• বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬
ads
ইবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

ইবি সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

আইন-আদালত

ইবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

  • ইবি প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০৩ নভেম্বর ২০১৯

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ইবি ছাত্রলীগের সাবেক ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালনের ভগ্নীপতি শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে শনিবার রাতে মেহেরপুরের গাংনী থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

ক্যাম্পাসের কর্মচারী ও সাবেক ছাত্রলীগনেতা ইলিয়াস জোয়ার্দ্দারসহ কয়েকজন লালনের গ্রামের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে এ মামলা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাজেদুল ইসলাম মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘ইবি কর্মচারীসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের ইতোমধ্যে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।’

মামলা সূত্রে, ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় আইসিটি দপ্তরের কর্মচারী ইলিয়াস জোয়ার্দ্দারকে প্রধান আসামী করে দন্ডবিধি ১৪৩, ৪৪৮ এবং ৫০৬ ধারায় মামলা করা হয়েছে। অন্য আসামীরা হলেন- ক্যাম্পাসস্থ শেখপাড়ার উজ্জল জোয়ার্দ্দার, শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ, মো. অনিক, সবুজ হোসেন ও মাইক্রোবাস ড্রাইভার ওবাইদুর রহমান। এছাড়াও মামলায় ৩/৪ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে।

মামলার এজহারে উল্লেখ করা হয়েছে, লালনের সাথে সাবেক প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানের দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলন এবং প্রক্টর পরিবর্তন আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়াসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক কারণে শক্রতা চলছে। সেই জের ধরে ড. মাহবুবর রহমান লালনকে হুমকি দেওয়াসহ তাঁর ক্ষতি সাধনে লিপ্ত। তাই এজহারে উল্লেখিত আসামীগণ গত শুক্রবার সন্ধ্যায় মেহেরপুর জেলার গাংনী থানাধীন মটমুরা বাজার সংলগ্ন এলাকায় লাললের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সামনে তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।

এবিষয়ে এজহারে অভিযুক্ত অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বলেন, ‘এটি সম্পূর্ণ অবান্তর একটি অভিযোগ। আসামীদের সাথে গত কয়েকদিন আমার কোন যোগাযোগই নেই।’

মামলার চার নং আসামী এবং ইবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, ‘এটি একটি ষড়যন্ত্র। আমার বিরুদ্ধে সুনির্দ্দিষ্ট কোন অভিযোগ-প্রমাণ নেই। আমার রাজনৈতিক ক্যারিয়ারকে কলুষিত করতে এই মামলা করা হয়েছে।’

তিন নং আসামী সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, ‘এটি ষড়যন্ত্রমুলক এবং সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলা। রাজনৈতিকভাবে আমাকে হেয় করা এবং ছাত্রলীগের ইমেজকে ক্ষুণœ করার জন্যেই এই মামলা করা হয়েছে।’

মামলার বাদী শহিদুল ইসলাম বলেন, এজহারে অর্šÍভুক্ত সবগুলিই সঠিক। আমার বাড়ি আমার শশুরবাড়ির পাশেই। ফলে বিষয়টি সম্পর্কে সম্পূর্ণ জানার পরই থানায় গিয়ে এই মামলা করেছি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads