• রবিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৮, ৬ কার্তিক ১৪২৫
ads
বাইরে পাকা, ভেতরে কাঁচা

কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত বিষাক্ত আম নষ্ট করে

ছবি: বাংলাদেশের খবর

জাতীয়

কারওয়ান বাজারে ৪০০ মণ আম জব্দ

বাইরে পাকা, ভেতরে কাঁচা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৬ মে ২০১৮

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে আমের আড়তে অভিযান চালিয়ে মানবদেহের জন্য ভয়ানক ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান দিয়ে পাকানো ৪০০ মণ আম জব্দের পর ধ্বংস করা হয়েছে। র্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই অভিযানে অপরিপক্ব আম বিষাক্ত ইথোফেন হরমোন স্প্রে করে পাকানোর অভিযোগে আটজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত র্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

আড়তের কয়েকটি কার্টনের আম পরীক্ষা করে ইথোফেন হরমোন স্প্রের অস্তিত্ব পেয়ে ৪০০ মণ জব্দ করে ধ্বংসের নির্দেশ দেন ম্যাজিস্ট্রেট। পরে সিটি করপোরেশনের বুলডোজার দিয়ে সেগুলো ধ্বংস করা হয়। ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম বাংলাদেশের খবরকে বলেন, সারা দেশের জেলাগুলোতে আম পাড়ার জন্য সরকার তারিখ নির্ধারণ করে দিয়েছে। তবে কতিপয় ব্যবসায়ী গোপনে অপরিপক্ব আম সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠাচ্ছে। আমে স্প্রে করার দায়ে আটজনকে সর্বনিম্ন এক মাস ও সর্বোচ্চ তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ৪০০ মণ আম ধ্বংস করা হয়েছে। তিনি বলেন, ইথোফেন একটি হরমোন স্প্রে। এটি জমিতে ব্যবহার করা হয়, কিন্তু অভিযুক্তরা সরাসরি আমে ব্যবহার করেছে। এই আম খেলে ডায়রিয়া হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, মাত্রাতিরিক্ত ইথোফেন মানবদেহে প্রবেশ করলে ক্যানসার হতে পারে; এমনকি কিডনি নষ্টসহ মৃত্যুর আশঙ্কা থাকে। ‘আম ক্যালেন্ডার’ অনুযায়ী ২০ মে থেকে বাজারে আসবে সব ধরনের পাকা গুটি আম। ২৫ মে আসবে গোপালভোগ, ২৮ মে হিমসাগর ও ক্ষিরসাপাতি। এরপর ১ জুন লক্ষ্মণভোগ, ৫ জুন ল্যাংড়া ও বোম্বাই, ১৫ জুন আম্রপালি, ফজলি ও সুরমা ফজলি আসবে বাজারে। মৌসুম শেষের আশ্বিনা আম আসবে ১ জুলাই। কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতরের তথ্যমতে, দেশের প্রায় এক লাখ হেক্টর জমিতে আম উৎপাদন হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি হচ্ছে বৃহত্তর রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সাত বছরে এ অঞ্চলে আমের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় তিনগুণ। ২০১৭ সালে এ অঞ্চলের ১৭ হাজার ৪২০ হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়; উৎপাদন হয় ১ লাখ ৮১ হাজার ১০৭ টন। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়ালেও সেভাবে গতি পায়নি আম রফতানি। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বিশ্ববাজারে ৩ লাখ ২৪ হাজার কেজি আম সরবরাহ করে বাংলাদেশ। কিন্তু রাজশাহীর রফতানিযোগ্য ১৫ হাজার টনের মধ্যে রফতানি হয় মাত্র ২৩ টন আম।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads