• সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬
ads
আত্মহত্যার আগে মিতুর সঙ্গে হাতাহাতি হয়

চিকিৎসক মোস্তফা মোরশেদ আকাশ ও তানজিলা হক চৌধুরী মিতু দম্পতি

ছবি : সংগৃহীত

আইন-আদালত

স্ত্রীসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা

আত্মহত্যার আগে মিতুর সঙ্গে হাতাহাতি হয়

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো
  • প্রকাশিত ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

স্ত্রীর বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ তুলে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আত্মহত্যার কয়েক ঘণ্টা আগে চিকিৎসক মোস্তফা মোরশেদ আকাশ ও তানজিলা হক চৌধুরী মিতু দম্পতির মধ্যে হাতাহাতিও হয়েছিল। গতকাল শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত উপকমিশনার (উত্তর) মিজানুর রহমান এ কথা জানিয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার রাতে নন্দনকানন এলাকায় এক আত্মীয়ের বাসা থেকে মিতুকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর মিতু প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কিছু কিছু বিষয় পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন। আবার কিছু বিষয় এড়িয়ে গেছেন বলে জানান মিজানুর রহমান।

মিজানুর রহমান জানান, প্রায় তিন বছর আগে প্রেম করে বিয়ে করেন আকাশ ও মিতু। বিয়ের পরপরই মিতু আমেরিকা চলে যান। মিতু আমেরিকা যাওয়ার পর থেকেই বিয়ে-বহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ নিয়ে দুজনের মধ্যে বিরোধ চলছিল। গত ১৩ জানুয়ারি মিতু দেশের আসার পর তা আরো বেড়ে যায়। গত বুধবার রাতে এ নিয়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতিও হয়। সেদিন রাতেই মিতুর বাবা এসে আকাশদের বাসা থেকে মেয়েকে নিয়ে যান। ভোরের দিকে চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার বাসায় ফসবুকে পোস্ট দিয়ে ইনজেকশনের মাধ্যমে নিজের শরীরে বিষ প্রয়োগ করে তিনি আত্মহত্যা করেন। ৩২ বছর বয়সী আকাশ চট্টগ্রাম মেডিকেলের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে কর্মরত ছিলেন।

আকাশ আত্মহত্যার আগে ফেসবুকে স্ত্রীর বিরুদ্ধে ‘বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক’ ও ‘প্রতারণার’ অভিযোগ করে যান। এর ‘প্রমাণ’ হিসেবে মিতুর সঙ্গে  প্রেমিকদের বেশ কিছু ছবি ও মেসেজের স্ক্রিনশট ফেসবুকে আপলোড করেন। এর ভিত্তিতে ঘটনার দিন রাতেই মিতুকে আটক করে পুলিশ। ফেসবুকে স্ত্রীর বিরুদ্ধে বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের যেসব অভিযোগ করে গেছেন, তা খতিয়ে দেখার কথা জানিয়েছে পুলিশ। আকাশ তার পোস্টে মিতুর যেসব বন্ধুদের নাম বলে গেছেন, তাদের বিষয়েও পুলিশ তদন্ত করবে বলে জানান মিজানুর। তিনি জানান, যেহেতু আকাশ কিছু পোস্ট দিয়েছেন এবং তার পরিবারের কাছ থেকে কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। এগুলো যাচাই করার জন্য মিতুকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গতকাল বিকালে নগরীর চান্দগাঁও থানায় মৃত আকাশের মা জোবেদা খানম বাদী হয়ে আত্মহত্যার ঘটনায় প্ররোচনার অভিযোগে তার স্ত্রী তানজিলা হক চৌধুরী মিতু ও তার বাবা-মা, এক বোন ও দুই প্রেমিকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চান্দগাঁও থানার ওসি আবুল বাশার বলেন, চিকিৎসক মোস্তফা মোরশেদ আকাশের মা তার পুত্রবধূ তানজিলা হক চৌধুরী মিতুর বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনেছেন। মিতুর পাশাপাশি তার বাবা-মা, এক বোনকে মামলায় আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়া মাহবুব এবং প্যাটেল নামে মিতুর দুই প্রেমিককেও মামলায় আসামি করা হয়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads