• শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

জাতীয়

সমুদ্রে ‘গ্যাস হাইড্রেট’ অনুসন্ধান করবে সরকার

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সমুদ্রের খনিজসম্পদ ‘গ্যাস হাইড্রেট’ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এই সম্পদ খতিয়ে দেখতে একজন বৈজ্ঞানিককে নিয়োগ দেওয়ার বিষয়টিও প্রায় চূড়ান্ত। তবে বিষয়টি স্পর্শকাতর এবং গোপনীয়তার স্বার্থে বিস্তারিত প্রকাশ করা যাচ্ছে না। রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের মন্ত্রী পর্যায়ের দুই দিনব্যাপী সম্মেলনের শেষদিন গতকাল বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমকর্মীদের এই তথ্য জানান পররাষ্ট্র সচিব (মেরিটাইম) মো. খুরশিদ আলম। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, আমাদের সাগরে গ্যাস হাইড্রেট আছে কি না, তা গবেষণা করব।

এই গবেষণাকাজের জন্য আজকেই (গতকাল) একজন বৈজ্ঞানিকের সঙ্গে আলাপ হয়েছে। তাকে আমরা এই গবেষণার দায়িত্ব দেব। বিষয়টি স্পর্শকাতর এবং গোপনীয়তার স্বার্থে বৈজ্ঞানিকের নামসহ বিস্তারিত প্রকাশ করা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, এই গ্যাস একটি বিশাল জ্বালানি সম্পদ। আমরা যদি আমাদের সাগরে এই গ্যাস আবিষ্কার করতে পারি তবে জ্বালানি খাতে বাংলাদেশ অনেকদূর এগিয়ে যাবে। এরই মধ্যে প্রতিবেশী দেশ ভারত তাদের সাগরে এই গ্যাসের সন্ধান পেয়েছে।

একাধিক বৈজ্ঞানিক জার্নাল ঘেঁটে জানা গেছে, সাগরতলের নির্দিষ্ট সীমানায় হাইড্রেট গ্যাস বরফখণ্ডের মতো জমে থাকে। মূলত গ্যাস হাইড্রেটে মিথেন থাকে, যা প্রাকৃতিক গ্যাসের মতো জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এই মিথেনকে আবার কার্বন-ডাই-অক্সাইড গ্যাসে রূপান্তরিত করা যায়, যা শিল্পকারখানার জ্বালানিসহ একাধিক উন্নয়নকাজে লাগানো যায়।

যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ডসহ বিশ্বের উন্নত দেশগুলো আগামী দিনের জ্বালানি সম্পদ হিসেবে সাগরের এই হাইড্রোজেন গ্যাসকে মজুত করে রেখেছে।

সম্মেলনে আইওআরএ মহাসচিব ড. নমভো এন নোকে বলেন, আইওআরএ সদস্য দেশগুলো একযোগে সমুদ্র খাত বিকাশে কাজ করছে। সমুদ্র অর্থনীতি মানবিক অর্থনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর সমুদ্র-সম্পদ উন্নয়নে ১৭ দফা ঘোষণা করেছে ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের (আইওআরএ)। ওই হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ‘ঢাকা ঘোষণা’ উপস্থাপন করা হয়।

ঢাকা ঘোষণায় রয়েছে, সদস্য দেশগুলোর সমুদ্রে জীববৈচিত্র্য রক্ষা করা, সমুদ্র-অর্থনীতি উন্নয়নে সবাইকে সম্পৃক্ত করা, সমুদ্র-অর্থনীতির টেকসই উন্নয়নে কাঠামো ও ব্যবস্থাপনা নীতিতে জোর দেওয়া, সদস্য দেশ ও সংলাপ অংশীদারদের মধ্যে সহযোগিতা জোরদার, সদস্য দেশগুলোর মধ্যে সমুদ্র-অর্থনৈতিক ডাটাবেস তৈরি ইত্যাদি।

আইওআরএ সম্মেলনের প্রথম পর্ব অনুষ্ঠিত হয় ৪ সেপ্টেম্বর। গতকাল মূল অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্মেলনে বাংলাদেশ, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ইরান, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, ওমান, সিঙ্গাপুর, আরব আমিরাত, ইয়েমেনসহ আইওআরএ’র সদস্য ২১টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads