• রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
প্লাস্টিক ব্যবসায় ঝুঁকছে শীর্ষ করপোরেটগুলো

দ্রুত বর্ধমান এ বাজারে নজর এখন দেশের শীর্ষ করপোরেটগুলোর

সংরক্ষিত ছবি

শিল্প

প্লাস্টিক ব্যবসায় ঝুঁকছে শীর্ষ করপোরেটগুলো

  • নাজমুল হুসাইন
  • প্রকাশিত ২৯ জুলাই ২০১৮

দেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে প্লাস্টিকের ব্যবহার। ফলে দ্রুত বর্ধমান এ বাজারে নজর এখন দেশের শীর্ষ করপোরেটগুলোর। প্লাস্টিকের বাজারে থাকা অন্যান্য শীর্ষ গ্রুপের সঙ্গে এখন প্রতিযোগিতায় নেমেছে কয়েকটি বৃহৎ শিল্প গ্রুপ। সম্প্রতি বাজারে প্লাস্টিকের পণ্য নিয়ে এসেছে দেশের অন্যতম শিল্প গ্রুপ এসিআই। আর গত বছর যাত্রা শুরু করেছিল আকিজ গ্রুপ। এ ছাড়া আরো কয়েকটি গ্রুপ বাজারে শিগগিরই প্লাস্টিকের পণ্য নিয়ে আসবে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে রয়েছে অন্যতম শিল্প গ্রুপ মেঘনা। খাত-সংশ্লিষ্টরা বলছে, বাংলাদেশে বর্তমানে প্লাস্টিক মাথাপিছু ব্যবহার ৫ কেজি। অন্যান্য দেশের তুলনায় এ হার কম হলেও আগামীতে ২০ শতাংশ হারে ব্যবহার বৃদ্ধির সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে। ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে প্লাস্টিক ব্যবহার ৩৪ কেজিতে পৌঁছাবে। এতে এক যুগে দেশের অভ্যন্তরীণ বাজার বাড়বে ৬ গুণ।

এ ছাড়া বিশ্ববাজারে ক্রমেই বাড়ছে বাংলাদেশের অংশীদারিত্ব। বৈশ্বিক প্লাস্টিক খাতে ৫৪৬ বিলিয়ন ইউএস ডলারের বাজারে বাংলাদেশ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ দখল করেছে। রফতানির হিসাবে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ১২তম। সব মিলে সম্ভাবনাময় হয়ে উঠছে প্লাস্টিক খাত।

বিগত সময়ে দেশের অভ্যন্তরীণ বাজারসহ রফতানিতে শীর্ষ অবস্থানে ছিল বেঙ্গল, আরএফএল, নাভানা, পারটেক্সসহ কয়েকটি বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া একক কোম্পানি হিসেবে দেশের বাজারে ভালো অবস্থান করে নিয়েছে তানিম, হ্যামকোসহ বেশ কিছু ব্র্যান্ড। তবে বাজার বড় হওয়াতে নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান এ খাতে বিনিয়োগ করছে।

মেঘনা সেতুর টোল প্লাজা থেকে প্রায় এক কিলোমিটার পূর্বে মেঘনা ঘাট ও টিপুরদী এলাকায় ২০০ একর জমিতে গড়ে উঠছে মেঘনা গ্রুপের দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড)। ইতোমধ্যে নির্মাণকাজ শেষ পর্যায়ে। সেখানে মেঘনা পিভিসি প্ল্যান্টের কাজ চলছে। এরপর গৃহস্থালি প্লাস্টিকের পণ্যও বাজারে আনার পরিকল্পনা রয়েছে গ্রুপটির।

মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা কামাল বাংলাদেশের খবরকে বলেন, আমাদের পিভিসির কাজ শেষ পর্যায়ে। তবে গৃহস্থালি প্লাস্টিক পণ্যের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি। তবে সম্ভাবনা রয়েছে।

দেশের অন্যতম শিল্পগোষ্ঠী এসিআই গ্রুপ তাদের নতুন প্রতিষ্ঠান প্রিমিও প্লাস্টিকস লিমিটেডের (পিপিএল) মাধ্যমে প্লাস্টিকের বাজারে এসেছে, যা এ গ্রুপটির ৩০তম প্রতিষ্ঠান। ইতোমধ্যে পিপিএল আধুনিক প্রযুক্তির ২৫০টি প্লাস্টিক পণ্য তৈরি করছে, যার মধ্যে প্লাস্টিকের গৃহস্থালি ও ফার্নিচার পণ্য এখন সারা দেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে।

জানা গেছে, এসিআই প্রিমিও প্লাস্টিক ২৫০টি পণ্য নিয়ে যাত্রা শুরু হলেও আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ৬০০ পণ্য বাজারজাত করবে। আর ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এ সংখ্য দাঁড়াবে ৫ হাজারে। ২০২৫ সালের মধ্যে প্লাস্টিকের বাজারে প্রথম স্থানে যেতে চায় এই কোম্পানি।

দেশের আরেক শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী আকিজ গ্রুপ প্লাস্টিকের বাজারে এসেছে গত বছর। প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদনে সুনামগঞ্জের ছাতকে ১০০ একর জমিতে গ্রুপটি গড়ে তুলেছে ‘আকিজ প্লাস্টিক শিল্পপার্ক’। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতিমাসে গড়ে ৫ হাজার টন প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদন করা হচ্ছে সেখানে।

আকিজ প্লাস্টিক লিমিটেডের জ্যেষ্ঠ মহাব্যবস্থাপক চৌধুরী হাসান তারেক বলেন, ‘দেশে প্লাস্টিক পণ্যের বিশাল বাজার তৈরি হয়েছে, যা ক্রমাগত আরো বাড়ছে। তবে হাতেগোনা কয়েকটি বড় প্রতিষ্ঠানই এ বাজারে দখলদারিত্ব করছে। ফলে এখনো চাহিদার অধিকাংশ পূরণ হচ্ছে ছোট ছোট অনিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠানের পণ্য দিয়ে। ফলে এ বাজারে আকিজ গ্রুপের বিনিয়োগ সামগ্রিক খাতকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads