• বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭
ads
কাশিয়ানীতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ৭ হাজার পরিবার পানিবন্দি

ছবি: বাংলাদেশের খবর

প্রাকৃতিক দুর্যোগ

কাশিয়ানীতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ৭ হাজার পরিবার পানিবন্দি

  • গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০৭ আগস্ট ২০২০

গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানীতে দিন দিন বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। প্রায় সাত হাজার পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। সাড়ে ৩ শতাধিকের অধিক পরিবার উচ্চু ব্রিজ, কালভার্ট, রাস্তা ও আশ্রয় কেন্দ্রে বসবাস করছে।

জানা গেছে, বন্যার পানি বৃদ্ধি হওয়ার কারণে কাশিয়ানী উপজেলার নিম্মাঞ্চলের মানুষ পানিবন্দি হয়েছে পড়ছে। উপজেলার সিংগা, হাতিয়াড়া, পুইসুর, নিজামকান্দি, মাহমুদপুর, পারুলিয়া, মহেশপুর, সাজাইল ইউনিয়নের মানুষ বেশী ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। সরকারি হিসাবে এ পযর্ন্ত ৭ হাজার পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় বসবাস করছে। সাড়ে তিন শতাধিক পরিবারের মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রেসহ বিভিন্ন উঁচু রাস্তা ও সেতু ও কালভার্টের উপরে বসবাস করছে। তাদের গৃহপালিত পশু তাদের সাথেই রয়েছে।

বন্যা পরিস্থিস্তির অবনতিতে এসব অঞ্চলের নিম্ম আয়ের মানুষ পড়ছে চরম বিপাকে। পারুলিয়া ইউনিয়নে বেশ কয়েটি পরিবার তাদের গৃহপালিত হাসঁ মুরগী গরু ছাগল নিয়ে রাস্তার উচুঁ ব্রিজের উপরে আশ্রয় নিয়েছে।
উপজেলার পারুলিয়া,পুইসুর,হাতিয়াড়া, সিংগা,মাহমুদপুর ইউনিয়নসহ নিন্মাঞ্চলের অধিকাংশ পাকা রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে। বিপাকে পড়ছে পথযাত্রীরা। বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হলে নিন্মাঞ্চলের সঙ্গে উপজেলা ও জেলার যোগাযোগ বিছিন্ন হতে পারে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মিরান হোসেন জানান, ৭ হাজার পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় এবং সাড়ে তিন শতাধিক পরিবার আশ্রয়কেন্দ্রে ও রাস্তা ও ব্রিজের উপরে বসবাস করছে। সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

উপজেলা ভারপ্রপ্ত কৃষি কর্মকর্তা তিলোক কুমার ঘোষ জানান,আউশ ৮১২ হেক্টর, আমন ১২৪০ হেক্টর ও সবজি ৫০০ হেক্টর জমির ক্ষতি হয়েছে। এতে কৃষক ব্যপক ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রথিন্দ্রনাথ রায় জানান,আমি যোগদান করার সাথে সাথে বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছি। পর্যাপ্ত ত্রাণের ব্যাবস্থা আছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সরকারি ভাবে সহযোগীতা অব্যাহত থাকবে। কৃষকদের পূণ:বাসনের ব্যাবস্থা করা হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads