• বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট ২০২০, ২২ শ্রাবণ ১৪২৭
ads
ভূঞাপুরে বন্যার অবনতি, পানির নিচে গোবিন্দাসী বাজার-স্কুলসহ শতাধিক গ্রাম 

ছবি: বাংলাদেশের খবর

প্রাকৃতিক দুর্যোগ

ভূঞাপুরে বন্যার অবনতি, পানির নিচে গোবিন্দাসী বাজার-স্কুলসহ শতাধিক গ্রাম 

  • ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৬ জুলাই ২০২০

একদিকে করোনা অন্যদিকে বন্যা। যমুনায় নতুন করে আবারো পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে দ্বিতীয় দফায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। বিপদসীমার ৯২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। যমুনার পূর্বপাড় তলিয়ে বুধবার সকালে উপজেলার গোবিন্দাসী বাজার ও গোবিন্দাসী উচ্চ বিদ্যালয় পানি প্রবেশ করেছে। এখন বাজার ও বিদ্যালয়ে কোমর পানির নিচে। এতে  দুর্ভোগের শিকার হাজারো ব্যবসায়ী। অন্যদিকে পানি প্রবেশ করায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে স্কুলের আসবাবপত্র। এদিকে চরাঞ্চলসহ নদীতীরবর্তী শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হওয়ায় তলিয়ে গেছে শত শত হেক্টর ফসলি জমি। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার গাবসার, অর্জুনা, গোবিন্দাসী ও নিকরাইল ইউনিয়নের যমুনা তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।পানিবন্দি হয়ে পড়েছে হাজারো পরিবার। এছাড়া উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের ভালকুটিয়া,কষ্টাপাড়া,খানুরবাড়ি ও চিতুলিয়াপাড়া এলাকায় নতুন করে দেখা দিয়েছে ভাঙন। দিশেহারা হয়ে পড়েছে নদীপাড়ের মানুষ।

ভাঙন কবলিত লোকজন জানান, যমুনার পূর্বপাড়ে তীররক্ষা বাঁধ না থাকায়  গত কয়েক বছর ধরে ভাঙন শুরু হয়েছে। আর এ কারণে গোবিন্দাসী বাজারে পানি প্রবেশ করায় প্রতিবছরই দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

গোবিন্দাসী বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, আমরা সরকারের কাছে কোন প্রকার ত্রাণ সাহায্য চাইনা। যমুনার পূর্বপাড়ে স্থায়ী বাঁধ চাই। প্রতি বছর ভাঙন শুরু হলে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় নেতা-কর্মীরা যমুনা পূর্বপাড়ে একটি স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও  কোন কার্যকর পদক্ষেপ দেখতে পাইনা।

এ বিষয়ে গত ৯ জুলাই  ভাঙন কবলিত এলাকার পরিদর্শনকালে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম জানান, সারা দেশে নদনদী ভাঙন এলাকা পর্যায়ক্রমে স্থায়ী বাঁধের প্রকল্প গ্রহন করা হবে।  

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads