• মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮

পর্ন ওয়েবসাইট বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ

হাইকোর্ট

সংরক্ষিত ছবি

আইন-আদালত

পর্ন ওয়েবসাইট বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২০ নভেম্বর ২০১৮

বাংলাদেশের সব পর্নোগ্রাফি ওয়েবসাইট ছয় মাসের মধ্যে বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। সরকারের ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব, তথ্য সচিব, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক সচিব, বাংলাদেশ  টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি), মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, এয়ারটেল, রবি ও সিটিসেলকে এই আদেশ পালন করতে হবে।

এ ছাড়া পর্নোগ্রাফির ওয়েবসাইট স্থায়ীভাবে বন্ধের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, ফেসবুক বা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বয়স নির্ধারণের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর (আইডি) সংযুক্তিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং মোবাইল অপারেটরগুলোর স্বল্পমেয়াদি ইন্টারনেটের লোভনীয় অফার বন্ধে কেন নির্দেশনা দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। জনস্বার্থে দায়ের করা একটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে গতকাল সোমবার বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি আশরাফুল কামাল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। গত ১১ নভেম্বর মানবাধিকার সংগঠন ল’ অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশন, চাঁদপুরের বাসিন্দা মো. রাসেল হোসেন এবং ময়মনসিংহের খায়রুল হাসান সরকার জনস্বার্থে রিট আবেদনটি দায়ের করেন।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ন কবির পল্লব। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী হাসান তারেক, মোজাম্মেল হক ও মাজেদুল কাদের।

রিটের শুনানিতে পল্লব বলেন, ইন্টারনেটে প্রবেশ সহজলভ্য হওয়ায় যুব সমাজ পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত হয়ে পড়ছে। স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা এ কারণে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। পর্নোগ্রাফির ফলে ধর্ষণসহ বিভিন্ন যৌন অপরাধে তারা উদ্বুদ্ধ হচ্ছে। তিনি ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’-এর একটি গবেষণা প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের রাজধানীতে ৭৭ শতাংশ স্কুলগামী শিক্ষার্থী পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত। ভারতে ৮৫৭টি পর্ন ওয়েবসাইট বন্ধ করা হয়েছে।

এ সময় আদালত বলেন, এটা শুধু শিশুদের জন্য নয়, এর মাধ্যমে সমাজের অনেকেই ক্ষতিগ্রস্ত। এটি নতুন একটি বিষয়। তাই এটিকে জাতির স্বার্থে গুরুত্বের সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করা প্রয়োজন।

পর্ন ওয়েবসাইট বন্ধে একাধিকবার উদ্যোগ নেওয়া হলেও পুরোপুরি বন্ধ করা যায়নি। কিছুদিনের জন্য বন্ধ করা গেলেও পরবর্তীতে সাইটগুলো সচল হয়ে যায়। বন্ধ করতে না পারার পেছনে প্রযুক্তিগত সক্ষমতার অভাবও রয়েছে।

২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে সরকার দেশে ৫৬০টি পর্ন সাইট বন্ধের নির্দেশ দেয়। এই ঘোষণা সে সময় দ্রুত কার্যকর করে সংশ্লিষ্টরা। সে সময় ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবির সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক জানান, বিটিআরসির পাঠানো ৫৬০টির মধ্যে ৯০ শতাংশ সাইট বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads