• রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
সিটিসেলের ১২ জনের বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা

ছবি : সংগৃহীত

জাতীয়

সিটিসেলের ১২ জনের বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১২ জুলাই ২০১৯

প্যাসিফিক টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিটিসেল) ১২ কর্মকর্তার বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এর আগে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান এম মোর্শেদ খানের বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল দুদক।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুদকের উপ-পরিচালক এম শামছুল আলম স্বাক্ষরিত ও পুলিশের বিশেষ শাখার ইমিগ্রেশনের বিশেষ সুপারের কাছে লেখা চিঠিতে এ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। যাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে তারা হলেন প্যাসিফিক টেলিকমের সাবেক চেয়ারম্যান এম ওয়াহিদুল হক, পরিচালক ফয়েজ আহমেদ ও সৈয়দ আবজাল হাসান উদ্দিন, সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল আউয়াল, মোহাম্মদ ইমতিয়াজ হোসেন, শিশির রঞ্জন বোস, মেসবাউল হক, জাকিয়া শাহরুদ খান রুনা, মিশাল কবির ও বিবি সাহা রায়। এর আগে গত ১০ জুন এম মোর্শেদ খানের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেয় দুদক।

গতকাল ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের কাছে দুদকের পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পরের যোগসাজশ এবি ব্যাংক থেকে প্যাসিফিক টেলিকম বাংলাদেশর সহায়ক জামানতবিহীন ব্যাংক গ্যারান্টার অনুমোদন-সংক্রান্ত শাখা প্রস্তাব ও ক্রেডিট কমিটির সুপারিশ মোতাবেক অবৈধভাবে প্যাসিফিক টেলিকমের অনুকূলে শর্তহীনভাবে ৩৪৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা ঋণ নেয়। ব্যাংক গ্যারান্টি ব্যবহার করে প্যাসিফিক টেলিকম ৮টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে থেকে সহায়ক ঋণ নিয়েছে। কিন্তু শর্ত অনুযায়ী ঋণগুলো পরিশোধ করেনি। প্যাসিফিক টেলিকম কর্তৃক গৃহীত ঋণ পে-অর্ডারের মাধ্যমে সুদসহ ৩৮৩ কোটি ২২ লাখ ১০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করায় বনানী থানায় ২০১৭ সালের ২৮ জুন তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় আসামিরা সপরিবারে দেশ ত্যাগ করে অন্য দেশে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে আসামিদের বিদেশ গমন রহিত করা আবশ্যক। চিঠিতে আসামিদের পাসপোর্ট নম্বর উল্লেখ করে বিদেশ গমন রোধ করতে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বন্ধ হয়ে যাওয়া মোবাইল অপারেটর সিটিসেলের ৫৫ শতাংশ শেয়ার ছিল প্যাসিফিক টেলিকমের।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads