• শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬
ads
আগস্টে সেনাবাহিনীর উল্লেখযোগ্য কর্মকাণ্ড

ফাইল ছবি

জাতীয়

আগস্টে সেনাবাহিনীর উল্লেখযোগ্য কর্মকাণ্ড

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

গত আগস্ট মাসে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী উল্লেখযোগ্য কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেছে। আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে এবং প্রয়োজনে নিজেদের জীবনকে উৎসর্গ করছে। গত আগস্ট মাসে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর টহল দলের সঙ্গে গুলিবিনিময়ের দুটি পৃথক ঘটনায় ইউপিডিএফ (মূল) দলের একজন শীর্ষ সন্ত্রাসীসহ ৪ জন সন্ত্রাসী নিহত হয়। গত ১৮ আগস্ট সন্ত্রাসীদের সঙ্গে গুলিবিনিময়কালে একজন সেনাসদস্য শাহাদতবরণ করেন। এছাড়া সেনাবাহিনী কর্তৃক ২২ জন সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার, ৮টি দেশি ও বিদেশি অস্ত্র ও ৩৬ রাউন্ড অ্যামোনেশন উদ্ধার করা হয়। একই সঙ্গে পার্বত্য চট্টগ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্থা ও আর্থসামাজিক উন্নয়নে নিয়মিতভাবে সেনাবাহিনী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় গত ১ আগস্ট তারিখে ঢাকা সিএমএইচে হাঙ্গেরির একটি মেডিকেল টিমের সহায়তায় ৩৩ ঘণ্টাব্যাপী একটি বিরল অপারেশনের মাধ্যমে মাথা জোড়া লাগানো যমজ বাচ্চা রাবেয়া ও রোকেয়ার সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়। অপারেশনের পরে হাঙ্গেরীয় মেডিকেল টিমের সদস্যরা দেশে প্রত্যাবর্তনের পর ঢাকা সিএমএইচের একটি মেডিকেল টিম সার্বক্ষণিকভাবে বাচ্চা দুটিকে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ ও চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করে আসছে।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিকভাবে বাচ্চা দুটির শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর রাখছেন।

সেনাবাহিনী প্রধানের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী দেশের সব সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে বিশেষ ডেঙ্গু সেল গঠনের মাধ্যমে বেসামরিক ব্যক্তিদের ডেঙ্গু টেস্টের যাবতীয় সহায়তা ও চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হয়। ঢাকা সেনানিবাসের এএফআইপিতে গত আগস্ট মাসে সর্বমোট ৩ হাজার ২৭৫ জন বেসামরিক ব্যক্তি এই সহায়তা গ্রহণ করেন। গত ৭ আগস্ট ডেঙ্গু রোগ প্রতিরোধে সবার মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ঢাকা সেনানিবাসসহ অন্যান্য সব সেনানিবাসে পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হয়। পরিচ্ছন্নতা অভিযানে সেনা সদস্যদের পাশাপাশি তাদের পরিবারকে এবং সব সেনানিবাসের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরাও অংশগ্রহণ করে।

গত ১৮ আগস্ট বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ৪ দিনের সরকারি সফরে ইন্দোনেশিয়া যান। সেনাবাহিনী প্রধান ইন্দোনেশিয়া সেনাবাহিনী প্রধানের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশ ও ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে সন্ত্রাস দমন, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনসহ অন্যান্য বিভিন্ন সামরিক ক্ষেত্রে দ্বিপক্ষীয় প্রশিক্ষণ সহায়তার ওপর বিস্তারিত আলোচনা করেন। এছাড়া সেনাবাহিনী প্রধান বাংলাদেশে বিদ্যমান রোহিঙ্গা সমস্যা এবং ভবিষ্যতে এই সমস্যার ফলে উদ্ভূত বিভিন্ন আঞ্চলিক সমস্যা ও নিরাপত্তা হুমকি নিয়েও আলোচনা করেন। একই সঙ্গে তিনি এই সমস্যা সমাধানকল্পে আসিয়ানের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে ইন্দোনেশিয়াকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়ার জন্য সে দেশের সেনাবাহিনী প্রধানের মাধ্যমে তাদের সরকারকে অনুরোধ জানান। সেনাবাহিনী প্রধান ইন্দোনেশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডারের সঙ্গে  সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশ ও ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সামরিক সহায়তার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর জন্য ইন্দোনেশিয়া থেকে বিভিন্ন সামরিক সরঞ্জামাদি ক্রয়ের সম্ভাবনার বিষয় নিয়েও আলোচনা করেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে ভারতীয় সেনাবাহিনীর নিবিড় সম্পর্ককে আরো সুদৃঢ় ও প্রগাঢ় করার উদ্দেশ্যে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ২০ সদস্যের ফুটবল দল গত ২৫ থেকে ২৯ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করে। এ সময় ভারতীয় সেনাবাহিনী ফুটবল দল ৪৬ স্বতন্ত্র পদাতিক ব্রিগেড ফুটবল দল ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ফুটবল দলের সঙ্গে প্রীতি ম্যাচে অংশগ্রহণসহ বেশ কিছু সামরিক ও অসামরিক স্থাপনা পরিদর্শন করে। গত বছরের ২৯ জুলাই ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ঢাকা সেনানিবাসসংলগ্ন এমইএস বাস স্টপ এলাকায় একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় ২ জন শিক্ষার্থী প্রাণ হারানোর পর প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি দিকনির্দেশনায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ওই মহাসড়কের বীরসপ্তক ক্রসিং পয়েন্টে একটি আন্ডারপাস নির্মাণ প্রকল্পটি অর্পণ করা হয়। সম্পূর্ণ নতুন প্রযুক্তিতে এই প্রকল্পের কার্যক্রমে গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর হতে জরুরি ভিত্তিতে শুরু করা হয়, যার নির্মাণকাজ বর্তমানে চলমান রয়েছে এবং ইতোমধ্যে ৬০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

 

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads