• বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৫
ads
ভাড়া নিয়ে বিতণ্ডা: 'আলম এশিয়ার' সেই বাসচালক গ্রেপ্তার

সংগৃহীত ছবি

জাতীয়

ভাড়া নিয়ে বিতণ্ডা: 'আলম এশিয়ার' সেই বাসচালক গ্রেপ্তার

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১০ জুন ২০১৯

ভাড়া নিয়ে বাকবিতণ্ডার জেরে সালাউদ্দিন (৩৫) নামে এক যাত্রীকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে চাকায় পিষে মারা আলম এশিয়া পরিবহনের চালক রোকনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আজ সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার একটি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গাজীপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ জানান, যাত্রীকে পিষে মারার পর থেকে পলাতক রোকন ওই এলাকায় আছেন বলে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালানো হয় এবং তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যাত্রী সালাউদ্দিনকে বাসের নিচে চাপা দিয়ে হত্যা করা হয়।

নিহত সালাউদ্দিন ঢাকার আলুবাজারের মৃত শাহাবউদ্দিনের ছেলে। তিনি গাজীপুর সদর উপজেলার বাঘের বাজার এলাকার আতাউর রহমান আতা মেম্বারের বাড়িতে স্ত্রীসহ ভাড়ায় থেকে স্থানীয় স্কটেক্স অ্যাপারিয়াল কারখানার গাড়িচালক হিসেবে কাজ করতেন।

জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই জামাল হোসেন বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেছেন। মামলায় চালকসহ চারজনকে আসামি করা হয়েছে।

নিহতের স্ত্রী পারুল আক্তার জানান, স্বামী সালাউদ্দিনকে সাথে নিয়ে তিনি ঈদের ছুটিতে ময়মনসিংহে তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যান। রোববার তারা ময়মনসিংহ থেকে আলম এশিয়া পরিবহনের বাসযোগে কর্মস্থল গাজীপুরে ফিরছিলেন। পথে তার স্বামীর সাথে ভাড়া নিয়ে পরিবহনের সহকারীর বিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে বাসের ভেতরেই সালউদ্দিনকে মারধর করেন পরিবহনের সহকারী এবং লাথি মেরে তাকে ফেলে দেবেন বলে হুমকি দেন।

ভয় পেয়ে সালাউদ্দিন তার ভাই জামালকে ফোনে বাঘের বাজার বাসস্ট্যান্ডে এসে দাঁড়াতে বলেন। পরে জামাল আরও ৫-৬ জন লোক নিয়ে বাঘের বাজার দাঁড়িয়ে থাকেন। তবে বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকা স্বজনরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই সালাউদ্দিনকে ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে ফেলে দেয়া হয়। কিন্তু তার স্ত্রীকে নিয়ে বাস চলে যেতে থাকে। স্ত্রীকে না নামিয়ে বাস চলে যেতে থাকলে সালাউদ্দিন দৌড়ে বাসটির সামনে গিয়ে গতিরোধ করার চেষ্টা করেন। এ সময় চালক বাসটি সালাউদ্দিনের ওপর উঠিয়ে দেন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে দ্রুত গতিতে বাসটি নিয়ে সটকে পড়েন চালক।

পরে পারুল কান্নাকাটি শুরু করলে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে বাসের গতি কমিয়ে তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয়। খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে পুলিশ বাসটিকে আটক করতে পারলেও তখন চালক ও তার সহকারীরা পালিয়ে যায়।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads