• সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
'গুদাম বন্ধের নির্দেশ অবহেলা কারীদের আইনের আওতায় আনা হবে'

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

সংরক্ষিত ছবি

জাতীয়

'গুদাম বন্ধের নির্দেশ অবহেলা কারীদের আইনের আওতায় আনা হবে'

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

যারা পুরান ঢাকায় রাসায়নিক গুদাম বন্ধে বা সরানোর দায়িত্বে ছিলেন, নিশ্চিত তাদের অবহেলা রয়েছে। অবৈধ কেমিক্যাল গুদাম এবং রাসায়নিক পদার্থ বিক্রি করে এমন দোকান চিহ্নিত করে তাদের আইনের আওতায় আনার বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ শুক্রবার বেলা ১১টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ ও আহত রোগীদের দেখতে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, চকবাজারে আগুনে দগ্ধদের সব দায়িত্ব নিয়েছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিনিয়ত তাদের খোঁজখবর রাখছেন বলেও জানান তিনি।

পুরান ঢাকায় রাসায়নিক গুদাম বন্ধে সরকার কঠোর হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এ ঘটনা ভয়াবহ ও মর্মান্তিক। যারা রাসায়নিক গুদাম বন্ধে বা সরানোর দায়িত্বে ছিলেন, নিশ্চিতভাবে বলা যায় দায়িত্বপালনে তাদের অবহেলা ছিল। আমি মনে করি, তাদেরও জবাবদিহিতার প্রয়োজন আছে।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, যে কোনো মূল্যে এগুলো সরাতে হবে। এমন দুর্ঘটনা শুধু কেমিক্যাল গোডাউনের কারণেই হচ্ছে না। একই সঙ্গে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের মধ্য দিয়েও ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটছে। শুধু আইন দিয়ে এসব দুর্ঘটনা পুরোপুরি বন্ধ করা যাবে না। একই সঙ্গে সচেতন মহল ও এলাকাবাসীকেও এমন অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, আমি ইতোমধ্যে আমার মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছি। তাদের বলেছি, সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহার বন্ধ করে কীভাবে বিকল্প উপায় বের করা যায়। কারণ সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ব্যাপক প্রাণহানিসহ ক্ষতি হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাতের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে কমপক্ষে ৮১ জন পুড়ে মারা গেছেন। চকবাজারের নন্দকুমার দত্ত রোডের শেষ মাথায় চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদের পাশে ৬৪ নম্বর হোল্ডিংয়ের ওয়াহিদ ম্যানশনে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। আবাসিক ভবনটিতে কেমিক্যাল গোডাউন থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads