• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
আইভি রহমানের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ছবি : সংগৃহীত

জাতীয়

আইভি রহমানের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২৪ আগস্ট ২০১৯

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে রাজধানীর গুলিস্তানের ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের উদ্যোগে আয়োজিত সন্ত্রাসবিরোধী মিছিলপূর্ব এক শান্তিপূর্ণ সমাবেশে ঘাতকরা বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলা চালায় ও গুলিবর্ষণ করে। ন্যক্কারজনক ও ভয়াল ওই হামলায় আইভি রহমানও গুরুতর আহত হন।

ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে টানা চার দিন মৃত্যু যন্ত্রণায় ভুগে অবশেষে ২৪ আগস্ট তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। প্রতিবারের মতো এবারও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে তার মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হবে। আওয়ামী লীগের নেত্রী আইভি রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করতে দলের উদ্যোগে আজ নানা কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

আইভি রহমানের জন্ম ১৯৪৪ সালের ৭ জুলাই কিশোরগঞ্জের ভৈরবে। তার বাবা জালাল উদ্দিন আহমেদ ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। মা হাসিনা বেগম ছিলেন গৃহিণী। আইভি রহমানের একমাত্র ছেলে নাজমুল হাসান পাপন বর্তমানে কিশোরগঞ্জ-৬ আসনের সংসদ সদস্য। তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতিও। আইভি রহমানের দুই মেয়ে তানিয়া বাখ্ত ও তনিমা রহমান।

রাজনীতি ছাড়াও সামাজিক কর্মকাণ্ডে নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন আইভি রহমান। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অবস্থায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নীতি ও আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে গণতন্ত্রের সংগ্রামে আত্মনিয়োগ করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ভারতে অস্ত্র চালনা ও প্রাথমিক চিকিৎসা সহায়তা প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। এছাড়া তিনি স্বাধীন বাংলা বেতারে নিয়মিত কথিকা পাঠ করতেন। ১৯৬৯ সালে তিনি মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। মুক্তিযুদ্ধ ও সমাজসেবার ক্ষেত্রে অনন্য ও গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা রাখার জন্য ২০০৯ সালে আইভি রহমানকে স্বাধীনতা পুরস্কার (মরণোত্তর) দেওয়া হয়।

জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত মহিলা সমিতির সভাপতি ও জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে গেছেন তিনি। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত জাতীয় মহিলা সংস্থা ও জাতীয় মহিলা সমিতির চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি।

১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহীর কমিটির মহিলাবিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন আইভি রহমান। ১৯৮০ সালে মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পান। ২০০২ সাল পর্যন্ত তিনি এ পদে আসীন ছিলেন। মহিলা সমিতিও পুনর্গঠনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল শুক্রবার জানানো হয়, আইভি রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতারা প্রয়াতের কবরে শ্রদ্ধা জানাবেন। একই দিন বাদ আসর পরিবারের পক্ষ থেকে ঢাকার আইভি কনকর্ড টাওয়ারে (বাড়ি-২২, সড়ক-১০৮, গুলশান-২) মিলাদ ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করা হয়েছে। মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী এবং প্রয়াতের শুভার্থীদের শরিক হওয়ার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads