• বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৫
ads
গণশুনানি করল বিটিআরসি

ছবি :সংগৃহীত

তথ্যপ্রযুক্তি

গণশুনানি করল বিটিআরসি

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৩ জুন ২০১৯

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) কর্তৃক জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে টেলিযোগাযোগ সেবা ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম সম্পর্কিত বিষয়ে গতকাল বুধবার এক গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউশন অব বাংলাদেশ (আইইবি) মিলনায়তনে এ গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

বিটিআরসির লাইসেন্সধারী বিভিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্ত উচ্চপদের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক, কমিশনার (স্পেকট্রাম) মো. আমিনুল হাসান, কমিশনার (ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অপারেশন্স) মো. রেজাউল কাদের, কমিশনার (সিস্টেম  অ্যান্ড সার্ভিসেস) মো. মহিউদ্দিন আহমেদ এবং কমিশনের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোর মহাপরিচালকরা নিবন্ধিত অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর এবং কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে মতামত দেন।

এ ছাড়া সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ, কমিশন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, গোয়েন্দা সংস্থা, ভোক্তা অধিকার সংঘ, মোবাইল ফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন, বিটিআরসির লাইসেন্সধারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও তাদের অ্যাসোসিয়েশন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ২৪ মে থেকে ৩ জুন বিটিআরসির ওয়েবসাইটের নিবন্ধনের মাধ্যমে ২০২ জন গ্রাহক মোট এক হাজার ৩১৯টি প্রশ্ন, অভিযোগ ও মতামত কমিশনকে অবহিত করে। পরবর্তী সময়ে গণশুনানি সংশ্লিষ্ট কমিটি কর্তৃক যাচাই-বাছাই করার মাধ্যমে ১৬৫ জনকে শুনানিতে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়। প্রশ্নগুলোর মধ্যে- মোবাইল অপারেটরদের কলড্রপ ও বিভিন্ন প্যাকেজ (ভয়েস, ডাটা বান্ডল) এবং এর মূল্য সম্পর্কে অভিযোগ ছাড়াও বায়োমেট্রিক সিম নিবন্ধন, সাইবার অপরাধ, মোবাইল ফোনে হুমকি, ফেসবুক ব্যবহারে নিরাপত্তা, মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস, ফাইভজি, অ্যামেচার রেডিও সার্ভিস, মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি, মোবাইল অপারেটরদের কলসেন্টারের মাধ্যমে সেবাসংক্রান্ত অভিযোগ এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য টেলিকম সেবাপ্রদানকারী লাইসেন্সীদের সেবা সম্পর্কিত বিষয়গুলো অন্তর্ভূক্ত ছিল।

উপস্থিত সবার অংশগ্রহণে প্রায় তিন ঘণ্টাব্যাপী এ গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এ ছাড়া গ্রাহকদের সরাসরি উত্থাপিত সম্পূরক যেসব প্রশ্নের উত্তর প্রদান করা সম্ভব হয়নি, সেগুলোর উত্তর পরবর্তী সময়ে বিটিআরসির ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রকাশ করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads