• বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৯ ফাল্গুন ১৪২৪
ads
চাঁদপুরের গর্ব ড. সিনার ও ডাঃ কানিজ

চাঁদপুরের কৃতি সন্তান ড. সিনার ও ডাঃ কানিজ

ছবি : বাংলাদেশের খবর

জাতীয়

একটি পরীক্ষায় ক্যানসার শনাক্ত ও গর্ভকালীন মাতৃমৃত্যু হার কমানোতে সাফল্য

চাঁদপুরের গর্ব ড. সিনার ও ডাঃ কানিজ

  • চাঁদপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৭ জানুয়ারি ২০১৯

সুজলা সুফলা বাংলাদেশ কাঙ্খিত মেধায় ঋদ্ধ নয়, দেশী-বিদেশী অনেক বোদ্ধার এমন অভিমতকে সা¤প্রতিক সময়ে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে চলছেন বাংলাদেশের মেধাবী কেউ কেউ। তাদেরই অন্যতম হলেন চাঁদপুরের কৃতি সন্তান ড. আবু আলী ইবনে সিনা ও ডাঃ কানিজ সুলতানা কান্তা।

ড. সিনা ও তার সহকর্মীরা রক্তের একটি পরীক্ষায় সব ক্যানসার শনাক্ত করার সাফল্য অর্জন করে দেশী-বিদেশী প্রচার মাধ্যমে রীতিমত হৈচৈ ফেলে দিয়েছেন। অপরদিকে ডাঃ কানিজ সুলতানা কান্তা গর্ভকালীন খিঁচুনির (একলাম্পসিয়া) কারণে মাতৃ মৃত্যুর হার কমানোর ক্ষেত্রে কাজ করে সাফল্য স্বরুপ গবেষকদের কাছে অস্কার হিসেবে গণ্য ‘ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নাল দক্ষিণ এশিয়া পুরস্কার-২০১৮’ অর্জন করেছেন।

চাঁদপুর শহরতলীর বাসিন্দা শিক্ষক দম্পতি মোঃ শহীদুল্লাহ ও সুরাইয়া আক্তারের প্রথম সন্তান ড. আবু আলী ইবনে সিনা। বাবা-মায়ের মতো তিনিও শিক্ষকতাকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। ২০১১ সালে সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন (বায়োকেমিস্ট্রি) বিভাগে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন এবং ২০১৩ সালে বৃত্তি নিয়ে পিএইচডি করার সুযোগ পান অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর পারসোনালাইজড ন্যানো মেডিসিনে ক্যানসার নিয়ে গবেষণা করছেন ড. সিনা। যে গবেষণায় তিনিসহ তাঁর সহকর্মীরা রক্তের একটি পরীক্ষায় সব ক্যানসার শনাক্ত করার সাফল্য অর্জন করে দেশী-বিদেশী প্রচার মাধ্যমে রীতিমত হৈচৈ ফেলে দিয়েছেন।

চাঁদপুরের আরেকটি সাফল্যের খবর ডাঃ কানিজ সুলতানা কান্তার। তিনি গর্ভকালীন খিঁচুনির (একলাম্পসিয়া) কারণে মাতৃ মৃত্যুর হার কমানোর ক্ষেত্রে কাজ করে যে সাফল্য অর্জন করেছেন, তার স্বীকৃতি স্বরূপ বিরল পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন ‘ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নাল দক্ষিণ এশিয়া পুরস্কার ২০১৮’। যা গবেষকদের কাছে ‘অস্কার’ বলে গণ্য। ২০১৮ সালের ১ ডিসেম্বর ভারতের চেন্নাইতে অনুষ্ঠিত ৫ম ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নাল (ইগঔ) পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে দক্ষিণ এশিয়ার নয়টি দেশের মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশী ফাইনালিস্ট হিসেবে ডাঃ কানিজ সুলতানা কান্তা অংশগ্রহণ করেন এবং পুরস্কার লাভ করেন।
ডাঃ কানিজ চাঁদপুর জেলা আয়কর আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও আয়কর উপদেষ্টা অ্যাডঃ শাহ মোঃ আবদুল কুদ্দুছের একমাত্র কন্যা। তিনি ইউএসএইডের একলাম্পসিয়া সংক্রান্ত প্রকল্পে অ্যাসিস্টেন্ট প্রোগ্রাম অফিসার হিসেবে কর্মরত।

চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতিতে চাঁদপুরের ড. সিনা ও ডাঃ কানিজের সাফল্যে শুধু জেলাবাসী নয়, দেশবাসীও গর্বিত বলে সচেতন মহলের অভিমত। মানবকল্যাণে তাদের আন্তরিকতা, নিষ্ঠাসহ সামগ্রিক আত্মনিবেদন আরো জোরদার হবে এমনই প্রত্যাশা সবার।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads