• সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৫
ads
সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে দরকার সঠিক পরিকল্পনা ও হালনাগাদ পরিসংখ্যান

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে দরকার সঠিক পরিকল্পনা ও হালনাগাদ পরিসংখ্যান

ছবি : বাংলাদেশের খবর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

এটুআই’র এসডিজি ট্র্যাকার নিয়ে কর্মশালা

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে দরকার সঠিক পরিকল্পনা ও হালনাগাদ পরিসংখ্যান

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৯ জানুয়ারি ২০১৯

এসডিজি অর্জনে সরকারের অবস্থান ও অগ্রগতি পরিমাপ এবং উন্নয়ন নীতি বাস্তবায়নে তথ্য-উপাত্তের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে সরকারের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) কর্তৃক নির্মিত এসডিজি ট্র্যাকার বিষয়ক পরামর্শ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্প্রতি এটুআই এবং বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) যৌথ উদ্যোগে বিবিএস ভবনের অডিটোরিয়ামে এই পরামর্শ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্ত্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মোঃ আবুল কালাম আজাদ। কর্মশালায় অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন ইউএনডিপি বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জী। এটুআই’র প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো: মোস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় কর্মশালার মূল বিষয়বস্তু উপস্থাপনা করেন এটুআই’র হেড অব রেজাল্টস ম্যানেজমেন্ট ড. রমিজ উদ্দিন এবং বিবিএস’র উপপরিচালক মো. আলমগীর হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোঃ আবুল কালাম আজাদ বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-২০৩০ এর লক্ষ্য অর্জনে অন্যতম নিয়ামক হচ্ছে তথ্য-উপাত্ত নির্ভর সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং প্রাধিকারভিত্তিক সম্পদের বরাদ্দ। একটি কার্যকর, তথ্যনির্ভর, বহুল ব্যবহূত, সমন্বিত এসডিজি পরিবীক্ষণ কাঠামো টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে মূল ভূমিকা পালন করতে পারে। এসডিজি অর্জনে সরকারের অবস্থান ও অগ্রগতি পরিমাপ এবং উন্নয়ন নীতি বাস্তবায়নে তথ্য-উপাত্তের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে এটুআই কর্তৃক নির্মিত হয় এসডিজি ট্র্যাকার। এসডিজি ট্র্যাকারকে আরো কার্যকরী, আরো ভিজুয়ালাইজড স্কিম, সকলের ব্যবহার বান্ধব ও চাহিদা মোতাবেক করার পরামর্শ প্রদান করেন। ডাটা হালনাগাদ ও ডাটার গুণগত মান বজায় রাখতে হবে। আর সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনায় তথ্যভিত্তিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে সঠিক ও হালনাগাদ পরিসংখ্যানের বিকল্প নেই বলে উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, আমরা আমাদের ভিশন ডকুমেন্টগুলো এমনভাবে তৈরি করছি যাতে এসডিজি অর্জন সহজ হয়। সকলকে একত্রে কাজ করার অনুরোধ করছি।

ইউএনডিপি বাংলাদেশ এর আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জী বলেন যে, ২০১৬ থেকে জাতিসংঘের উন্নয়ন সংস্থা হিসেবে ইউএনডিপি বাংলাদেশসহ আরো ১৭০টি দেশে এসডিজি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশে এসডিজি সম্পর্কিত সকল কার্যক্রম সমন্বয় করছে এবং পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ নির্মাণ এর মাধ্যমে এসডিজি ট্র্যাকার বাস্তবায়নে প্রযুক্তিগত সহায়তা নিশ্চিত করছে। ইউএনডিপি এসডিজি ট্র্যাকার বাস্তবায়নে এটুআইকে প্রযুক্তিগত সহায়তা করছে এবং এটুআই অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের সাথে ট্র্যাকার উন্নয়নে সমর্থন দেয় এটুআই।

তিনি বলেন, এসডিজি ট্র্যাকারকে একটি অগ্রগতি ট্র্যাকিং এবং রিপোর্টিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করানোর জন্যে এসডিজি থিমেটিক এরিয়া বিশ্লেষণ করা দরকার, যাতে জাতীয় উন্নয়নের তথ্য পেতে সাহায্য করে। এর সাথে এসডিজি বাস্তবায়নে বেসরকারি খাতে যোগদান করা উচিত। বাংলাদেশ ইউএনডিপি বাংলাদেশে এসডিজি বাস্তবায়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা এটুআই’র সাথে ছিলাম, আছি এবং থাকব।

তথ্য ও পরিসংখ্যান বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্ত্তী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে এসডিজি ট্র্যাকার একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচনা করা যায়। বিবিএস এবং তথ্য ও পরিসংখ্যান বিভাগ এসডিজি ট্র্যাকারের মাধ্যমে উন্নয়ন পর্যবেক্ষণে এটুআই-এর সাথে কাজ করে যাবে। সকল মন্ত্রণালয়ের সহায়তা এই ক্ষেত্রে একান্ত কাম্য।

এটুআইর প্রকল্প পরিচালক মো: মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ট্র্যাকারটি আমাদের জন্য সম্পূর্ণ নতুন। আমরা বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের কাছ থেকে এর বিভিন্ন বিষয়ে মতামত নিচ্ছি। ইতোমধ্যে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক-শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কর্মশালা চলমান রয়েছে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট সেক্টর, এনজিও, আইএনজিওদের নিয়ে একই ধরনের কর্মশালার মাধ্যমে এসডিজি ট্র্যাকারে তাদের প্রয়োজনীয়তা বা চাহিদা নিরূপণ করা হচ্ছে। সে অনুযায়ী ট্র্যাকার সিস্টেমটিকে সাজানো হবে বলে মত প্রকাশ করেন।

তিনি আরও বলেন যে, বিভিন্ন দেশ তাদের দেশের প্রয়োজন অনুযায়ী এসডিজি ট্র্যাকারটি ব্যবহার করার জন্য এটুআই-এর সাথে যোগাযোগ করছে এবং আমরা সহায়তা করছি। তিনি সবাইকে সাথে নিয়ে একত্রে এগিয়ে যাওয়ার ব্যপারে সবাইকে সর্বাত্মক সহায়তা করার জন্য অনুরোধ জানান।

প্রসঙ্গত, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, ইউএসএইড এবং ইউএনডিপি বাংলাদেশ এর সহায়তায় টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জন তথ্য-উপাত্ত পরিসংখ্যানিকভাবে দৃশ্যমান করতে এবং সে অনুযায়ী সীমিত সম্পদের দক্ষ বণ্টন করার লক্ষ্যে এটুআই প্রস্তুত করেছে এসডিজি ট্র্যাকার। এই এসডিজি ট্র্যাকারটি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এবং সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ যৌথভাবে সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়কে সাথে নিয়ে বাস্তবায়ন করছে। এসডিজি পরিবীক্ষণে ডাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য-উপাত্ত হালনাগাদ ও উপস্থাপনে পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের নেতৃত্বে বিবিএস কাজ করছে। সরকার জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থাকে সমন্বিতভাবে কাজ করার জন্য ইতোমধ্যে একটি জাতীয় উপাত্ত সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। একই সাথে এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ও এর কার্যক্রম পরিবীক্ষণের জন্য এসডিজি ট্র্যাকার একটি কার্যকর মাধ্যম হিসেবে বাংলাদেশ ছাড়াও বহির্বিশ্বেও সমাদৃত হচ্ছে। কর্মশালাটিতে আরও বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উপসচিব মনিরুল ইসলাম এবং পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপসচিব ড. দিপংকর রায়। কর্মশালায় জাতীয় উপাত্ত সমন্বয় কমিটির সদস্যবৃন্দ, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের এসডিজি ডাটা ফোকাল পয়েন্টবৃন্দ, বিবিএস সদর দপ্তর ও মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং এটুআই’র উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাগণসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads