• রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৪
ads
সরকারি কাজ মোবাইলকেন্দ্রিক করা হচ্ছে : মোস্তাফা জব্বার

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

ছবি : ইন্টারনেট

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

সরকারি কাজ মোবাইলকেন্দ্রিক করা হচ্ছে : মোস্তাফা জব্বার

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১১ জানুয়ারি ২০১৯

বিভিন্ন সরকারি কার্যক্রম ও সুবিধাদি স্মার্টফোনের মাধ্যমে ডিজিটালি দেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। গতকাল বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিন দিনব্যাপী স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপোর উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যেই সরকারি কাজগুলোকে মোবাইলনির্ভর করা হচ্ছে যেন স্মার্টফোনের মাধ্যমে এসব কাজ আরো সহজভাবে করা যায়। যার ছোট্ট একটি উদাহরণ যদি বলা হয়, তাহলে আমরা আমাদের ডাক বিভাগের প্রয়াস ই-পোস্টের কথা বলতে পারি। আর একটা বিষয়, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে যেহেতু পেপারলেস গভর্নমেন্ট দরকার, আমরা সেই দিকেই এগিয়ে যাচ্ছি।

চলতি বছরকে উল্লেখযোগ্য বছর হিসেবে আখ্যায়িত করে মন্ত্রী বলেন, ২০১৯ সাল বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের পণ্য উৎপাদন ও রফতানিতে মাইলফলক হিসেবে গণ্য হবে। এর একটি কারণ হচ্ছে আগামী দুই মাসের মধ্যে বাংলাদেশে মাদারবোর্ড উৎপাদন করা হবে। আর এই মাদারবোর্ড উৎপাদনে যেসব কাঁচামাল প্রয়োজন তার দুর্লভতা কমিয়ে আনতে যা যা দরকার তা করেছি।

তিনি আরো বলেন, প্রত্যেকটি স্মার্টফোনের একটি আইএমইআই নম্বর থঠমশ, যা ফোনটির নিজস্ব পরিচয়। আর আমাদের দেশে এই নম্বরের কোনো ডাটাবেজ না থাকায় গ্রে মার্কেটে বা চোরাই পথে আসা স্মার্টফোন বিক্রি হিচ্ছে। যার কারণে দেশের ক্রেতাদের প্রতারণার শিকার হওয়ার পাশাপাশি সরকারও প্রচুর রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। চলতি মাসের মধ্যেই এ ডাটাবেজ তৈরি শুরু হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বর্তমানে দেশে প্রায় ৭৭ শতাংশ স্মার্টফোন আমদানি হচ্ছে। আমরা এখন এতটাই স্মার্টফোননির্ভর হয়ে পড়েছি যে, বর্তমানে ঘুম ভাঙতে অ্যালার্ম কিংবা ই-মেইল চেক করতে এই দেশের মানুষ ঘড়ি কিংবা কম্পিউটারের ব্যবহার কমিয়ে স্মার্টফোন ব্যবহার করছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরিকল্পনা অনুযায়ী আমরা কাজ করে যাচ্ছি। যার মধ্যে আমরা এখন অনেক কম খরচে ইন্টারনেট ব্যবহার করছি। খুব শিগগিরই তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে যাচ্ছি। মহাকাশে একটি স্যাটেলাইট উড়িয়ে আবার দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের দিকে এগোচ্ছি। তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য উৎপাদনে এবং পণ্য আমদানিতে শুল্ক কমানো হয়েছে। নিজেদের দেশেই এখন আমরা মোবাইল, ফ্রিজ উৎপাদন করছি যেখানে আমাদের দেশের তরুণদেরই কর্মসংস্থান হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হুয়াওয়ে কনজ্যুমার বিজনেস গ্রুপ বাংলাদেশের মার্কেটিং ডিরেক্টর ঈগল সং, স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশের জেনারেল ম্যানেজার বমিনকিম, ট্রানশান বাংলাদেশের সিইও রেজওয়ানুল হক, ভিভো বাংলাদেশের কান্ট্রি প্রজেক্ট ম্যানেজার মিস্টার অ্যাঙ্গাস, এক্সপো মেকারের কৌশলগত পরিকল্পনাকারী মুহম্মদ খান প্রমুখ।

দেশের ব্যবহারকারীদের আধুনিক স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট পরখ করে দেখার ও কেনার সুযোগ করে দিতে গতকাল সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়েছে স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপো। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিন দিনব্যাপী এই মেলা চলবে শনিবার পর্যন্ত।

এবারের মেলায় অংশ নিয়েছে হুয়াওয়ে, স্যামসাং, টেকনো, ভিভো, উই, গোল্ডেনফিল্ড, মটোরোলা, নকিয়া, আইফোন, ইউসিসি, আইটেল, ইনফিনিক্স, ইউমিডিজি, ডিটেল, এডিএ, ম্যাক্সিমাস এবং ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান প্রিয়শপ ডটকমসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও প্রতিষ্ঠান। ব্র্যান্ডগুলো মেলায় বিভিন্ন মডেলের স্মার্টফোন ও স্মার্ট ডিভাইস প্রদর্শন ও বিক্রি করছে। পাওয়া যাচ্ছে মোবাইল অ্যাকসেসরিজও। এ ছাড়া মেলায় বেশ কিছু মডেলের স্মার্টফোন উন্মোচনও করা হবে।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads