• রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬
ads
দেশে ফেরতদের থানায় যোগাযোগের অনুরোধ

সংগৃহীত ছবি

জাতীয়

দেশে ফেরতদের থানায় যোগাযোগের অনুরোধ

  • বাংলাদেশের খবর
  • প্রকাশিত ২৪ মার্চ ২০২০

দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের শুরুর কয়েকদিন বিশেষ করে ১ মার্চ থেকে দেশেফেরা প্রবাসীদের মধ্যে যারা পাসপোর্টের ঠিকানার বাইরে অন্য ঠিকানায় অবস্থান করছেন তাদের শিগগিরই নিকটস্থ থানায় যোগাযোগের নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ।

সেই সঙ্গে বিদেশ ফেরতদের কোয়ারেন্টিনে থাকার ব্যাপারে সরকারি নির্দেশনা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার পুলিশ সদর দপ্তর এ নির্দেশ জারি করে। অন্যথায় এসব লোকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের হিসেবে, ১ মার্চ থেকে মোট ২ লাখ ৯৩ হাজার প্রবাসী দেশে ফিরেছেন। তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত পুলিশ ১৮ হাজারের ঠিকানা পেয়েছে। 

এর আগে পুলিশ সদর দপ্তরের কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, জানুয়ারি থেকে সাড়ে ছয় লাখ মানুষ দেশে এসেছেন। এর মধ্যে মার্চ মাসের ২০ দিনেই এসেছেন ২ লাখ ৯৩ হাজার।

আর গতকাল পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে গেছেন মাত্র ১৭ হাজার ৭৯০ জন। দেশে আসার সময় সঠিক ঠিকানা না দেয়া এবং পাসপোর্টের ঠিকানায় অবস্থান না করার কারণে ফিরে আসা এসব লোককে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে, বিদেশ ফেরত যেসব ব্যক্তি কোয়ারেন্টিনের ব্যাপারে সরকারি নির্দেশনা না মেনে অন্যদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়।

এরপর পুলিশের বিশেষ শাখা মার্চ মাসে যারা দেশে এসেছেন, তাদের তালিকা প্রস্তুত করে। এ সময় দেশে আসা ২ লাখ ৫৭ হাজার দেশি ও ২৬ হাজার বিদেশির তালিকা সারা দেশে পুলিশ সুপারদের কাছে পাঠানো হয়।

এখন এরা কোয়ারেন্টিনের নিয়মকানুন সঠিকভাবে অনুসরণ করছে কি না, তা জানতে পুলিশ তাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে।

কোয়ারেন্টিনের শর্ত ভঙ্গের দায়ে মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, মাদারীপুর, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী ও ঝালকাঠিতে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের মুখপাত্র এআইজি সোহেল রানা বলেন, করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশের বিভিন্নস্থানে জনসমাগম বন্ধ করেছে পুলিশ।

মানুষকে সচেতন করছে, তাদের সহায়তা দিচ্ছে। আবার এ ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে নিয়ম লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হচ্ছে।

বর্তমান বাস্তবতায় এবং জনস্বার্থ বিবেচনায় কুলিশ সদস্যদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads