• শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

পাঠানো মেসেজ ডিলিট করার সুযোগ চালু করছে ফেসবুক

হয়রানি বাড়ার আশঙ্কা প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ০৯ এপ্রিল ২০১৮

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শিগগিরই যুক্ত হতে পারে পাঠানো মেসেজ মুছে ফেলার সুবিধা। বর্তমানে কোনো কনভারসেশন থেকে মেসেজ মুছে ফেলা গেলেও অপর প্রান্তের ব্যবহারকারীর কাছে মেসেজটি থেকে যায়। তবে নতুন ফিচারটি চালু হলে দুই প্রান্ত থেকেই মেসেজ মুছে যাবে। দু’জনের কনভারসেশন কিংবা গ্রুপ চ্যাট, উভয় ক্ষেত্রেই এ ফিচারটি কাজ করবে।

মার্ক জাকারবার্গকে পাঠানো ব্যক্তিগত মেসেজ ইনবক্স থেকে উধাও হয়ে গেছে, সম্প্রতি এমন এক অভিযোগ উঠেছিল ফেসবুকের বিরুদ্ধে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, শুধু জাকারবার্গই নন, সকল ফেসবুক ব্যবহারকারীর জন্যই ফিচারটি চালু করা হচ্ছে।

মেসেজ মুছে ফেলার বিষয়ে জাকারবার্গ এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি না হলেও একজন কর্মকর্তা জানান, ২০১৪ সালে সনি পিকচার্স হ্যাকিং ঘটনার পর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের অনলাইন আলাপচারিতা আরো নিরাপদ করার লক্ষ্যে কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়। এর পাশাপাশি জাকারবার্গসহ আরো কয়েক শীর্ষ কর্মকর্তার পাঠানো মেসেজ একটি নির্দিষ্ট সময় পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে ফেলার উদ্যোগও সে সময় নেওয়া হয়েছিল বলে জানান এই কর্মকর্তা।

তবে এ ফিচারটি নিয়ে শঙ্কার কথা জানিয়েছেন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, ফিচারটি চালু করা হলে ফেসবুকে হয়রানির পরিমাণ বাড়তে পারে। এনক্রিপ্টেড মেসেজিং অ্যাপ পীরিওর প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা ফ্লোরেন্সিয়া হেরা ভেগার মতে, ফিচারটি বেশ ক্ষতিকর এবং এটি প্রতারণা উসকে দেবে। বিজনেস ইনসাইডারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ধরুন কেউ আপনাকে অনলাইনে হয়রানি করছে কিংবা বাজে কথা বলছে। পরবর্তী সময়ে তারা চাইলেই কিন্তু হয়রানির উদ্দেশ্যে পাঠানো মেসেজগুলো মুছে ফেলতে পারবে এবং এরপর দাবি করবে তারা এমন কিছুই করেনি। বিষয়টি বেশ ভয়াবহ।’

ইন্টারনেট নীতিমালা এবং ডিজিটাল অধিকার নিয়ে কাজ করেন, এমন একজন আইনজীবী সিন্থিয়া খু। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ‘শুধু যে হয়রানিমূলক মেসেজই মুছে ফেলা হবে তা নয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাবে কোনো কনভারসেশন থেকে বেছে বেছে কিছু মেসেজ মুছে ফেলা হয়েছে। এর ফলে আলোচনার মূল বিষয়বস্তুই পাল্টে যেতে পারে।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads