঙ্গল’।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads