• বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮

মতামত

শতবর্ষ আগের আইন যুগোপযোগী করতে হবে

  • অ্যাডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক
  • প্রকাশিত ১৬ নভেম্বর ২০১৮

একটি আইনি কৌতুকের মধ্য দিয়েই লেখাটা শুরু করি। ৭৬ বছরের এক বুড়োকে আদালতে বিচারকের সামনে পাঁচশ বারের মতো হাজির করা হয় মদ খেয়ে মারামারি করার জন্য। প্রতিবারই বিচারক তাকে খালাস দিয়ে দেন। কিন্তু কিছুদিন পর আবারো তাকে আদালতে হাজির করা হয় এবং এই হাজিরার নম্বর ছিল ৫০১তম। আত্মপক্ষ সমর্থন করে তিনি বলেন, ৫০০তম হাজিরা উদযাপন করছিলেন তিনি। আবারো বিচারক তাকে ৫০ পেনি ফাইন করে বিদায় করে দিলেন। বলা বাহুল্য, শতবর্ষ আগে যে আইনটির জন্ম হয়েছিল তখনকার স্বার্থসিদ্ধির প্রেক্ষাপটে, শতবর্ষের বেশি হলেও এই আইনের তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি।

১৬ বছর বয়সী এক কিশোরকে পুলিশ ধরে নিয়ে এসেছে আদালতে। হাতে হ্যান্ডকাপ, মাজায় দড়ি দিয়ে শক্ত করে বাঁধা। মনে হচ্ছে বড় কোনো অপরাধী। কিন্তু তা নয়। কিশোরটি মাতাল অবস্থায় পথচারীদের বিরক্ত করছিল। বিরক্তি উৎপাদনের কারণে পুলিশ তাকে দণ্ডবিধির ৫১০ ধারা অনুযায়ী আদালতে সোপর্দ করেছে। আইনজীবী মহোদয় কিশোরটির পক্ষে দোষ স্বীকারের আবেদন জানালেন। বিচারক মাত্র ১০ টাকা জরিমানা করে কিশোরটিকে ছেড়ে দেওয়ার আদেশ দিলেন। কী অদ্ভুত দেশ! কী অদ্ভুত আইন! যে দেশের ভালো কোনো হোটেলে এক কাপ চায়ের দাম ১০ টাকা, আবার রাস্তাঘাটে মাতলামির শাস্তিও ১০ টাকা।

দণ্ডবিধির ৫১০ ধারা অনুযায়ী রাস্তাঘাটে মাতলামি করলে সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টা বিনাশ্রম কারাদণ্ড অথবা সর্বোচ্চ ১০ টাকা জরিমানা। তার মানে এক্ষেত্রে জরিমানার পরিমাণ পাঁচ টাকা অথবা আট টাকাও হতে পারে। ২৫ বছর বয়সী এক যুবক অপরাধজনকভাবে রহিম মিয়ার গৃহে প্রবেশ করলেন। রহিম মিয়া তাকে হাতেনাতে ধরে থানায় সোপর্দ করলেন। পুলিশ পরদিন দণ্ডবিধির ৪৪৭ ধারায় তাকে কোর্টে প্রেরণ করে। মাত্র ৫০০ টাকা জরিমানা দিয়ে ওই যুবক তাৎক্ষণিক বেরিয়ে এসে রহিম মিয়াকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। দণ্ডবিধির ৪৪৭ ধারায় বলা হয়েছে, অপরাধমূলক অনধিকার প্রবেশের জরিমানা হতে পারে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা। অসাধু ব্যবসায়ীরা প্রতিনিয়ত খাদ্যে ভেজাল মেশাচ্ছে। সেসব খেয়ে মানুষ প্রতিনিয়ত মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। অথচ ২৭২ ধারামতে, বিক্রির জন্য মজুত করা খাদ্য বা পানীয় দ্রব্য ভেজাল দিয়ে বিষাক্ত বা অনিষ্ট করার শাস্তি হচ্ছে এক হাজার টাকা জরিমানা। ধরুন, আপনার সঙ্গে কেউ গায়ে পড়ে বিবাদ সৃষ্টি করল, ঝগড়া করল, মারপিট করল। আপনি তার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করলেন। পুলিশ দণ্ডবিধির ১৬০ ধারায় অভিযোগ আমলে নিল। কিন্তু ১৬০ ধারায় বলা আছে, কলহ সৃষ্টি করে শান্তি ভঙ্গ করলে, মারপিঠ করলে সর্বোচ্চ ১০০ টাকা জরিমানা। ২৯০ ধারামতে, জনসাধারণকে উৎপাতের জন্য জরিমানা সর্বোচ্চ ২০০ টাকা।

অন্যদিকে সরকারি দাবি আদায় আইনের ২ নং তফসিলের ১৪ নং বিধিতে বলা হয়েছে, ৪০ টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পত্তি বিক্রি করতে প্রকাশ্য নিলামের প্রয়োজন। তখনকার ৪০ টাকা আর এখনকার ৪০ টাকার মধ্যে অনেক পার্থক্য। বর্তমান সময়ে ৪০ টাকা মূল্যের সম্পত্তির জন্য নিলাম ডাকা নিতান্তই হাস্যকর ব্যাপার। এই ৪০ টাকার পরিমাণ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। ১৮৯০ সালের রেলওয়ে আইনে একটি উটের ক্ষতিপূরণের মূল্য ধরা হয়েছে সর্বোচ্চ ২০০ টাকা, আর গাধা, ছাগল ও ভেড়ার জন্য সর্বোচ্চ ৩০ টাকা। বর্তমানে একটি উটের মূল্য হবে কমপক্ষে ৪০ হাজার টাকা। আর একটি ছাগলের মূল্য হবে চার হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত।

এখন দেখার বিষয় হলো, এত কম পরিমাণ অর্থ এখনো আইনে বলবৎ আছে কীভাবে। আসলে আইনগুলো প্রণীত হয়েছিল ব্রিটিশ সরকারের অধীনে; আজ থেকে কমপক্ষে ১০০ বছর আগে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন বিধানের সংশোধন হলেও উপরে উল্লেখিত আর্থিক বিষয়গুলো আগের মতোই থেকে যায়। শুধু মুদ্রার নামের পরিবর্তন করা হয়েছে। রুপির পরিবর্তে টাকা বসানো হয়েছে। তাই সময়ের সঙ্গে সঙ্গে টাকার মানের প্রতি লক্ষ রেখে যেখানে জরিমানার পরিমাণ নামমাত্র বৃদ্ধি করে শাস্তিমূলক পরিমাণ অর্থ অন্তর্ভুক্ত করা এবং যেখানে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ বা অন্য কোনো আর্থিক পরিমাণ বর্তমান টাকার মানের চেয়ে খুবই নগণ্য তা বৃদ্ধি করা অত্যন্ত প্রয়োজন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ফৌজদারি কার্যবিধির ৪৮০ ধারানুসারে কোনো আদালতের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ১৭৫, ১৭৮, ১৭৯, ১৮০ বা ২২৮ ধারায় বর্ণিত কোনো অপরাধ করা হলে উক্ত আদালত মনে করলে অপরাধটি আমলে নিতে পারেন এবং অপরাধীকে কিছু টাকা জরিমানা করতে এবং অনাদায়ে কিছুদিন পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করতে পারেন। দণ্ডবিধির ১৭৫ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি আইনত বাধ্য হওয়া সত্ত্বেও ইচ্ছাকৃতভাবে কোনো সরকারি কর্মচারীর কাছে কোনো দলিল পেশ না করলে, তিনি এই ধারায় অভিযুক্ত হবেন। অপরাধীকে ৫০০ টাকা জরিমানা করতে এবং অনাদায়ে এক মাস পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করতে পারেন।

দণ্ডবিধির ১৭৮ ধারায় বলা হয়েছে, সরকারি কর্মচারী কর্তৃক প্রয়োজনীয় শপথ গ্রহণ করতে অস্বীকার করলে তিনি এই ধারায় অভিযুক্ত হবেন। অপরাধীকে ১০০০ টাকা জরিমানা করতে এবং অনাদায়ে ৬ মাস পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করতে পারেন। দণ্ডবিধির ১৭৯ ধারায় বলা হয়েছে, আইনত সত্য বলতে বাধ্য হওয়া সত্ত্বেও প্রশ্নের জবাব দিতে অস্বীকার করলে তিনি এই ধারায় অভিযুক্ত হবেন। অপরাধীকে ১০০০ টাকা জরিমানা করতে এবং অনাদায়ে ৬ মাস পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করতে পারেন।

দণ্ডবিধির ১৮০ ধারায় বলা হয়েছে, আইনত বাধ্য হওয়া সত্ত্বেও সরকারি কর্মচারীর কাছে প্রদত্ত বিবৃতি স্বাক্ষর করতে অস্বীকার করলে তিনি এই ধারায় অভিযুক্ত হবেন। অপরাধীকে ৫০০ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে ৩ মাস পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করতে পারেন। দণ্ডবিধির ২২৮ ধারায় বলা হয়েছে, বিচারবিষয়ক কার্যক্রমের কোনো পর্যায়ে বিচারকের আসন গ্রহণকারী কোনো সরকারি কর্মচারীকে ইচ্ছাকৃতভাবে অপমান করা বা তার কার্যে বাধা দেওয়া হলে তিনি এই ধারায় অভিযুক্ত হবেন। অপরাধীকে ১০০০ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে ৬ মাস পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করতে পারেন।

৪৮৫ ধারামতে, ফৌজদারি আদালত কর্তৃক আদিষ্ট দলিল বা জিনিস ফৌজদারি আদালতে আনতে কোনো সাক্ষী বা ব্যক্তি অস্বীকৃতি জানালে এ ধারায় সাক্ষীর শাস্তির বিধান রয়েছে। শাস্তির মধ্যে রয়েছে সাত দিনের অনধিক যে কোনো মেয়াদের জন্য বিনাশ্রম কারাদণ্ড অথবা ক্ষেত্রবিশেষে সাত দিনের অনধিক যে কোনো মেয়াদের জন্য আদালতের কোনো অফিসারের হেফাজতে আটক রাখা। ৪৮৫-এ ধারায় বর্ণিত মতে, কোনো সাক্ষীকে ফৌজদারি আদালতে হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করা হলে ওই ব্যক্তি কোনো কারণ ছাড়া হাজির হতে অবহেলা বা অস্বীকার অথবা আদালত থেকে নির্ধারিত সময়ের আগে যদি বেআইনিভাবে চলে যায়, সে ক্ষেত্রে আদালত বিবেচনামত ন্যায়বিচারের

স্বার্থে সংক্ষিপ্ত বিচারের মাধ্যমে তাকে কারণ দর্শানোর সুযোগ দিয়ে অনধিক ২৫০ টাকা জরিমানা করতে পারেন।

উপরে বর্ণিত ধারাগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, বর্তমানে আমাদের দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে বর্ণিত অপরাধের জন্য সাজার পরিমাণ খুবই কম। এ ধরনের সাজা অপরাধ সংঘটনে অপরাধীকে নিরুৎসাহিত করে না। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ও ন্যায়বিচার নিশ্চিতকরণের স্বার্থে আইন আদালতের আদেশ পালন করা প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য অবশ্যকরণীয়। এ অবস্থায় উল্লেখিত ধারায় বর্ণিত অপরাধের ক্ষেত্রে বিদ্যমান সাজার পরিমাণ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

উল্লেখ্য, ৪৮৫এ(২) ধারায় উক্ত অপরাধ বিচারের ক্ষেত্রে আদালতকে সংক্ষিপ্ত বিচারের পদ্ধতি অনুসরণ করার কথা বলা আছে। তবে এক্ষেত্রে বিচার দ্রুত করার লক্ষ্যে ২৬৩ ধারার বিধান অনুসরণ করে সংক্ষিপ্ত পদ্ধতিতে বিচার হওয়া বাঞ্ছনীয়।

শতাধিক বছর আগে বিচারব্যবস্থার ত্রুটি ধরা পড়েছিল রবীন্দ্রনাথের কাছে। তিনি ‘উলুখড়ের বিপদ’ নামে একটি ছোটগল্প লিখে সেটা জানিয়েছিলেন। গল্পটির সংক্ষেপিত উদ্ধৃতি হচ্ছে এরকম- ‘জমিদারের নায়েব গিরিশের বাড়িতে প্যারি নামে নতুন দাসী নিযুক্ত হইয়াছিল। তাহার বয়স অল্প; চরিত্র ভালো। একদিন সে বৃদ্ধ নায়েবের অনুরাগ দৃষ্টি হইতে আত্মরক্ষার জন্য গ্রামে হরিহর ভট্টাচার্য মহাশয়ের নিকট আশ্রয় লইল। দুই-চারদিনের মধ্যেই ভট্টাচার্যের বাড়িতে পুলিশের সমাগম হইল। ঝি প্যারি চোর সাব্যস্ত হইয়া জেলে গেল। হরিহরের গৃহপ্রাঙ্গণের সংলগ্ন পৈতৃক জমি নায়েবের জমিদারের পরগণার অন্তর্গত বলিয়া নালিশ রুজু হইল। প্রাণাধিক পৈতৃক ভিটার মায়ায় বৃদ্ধ আদালতের সাক্ষ্যমঞ্চে গিয়া দাঁড়াইলেন। মুন্সেফ নবগোপাল বাবু তাঁহার সাক্ষ্যই প্রামাণ্য করিয়া মোকদ্দমা ডিসমিস করিয়া দিলেন। নায়েব আপিল রুজু করিল। একদিন জমিদার কাছারিতে ঢাকঢোল বাজিয়া উঠিল। ব্যাপারখানা কী! ভট্টাচার্য খবর পাইলেন, আপিলে তাঁহার হার হইয়াছে।

ভট্টাচার্য মাথা চাপড়াইয়া বসন্ত উকিলকে জিজ্ঞাসা করিলেন, আমার কী দশা হইবে? বসন্তবাবু বলিলেন, সম্প্রতি যিনি নতুন অ্যাডিশনাল জজ হইয়া আসিয়াছেন, তিনি মুন্সেফ থাকাকালে মুন্সেফ নবগোপাল বাবুর সহিত তাঁহার ভারি খিটিমিটি বাধিয়াছিল। তখন কিছু করিয়া উঠিতে পারেন নাই; আজ জজের আসনে বসিয়া নবগোপাল বাবুর রায় পাইবামাত্র উল্টাইয়া দিতেছেন; আপনি হারিলেন সেই জন্য। হরিহর কহিলেন, হাইকোর্টে ইহার কোনো আপিল নাই? বসন্ত কহিলেন, জজ বাবু আপনাদের

সাক্ষীকে সন্দেহ করিয়া বিরুদ্ধ পক্ষের সাক্ষীকেই বিশ্বাস করিয়াছেন। হাইকোর্টে তো সাক্ষীর বিচার হইবে না।’

প্রিয় পাঠক-পাঠিকা, দেখা যাচ্ছে বিচারব্যবস্থাই ত্রুটিযুক্ত এবং সে কারণেই দুর্নীতির ভূত খুঁটা গাড়ছে। আমাদের চাই গণমুখী বিচারব্যবস্থা। সেটা এমন হবে যেন কেউ মিথ্যা কিংবা হয়রানিমূলক মোকদ্দমা করতে সাহস না পায় এবং বিচারকাজটি একক ব্যক্তির হাতে না রেখে জুরি পদ্ধতি গ্রহণ করলে সামাজিক দায়বদ্ধতা দৃঢ় হবে। দুটি বাক্যে যা বললাম, তার বিস্তৃত পরিকল্পনা দেওয়ার জন্য একটি কিংবা একাধিক প্রবন্ধ যথেষ্ট নয়। একটি বই লেখা জরুরি।

 

লেখক : আইনজীবী, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads