• সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
রহমতের দশক শেষ হচ্ছে আজ

ছবি : সংগৃহীত

ধর্ম

রহমতের দশক শেষ হচ্ছে আজ

  • সৈয়দ ফয়জুল আল আমীন
  • প্রকাশিত ১৬ মে ২০১৯

পবিত্র রমজানুল মোবারককে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম দশ দিন রহমতের, দ্বিতীয় দশক মাগফিরাতের আর তৃতীয় দশক নাজাতের। আজ রমজানের দশম দিন, রহমতের শেষ দিন। এ বছরের মতো ফুরিয়ে গেল রহমতের দশক। রমজানের বিশেষ ইবাদতে মুমিন বান্দা আল্লাহর রহমতে সিক্ত হয়ে মাগফিরাত অর্জন করে, জাহান্নাম থেকে মুক্তির সনদ লাভ করে।

হজরত উম্মে সালমা (রা.) বর্ণনা করেন, নবী করিম (সা.) প্রথম বছর রমজানের প্রথম দশকে ইতেকাফ করেন, অতঃপর মধ্যম দশকে, এরপর শেষ দশকেও ইতেকাফ করেন। তিনি (সা.) প্রথম দশকেও নফল ইতেকাফ করেছেন একান্তই আল্লাহর রহমত পাওয়ার আশায়। মনে রাখা চাই, মুমিন বান্দা যদি ইবাদতমুখী জীবন গঠন করতে পারে তাহলেই রহমত লাভে ধন্য হতে পারে। এক্ষেত্রে বলা যায়, আমাদের প্রিয় নবী মোহাম্মদ (সা.) চাইতেন, কোনো মুমিন যেন রমজানের আমল থেকে বঞ্চিত না হন। নিজেকে অবশ্যই যেন ক্ষমা করিয়ে নিতে পারে। তাছাড়া এ সুযোগ থেকে যে বান্দা বঞ্চিত হবে তাকে তিরস্কারও করা হয়েছে।

হজরত কাব ইবন উজরা (রা.) বর্ণনা করেন, একবার নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, তোমরা মিম্বারের নিকটবর্তী হও। আমরা হাজির হলাম। অতঃপর রসুলুল্লাহ (সা.) মিম্বারের প্রথম সিঁড়িতে পা মোবারক রাখলেন এবং বললেন, ‘আমিন।’ এরপর দ্বিতীয় এবং তৃতীয় সিঁড়িতে পা রাখার সময়ও ‘আমিন’ বললেন। খুতবা শেষে মিম্বার থেকে নেমে এলে আমরা জানতে চাইলাম, হে আল্লাহর রসুল! আজ মিম্বারে ওঠার সময় যা শুনলাম, আগে কখনো তা শুনিনি। নবীজি (সা.) বললেন, জিবরাইল (আ.) এসেছিলেন। আমি যখন প্রথম সিঁড়িতে পা রাখি তখন জিবরাইল (আ.) বললেন, ধ্বংস হোক ওই ব্যক্তি, যে রমজান পেল অথচ তার মাগফিরাত হলো না। আমি বললাম, ‘আমিন।’ দ্বিতীয় সিঁড়িতে পা রাখার সময় জিবরাইল (আ.) বললেন, ধ্বংস হোক ওই ব্যক্তি, যার সামনে আপনার নাম নেওয়া সত্ত্বেও সে আপনার প্রতি দরুদ শরিফ পাঠ করল না। আমি বললাম, ‘আমিন।’ এরপর তৃতীয় সিঁড়িতে পা রাখতেই জিবরাইল (আ.) বললেন, ধ্বংস হোক ওই ব্যক্তি, যার সামনে তার পিতা-মাতা বা তাদের কেউ বার্ধক্যে পৌঁছেছে অথচ তারা তাকে জান্নাতে পৌঁছাতে পারল না (খিদমত করে জান্নাত হাসিল করতে পারল না)। এর জবাবে আমি বললাম, ‘আমিন।’

চোখের পলকেই যেন শেষ হয়ে গেল রহমতের দিনগুলো। রমজানের পবিত্র সময়ে নিজেকে পবিত্র করার সুযোগ থেকে আমরা কেউই বঞ্চিত হতে চাই না। কিন্তু এক্ষেত্রে প্রশ্ন হলো, রমজানের প্রথম দশ দিনে আমরা নিজেকে কতটা রহমতস্নাত করতে পেরেছি? কিছুটা দুর্বলতা বা ঘাটতি হয়তো ছিল! তবে পরের দশকের মাগফিরাত আর নাজাতের সময়গুলো অতি গুরুত্ব দিয়ে নিজেকে ইবাদত এবং আমলে ডুবিয়ে রাখতে হবে। হে মহান মাবুদ, আমাদের রহমতের বারিধারায় সিক্ত করুন। আমিন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads