• বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭
ads
সিরাজগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতা নিহত ও দু’গ্রুপে সংঘর্ষ:পাল্টাপাল্টি আরও ২ মামলায় আসামি ৩৫০

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

জাতীয়

সিরাজগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতা নিহত ও দু’গ্রুপে সংঘর্ষ:পাল্টাপাল্টি আরও ২ মামলায় আসামি ৩৫০

  • সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১২ জুলাই ২০২০

সিরাজগঞ্জে নিহত ছাত্রনেতা এনামুল হক বিজয় স্মরণে মিলাদ মাহফিলকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় সদর থানায় পাল্টাপাল্টি আরও পাল্টাপাল্টি দুইটি মামলা হয়েছে। মামলায় নামীয় ও অজ্ঞাত মিলে ৩৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে। এ নিয়ে ওই সংঘর্ষের ঘটনায় মামলার সংখ্যা দাঁড়ালো ৪টিতে। এর আগেও ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারন সম্পাদক পাল্টাপাল্টি ২টি মামলায় করেছেন। যেখানে নামীয় ও অজ্ঞাত মিলে ২৮০ জনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়াও এই সংঘর্ষের কারণে দলের মধ্যে বিভক্তি দেখা দেয়ায় আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির হস্তক্ষেপে বুধবার থেকে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় বন্ধ এবং আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের দলীয় কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে।   

সদর থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, শনিবার জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল হকের স্ত্রী মুক্তা খাতুন বাদী হয়ে তার স্বামীকে মারপিটের অভিযোগে এনে একটি মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় ৭৫ জনের নাম উল্লেখ্য এবং ১০০/১৫০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

এর আগে সংঘর্ষে আহত গয়লার আহম্মেদ শেখের পক্ষে সিরাজগঞ্জ সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রাশেদ খান ৯ জুলাই বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় ৮১জনের নাম উল্লেখ এবং ৩০/৪০জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। এছাড়াও ঘটনার পরই জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসান হাবিব খোকা এবং সাধারন সম্পাদক আব্দুল্লাহ বিন আহম্মেদ বাদী হয়ে পৃথক দু্ইটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দুটিতে নামীয় ও অজ্ঞাত মিলে ২৮০ জনকে আসামি করা হয়েছে। 

ওসি আরও বলেন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বাদী হয়ে দায়ের করা মামলা দুটির তদন্ত করছেন থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম মোস্তফা এবং মুক্তা খাতুন ও রাশেদ খানের দায়ের করা মামলা দুটির তদন্ত করছেন থানার পরিদর্শক (অপারেশন) নুরুল ইসলাম। এসব মামলায় শনিবার পর্যন্ত ২৫ জনকে গ্রেপ্তারের পর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।


জেলা যুব লীগের সদস্য মুক্তা খাতুনের দায়ের করা মামলার শীর্ষ পর্যায়ের আসামীরা হলেন- জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ ইউসুফ জুয়েল, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক জিহাদ আল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল্লাহ বিন আহম্মেদ, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান সোহেল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম লিমন, সদর উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের আহবায়ক মোয়াজ্জেম হোসেন মন্ডল, সদস্য মুলিবাড়ির হাজী মজনু, সয়দবাদ ইউপি সদস্য মুলিবাড়ির আব্দুল মোমিন, পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক কোষাধ্যক্ষ শাহাদত হোসেন, যুবলীগ নেতা কল্যাণীর ফরিদ আহম্মেদ, দত্তবাড়ির মো: হোসেন, আবু মুসা ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক পীর সুমন প্রমুখ।  


অপরদিকে, সিরাজগঞ্জ সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রাশেদ খানের দায়ের করা মামলার শীর্ষ পর্যায়ের আসামিরা হলেন- পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌরসভার প্যানেল মেয়র হেলাল উদ্দিন, তার ভাই সদর থানা আওয়ামী লীগের সদস্য বেলাল হোসেন, সংঘর্ষে আহত জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল হক, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসান হাবিব খোকা, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিম রেজা নুর দিপু, শহর যুবলীগের আহবায়ক এমদাদুল হক এমদাদ, ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি টি এম রিজভী. সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদ জামিউর রহমান উল্লাস ও শহর ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল মতিন প্রমুখ।  


প্রসঙ্গত, গত ৭ জুন নিহত ছাত্রনেতা এনামুল হক বিজয় স্মরণে মিলাদ মাহফিলকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়পক্ষে অন্তত ৪০জন নেতাকর্মী আহত হয়। টানা দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে উভয় গ্রুপে অন্যান্য সংগঠনের নেতাকর্মীরাও যুক্ত হন। এর আগে, ২৬ জুন জাতীয় নেতা প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিমের স্মরণে ছাত্রলীগ আয়োজিত দোয়া মাহফিলে যোগ দিতে যাওয়ার পথে শহরের বাজার স্টেশন এলাকায় এনামুল হক বিজয়কে মাথায় কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষ। ৯ দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর ৫ জুলাই সকালে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় বড় ভাই রুবেল বাদী হয়ে ২৭ জুন জেলা ছাত্রলীগের দুই সাংগঠনিক সম্পাদকসহ সংগঠনের ৫ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় বর্তমানে ৩ জন জেলহাজতে, একজন জামিনে এবং প্রধান আসামী পলাতক রয়েছে। ঘটনার পর ২৮ জুন মামলার আসামী জেলা ছাত্রলীগের ২ সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমিন ও শিহাব আহমেদ জিহাদকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। নিহত এনামুল জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও কামারখন্দ সরকারী হাজী কোরপ আলী ডিগ্রি কলেজ শাখার সভাপতি ছিলেন।  

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads