• বৃহস্পতিবার, ৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
মোবাইল অপারেটরদের কাছে পাওনা ১৫ হাজার কোটি টাকা

ছবি : সংগৃহীত

জাতীয়

মোবাইল অপারেটরদের কাছে পাওনা ১৫ হাজার কোটি টাকা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৬ মে ২০১৯

দেশের চারটি মোবাইল অপারেটরের কাছে সরকারের বকেয়া পাওনা ১৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা আদায়ের জন্য সুপারিশ করেছে সংশ্লিষ্ট সংসদীয় কমিটি। একই সঙ্গে বড় অঙ্কের এই বকেয়া নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কমিটি।

তবে এর আগে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সংসদকে জানিয়েছিলেন, মোবাইল কোম্পানিগুলোর কাছে রাজস্ব বাবদ সরকারের পাওনা ১৫ হাজার ১৬০ কোটি টাকা।  

একাদশ জাতীয় সংসদের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির দ্বিতীয় বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়। কমিটির সভাপতির অনুপস্থিতিতে কমিটির জ্যেষ্ঠ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের সভাপতিত্বে গতকাল সংসদ ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

কমিটির সদস্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, বেনজীর আহমদ, ফাহ্মী গোলন্দাজ বাবেল, আহমেদ ফিরোজ কবির, মো. নুরুল আমিন, মনিরা সুলতানা, জাকিয়া পারভীন খানম এবং অপরাজিতা হক বৈঠকে অংশ নেন। এছাড়া বিশেষ আমন্ত্রণে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বৈঠকে যোগদান করেন।

বৈঠক সূত্র জানায়, প্রয়োজনে মোবাইল কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়।

সম্প্রতি সংসদে মন্ত্রী বলেন, মোবাইল অপারেটরগুলোর কাছে রাজস্ব বাবদ ১৫ হাজার ১৬০ কোটি টাকা সরকারের পাওনা রয়েছে। এই বকেয়া আদায়ে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে দেশের মোবাইল অপারেটরগুলোর মধ্যে প্যাসিফিক বাংলাদেশ টেলিকম লি. (সিটিসেল)-এর কাছে সরকারের ১২৮ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে। বকেয়া থাকার কারণে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির অপারেশন কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে এবং বকেয়া আদায়ে বিটিআরসির মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টে একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বিটিআরসির মাধ্যমে সরকারি রাজস্ব আদায় নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মোবাইল অপারেটরগুলো নিয়মিত অডিট করা হয়। ইতোমধ্যে গ্রামীণফোন ও রবির অডিট কার্যক্রম শেষ হয়েছে। গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির ৮ হাজার ৪৯৪ কোটি টাকা এবং এনবিআরের ৪ হাজার ৮৫ কোটি ৯৪ লাখ টাকাসহ মোট অডিট আপত্তির পরিমাণ ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। রবি আজিয়াটার কাছে বিটিআরসির ৬৭৭ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এবং এনবিআরের ১৮৯ কোটি ৪৭ লাখ টাকা টাকাসহ মোট অডিট আপত্তির পরিমাণ ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা। অডিট আপত্তির অর্থ পরিশোধের জন্য প্রতিষ্ঠান দুটিকে ইতোমধ্যে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও মোবাইল অপারেটর বাংলালিংক কমিউনিকেশন লিমিটেড ও এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডে অডিট কার্যক্রম শুরুর লক্ষ্যে অডিটর নিয়োগের বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন।

গতকালের বৈঠকে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের বিগত পাঁচ বছরের অর্জন ও আগামী পাঁচ বছরের কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ এবং মন্ত্রণালয়ের প্রধান ১০টি চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা হয়। কমিটি সারা দেশে নতুন প্রজন্মের সময়ের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে জ্ঞানভিত্তিক, প্রযুক্তিনির্ভর ও কর্মমুখী শিক্ষাব্যবস্থা-সংক্রান্ত প্রকল্প গ্রহণের সুপারিশ করে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads