• শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রযুক্তির নিরাপদ ব্যবহারই নিশ্চিত করবে সাইবার নিরাপত্তা

প্রতীকী ছবি

তথ্যপ্রযুক্তি

প্রযুক্তির নিরাপদ ব্যবহারই নিশ্চিত করবে সাইবার নিরাপত্তা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২৩ নভেম্বর ২০১৯

দেশে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের সঙ্গে সমান্তরাল হারে বাড়ছে সাইবার অপরাধ। সংহতি উগ্রবাদ, গুজব, রাজনৈতিক অপপ্রচার, মিথ্যা সংবাদ, গ্যাং কালচার, আত্মহত্যা, পর্নোগ্রাফি, সাইবার বুলিং, জালিয়াতি, চাঁদাবাজি, পাইরেসি, আসক্তি- এসব অপরাধমূলক কাজ সংঘটিত হচ্ছে প্রযুক্তির অপব্যবহারের মাধ্যমে। প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে আমাদের থাকতে হবে। তবে প্রযুক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে ঝুঁকিমুক্ত থাকতে হলে প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার জানতে হবে। আমাদের আরো সচেতন হতে হবে। সম্প্রতি বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট পিআইবি আয়োজিত ঢাকার গণমাধ্যম কর্মীদের জন্য আয়োজিত সাইবার নিরাপত্তাবিষয়ক দিনব্যাপী কর্মশালায় আলোচক ও প্রশিক্ষকরা এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, অনলাইন, ইন্টারনেটের ব্যাপক ব্যবহারের পাশাপাশি অপব্যবহারও হচ্ছে। এ কারণেই সাইবার নিরাপত্তার বিষয়টি এখন খুবই গুরুত্ব পাচ্ছে। আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশে সাইবার নিরাপত্তার বিষয়টি আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ জন্যই সাইবার নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। আমাদের সাইবার নিরাপত্তা আইনের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে কোনো সন্দেহ থাকার অবকাশ নেই। ভয় থাকতে পারে এই আইনের অপব্যবহার হতে পারে এই বিষয়ে। তিনি বলেন, আইনের অপব্যবহার কাম্য নয়। এরপরও যদি এমনটি কারো ক্ষেত্রে হয় তাহলে তিনিও আইনি আশ্রয়ের সুযোগ নিতে পারবেন। তাই বলে আইনকে ভয় পেয়ে আপনারা যারা সাংবাদিকতা করেন তারা যেন অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা থেকে বিরত না থাকেন। কারণ আপনারা অনুসন্ধানী প্রতিবেদন না করলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে দেশ ও দেশের জনগণ।

তিনি সাংবাদিকদের উৎসাহ দিয়ে বলেন, আপনাদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনকে উপজীব্য করে জনস্বার্থে অনেক রিট করা হয়। এসব রিটের ফলে অনেক অন্যায়, অপরাধ, দুর্নীতি, অনিয়ম বন্ধ হওয়া এমনকি অপরাধীরা সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার অনেক ঘটনা রয়েছে।

জানা গেছে, দেশে মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে সাইবার ক্রাইমের প্রবণতা, বাড়ছে ঝুঁকি। কিন্তু ব্যবহারকারীদের সচেতনতা সে তুলনায় একেবারেই তলানিতে পড়ে আছে। এক পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, ২০১২ সালে দেশে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ৯ কোটি ৭০ লাখ, যা ২০১৯ সালে এসে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৬ কোটিতে। ২০১২ সালে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ছিল সাড়ে ৩ কোটি, যা ২০১৯ সালে এসে দাঁড়ায় ১০ কোটিতে। ওয়ার্কশপে আরো বক্তব্য রাখেন- পিআইবির মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ, ওয়ার্কশপের প্রশিক্ষক সাংবাদিক ও সাইবার নিরাপত্তা বিশ্লেষক এম আবুল কালাম আজা, তানভীর হাসান জোহা, পিআইবির পরিচালক (প্রশাসন) ইলিয়াস ভূঁইয়া প্রমুখ।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads