• বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
সৌদিতে মাসে ৫ হাজার বিয়েবিচ্ছেদ

বিয়েবিচ্ছেদের পেছনে বেশকিছু কারণ দায়ী

ছবি : ইন্টারনেট

মধ্যপ্রাচ্য

সৌদিতে মাসে ৫ হাজার বিয়েবিচ্ছেদ

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২৯ আগস্ট ২০১৮

সৌদি আরবে দিন দিন বিয়েবিচ্ছেদের সংখ্যা বাড়ছে। দেশটির আইন মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী শাওয়াল মাসে দেশটিতে ১০ হাজার বিয়ের বিপরীতে পাঁচ হাজারেরও বেশি বিচ্ছেদ হয়েছে। অর্থাৎ ঘণ্টায় ছয়টির বেশি বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটেছে। খবর মিডল ইস্ট মনিটর।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বিয়েবিচ্ছেদের পেছনে বেশকিছু কারণ দায়ী। পরিবারবিষয়ক প্রশিক্ষক এবং পরামর্শক মোহাম্মদ ধাইফুল্লাহ আল-কুরানি জানান, বিয়ের অবমূল্যায়ন, সত্যিকার সম্পর্ক ও দায়িত্বের প্রতি অবহেলা এবং স্বামীর রাতে দেরি করে বাড়িতে ফেরার কারণে বিচ্ছেদের হার বাড়ছে। এ ছাড়া দম্পতিদের ব্যক্তিগত জীবনে আত্মীয় এবং আশপাশের মানুষের প্রভাব ও হস্তক্ষেপেও বাড়ছে বিচ্ছেদের ঘটনা। আল হায়াত পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে এটি একটি গুরুতর এবং জটিল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে বিচ্ছেদের উচ্চ হারের কথা অস্বীকার করেছেন আল-ইমাম মুহাম্মদ ইবনে সৌদ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান ও সমাজসেবা অনুষদের সদস্য খালেদ আল-নাকিয়াহ। তিনি বলেন, বিচ্ছেদের হার মোট বিয়ের মাত্র ২৯ থেকে ৩৫ শতাংশ। বিবাহবিচ্ছেদের ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ার যে কথা বলা হচ্ছে, তা সমাজকে অসম্মানিত করছে। এর মধ্য দিয়ে সমাজের ক্ষতিসাধনের চেষ্টা হচ্ছে। এ বিষয়ে আমাদের আরো সচেতন হতে হবে।

বিয়েবিচ্ছেদের হার কমানোর জন্য আমাদের উদ্যোগী হতে হবে। এ ছাড়া যারা বিয়ে করতে ইচ্ছুক তাদের জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। বিয়েতে বর ও কনের পারস্পরিক সমঝোতা প্রয়োজন। কাউকে জোর করে বিয়ে দেওয়া বা বিচ্ছেদ ঘটানো উচিত নয়। একই সঙ্গে দম্পতিদের জীবনে পরিবারের লোকজনের হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে হবে। বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রীর নিজেদের দায়-দায়িত্ব সম্পর্কে অজ্ঞতা এবং দম্পতির অপরিণত মন-মানসিকতা ও মতপার্থক্য বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে বড় ধরনের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে পুরুষদের তুলনায় নারীরাই বেশি বিবাহবিচ্ছেদ চান বলেও উল্লেখ করেন আল-নাকিয়াহ।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads