• মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫
ads
সিভিল সার্ভিস কর্মকর্তাদের জনকল্যাণের আহ্বান স্পিকারের  

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী

সংরক্ষিত ছবি

সংসদ

সিভিল সার্ভিস কর্মকর্তাদের জনকল্যাণের আহ্বান স্পিকারের  

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৮ জুলাই ২০১৮

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে জনগণের কল্যাণে আত্মনিয়োগে সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। তিনি বলেছেন, সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তারা দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের মেধা ও যোগ্যতার প্রমাণ দিয়ে চাকরিতে এসেছেন।  সিভিল সার্ভিস রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে জনগণের সেতুবন্ধন তৈরি করে।  দায়িত্ব পালনের বিষয়টি সবাইকে মনে রাখতে হবে। 

রাজধানীর বিসিএস এডমিন একাডেমিতে আজ রবিবার সকালে আইন ও প্রশাসন কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

বিসিএস এডমিন একাডেমির রেক্টর মো. মোশারফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক, এমপি ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহমেদ।  

অনুষ্ঠানে স্পিকার বলেন, প্রশিক্ষণ জ্ঞানের পরিধি বাড়ায়। আর তথ্য সঠিক ও দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করে। আইন ও প্রশাসন কোর্সের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সিভিল সার্ভিসে কর্মরত কর্মকর্তারা জাতি গঠন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। তিনি সংবিধান সমুন্নত রেখে বৈষম্য ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

ড. শিরীন শারমিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে পদার্পন করেছে। ২০২৪ সালে সম্পূর্ণভাবে উন্নয়নশীল এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে। তিনি প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধন শেষে বিসিএস এডমিন একাডেমির লাইব্রেরির মুক্তিযুদ্ধ কর্নার পরিদর্শন করেন। এবারের প্রশিক্ষণ কোর্সে প্রশাসন ক্যাডারের ১১৩ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। 

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ : অন্যদিকে এক অনুষ্ঠানে ড. শিরীন বলেছেন, মিয়ানমারকে সুনির্দিষ্ট ফ্রেমওয়ার্ক অনুসরণের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, শান্তিপূর্ণ ও টেকসই প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে হবে। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া দ্রুততর সময়ে বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে তিনি আন্তর্জাতিক সমপ্রদায়কে আরো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মানবাধিকার বিষয়ক গবেষক ড. মং জারনির নেতৃত্বে আট সদস্যের এক প্রতিনিধিদলের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে এসব কথা বলেন।  সংসদ ভবনে স্পিকারের কার্যালয়ে এসে তারা দেখা করেন।  

 

 

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads