• মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬
ads
এই দিনে 

নেপোলিয়ন বোনাপার্ট

ইন্টারনেট

মতামত

এই দিনে 

  • প্রকাশিত ২৮ মে ২০১৮

১৭৫৭ : ব্রিটিশ কোম্পানি শাসনের অধীনে মীর জাফরকে বাংলার নবাব ঘোষণা করা হয়।

১৮০৪ : নেপোলিয়ন বোনাপার্ট নিজেকে ফ্রান্সের সম্রাট ঘোষণা করেন।

১৯১৮ : আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়।

১৯১৯ : ভার্সাই চুক্তির মাধ্যমে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সমাপ্ত হয়।

১৯৪০ : দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির কাছে বেলজিয়ামের আত্মসমর্পণ।

১৯৫২ : গ্রিসের নারীদের ভোটাধিকার অর্জন হয়।

১৯৯৮ : পাকিস্তান ৫টি পারমাণবিক বোমার পরীক্ষামূলক বিস্ফোরণ ঘটায়।

১৯৭৬ : বিখ্যাত চিত্রশিল্পী জয়নুল আবেদিনের মৃত্যু হয়।

 

পিএলও

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯৪৮ সালে আমেরিকা ও ব্রিটেনের প্রত্যক্ষ মদদে ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে ইসরাইল নামে রাষ্ট্রের জন্ম দেওয়া হয়। বিশ্বের একমাত্র এই ইহুদি রাষ্ট্রটি মধ্যপ্রাচ্য তথা মুসলিম বিশ্বের কাছে ফিলিস্তিনের বিষফোঁড়া হিসেবে পরিচিত। বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদি সংঘাত চলছে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে। ফিলিস্তিন পিএলওর ব্যানারে নিজ ভূখণ্ডের স্বাধীনতা আন্দোলন করছে; আর ইসরাইল ফিলিস্তিন ভূখণ্ড দখল করে তাদের বাস্তুচ্যুত করছে। ফিলিস্তিনিরা প্রতিবাদ করলে নির্বিচারে তাদের গুলি করে হত্যা করছে ইসরাইলি সেনাবাহিনী।

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন ‘প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন’-এর সংক্ষিপ্ত নাম পিএলও। ফিলিস্তিনিদের কাছে আরবি ভাষায় সংগঠনটি মুনাজ্জামাত‌ আল তাহ্‌রি ফিলিস্তিনিয়াহ বা ফিলিস্তিন স্বাধীনতা সংঘ নামে অভিহিত। ১৯৬৪ সালে আরব লিগের কায়রো অধিবেশনের পরপরই ফিলিস্তিনের অধিকারবঞ্চিত মানুষের জন্য কিছু করার তাগিদ থেকে পিএলও গড়ে ওঠে। পিএলও প্রতিষ্ঠার মূল উদ্দেশ্য ছিল ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব ফিরিয়ে আনা। রাজনৈতিক প্লাটফর্ম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হলেও এটি ফিলিস্তিনের সরকার হিসেবেই দায়িত্ব পালন করেছে। বিশ্বের শতাধিক দেশ এ সংগঠনকে ফিলিস্তিনি জনগণের বৈধ প্রতিনিধি হিসেবে পিএলওকে স্বীকৃতি দেয়। এমনকি ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে পর্যবেক্ষকের মর্যাদাও পায় এ সংগঠনটি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads