• রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
বড়পুকুরিয়ায় ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কয়লা উত্তোলন শুরু

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বড়পুকরিয়া কয়লা খনির কোল ইয়ার্ডের একাংশ

ছবি : বাংলাদেশের খবর

জাতীয়

বড়পুকুরিয়ায় ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কয়লা উত্তোলন শুরু

  • সোহেল সানী, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮

প্রায় তিন মাস বন্ধ থাকার পর আগামী ১০ সেপ্টেম্বর দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি থেকে ফের কয়লা উত্তোলন শুরু হচ্ছে। ওইদিন খনির ১৩১৪ নম্বর কোল ফেজ থেকে পরীক্ষমূলকভাবে কয়লা উত্তোলন করা হবে। গত বুধবার বিকালে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি পরিদর্শনে গেলে খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. ফজলুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেন। গত ১৫ জুন খনির উৎপাদনশীল ১২১০ নম্বর ফেজের উৎপাদনযোগ্য কয়লার মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ায় ১৬ জুন থেকে খনির কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। একই সময় খনির কোল ইয়ার্ড ও কয়লাভিত্তিক ৫২৫ মেগাওয়াটের বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে কয়লার মজুদ শূন্যের কোটায় নেমে আসে। এতে কয়লার অভাবে ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। ফলে উত্তরাঞ্চলের ৮ জেলায় বিদ্যুতের লো-ভোল্টেজ ও লোডশেডিং সমস্যা প্রকট হয়ে ওঠে। এদিকে, খনির কয়লা মজুদের হিসাবে গরমিল ও ১ লাখ ৪৪ হাজার ৬৪৪ টন কয়লা ঘাটতির ঘটনা প্রকাশ হয়ে পড়লে সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এমন পরিস্থিতিতে খনির চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান, খনি কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশি খনি শ্রমিকদের ঐকান্তিক চেষ্টায় নির্ধারিত সময়ের আগে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ১৩১৪ নম্বর ফেজ থেকে কয়লা উত্তোলন শুরু হতে যাচ্ছে। তবে বাংলাদেশি খনি শ্রমিকরা ৮ সেপ্টেম্বর থেকেই পরীক্ষামূলকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু করতে আগ্রহী।

খনির মহাব্যবস্থাপক (মাইনিং/সারফেস অপারেশন) সাইফুল ইসলাম সরকার বলেন, কয়লার অভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়া বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের তিনটি ইউনিট দ্রুত চালু করতে জোর তৎপরতা চলছে। গত ২৬ আগস্ট বিকালে খনির প্রশাসনিক ভবনে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি), চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিএমসি-এক্সএমসি কনসোর্টিয়াম ও বড়পুকুরিয়া কোলমাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএমসিএল) মধ্যে বৈঠক হয়। বৈঠকে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর বড়পুকুরিয়ায় কয়লা উত্তোলন শুরুর সিদ্ধান্ত হয়। এ সিদ্ধান্ত ইতোমধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং পেট্রোবাংলাকে জানানো হয়েছে। তবে ৬ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে তিন দিনব্যাপী জাতীয় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সপ্তাহ সফল করতে কয়লাখনির বাংলাদেশি শ্রমিকরা ৮ সেপ্টেম্বর কয়লা উত্তোলন শুরু করতে চান। ফলে ৬ থেকে ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে যেকোনো দিন বড়পুকুরিয়ায় কয়লা উত্তোলন শুরু হতে পারে।

খনি শ্রমিকদের সংগঠন বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের উপদেষ্টা আমজাদ হোসেন ও সংগঠনের সভাপতি রবিউল ইসলাম বলেন, প্রয়োজনে ৬ ঘণ্টার শিফটের স্থলে অতিরিক্ত ২ ঘণ্টাসহ প্রতি শিফটে ৮ ঘণ্টা কাজ করে হলেও শ্রমিকরা ৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে খনির কয়লা উত্তোলন শুরু করতে চান।

এদিকে, ফের কয়লা উত্তোলন শুরুর সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় খনি কর্তৃপক্ষ, পিডিবি, পেট্রোবাংলার কর্মকর্তা ও সরকারের নীতিনির্ধারক পর্যায়ে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads