• বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭
অর্ধলক্ষাধিক পরিবার ঘর পাচ্ছে কাল

ছবি: বাংলাদেশের খবর

জাতীয়

অর্ধলক্ষাধিক পরিবার ঘর পাচ্ছে কাল

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২২ জানুয়ারি ২০২১

মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী সরকারের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় প্রথম পর্যায়ে ৬৯ হাজার ৯০৪ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেওয়া হবে। আগামীকাল শনিবার বিশ্বে এই প্রথমবারের মতো একসাথে ৬৬ হাজার ১৮৯টি ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারের প্রত্যেককে ২ শতাংশ খাস জমির মালিকানা দিয়ে দুই কক্ষবিশিষ্ট ঘর দেওয়া হবে। এ উপলক্ষে দেশজুড়ে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প পরিচালক মো. মাহবুব হোসেন জানান, প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি তত্ত্বাবধায়নের সরকার দেশকে ভূমিহীন, গৃহহীন মুক্ত করতে কাজ করছে। দল-মত-ধর্ম নির্বিশেষে সবাইকেই ঘর দেওয়া হচ্ছে। আশ্রয়ণ প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হলো, ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্ন-অসহায়-দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসন, ঋণ প্রদান ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহে সক্ষম করে তোলা। আয়বর্ধক কার্যক্রম সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ।

আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ১৯৯৭ সালে আশ্রয়ণ নামে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। যা প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে। এ প্রকল্পের আওতায় ১৯৯৭ সাল থেকে ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত  তিন লাখ ২০ হাজার ৫২টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।

ক্ষুধামুক্ত-দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা বিনির্মাণে মুজিববর্ষে ‘বাংলাদেশে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দেশের সব ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষের বাসস্থান নিশ্চিতকল্পে ‘মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে দেশের সব ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য গৃহ প্রদান নীতিমালা-২০২০’ প্রণয়ন করা হয়েছে। এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ২০২০ সালের জুনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে ভূমিহীন ও গৃহহীন ৮ লাখ ৮৫ হাজার ৬২২ টি পরিবারের তালিকা করা হয়।

প্রথম ধাপে ৬৬ হাজার ১৮৯টি পরিবারকে ঘর প্রদান করার পর, ২১টি জেলার ৩৬টি উপজেলার ৪৪টি প্রকল্প গ্রামে ৭৪৩টি ব্যারাক নির্মাণের মাধ্যমে ৩ হাজার ৭১৫টি পরিবারকে ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হবে।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads