• মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
‘বিশ্বাস ছিল তিনি ফিরবেন’

ছবি : সংগৃহীত

শোবিজ

‘বিশ্বাস ছিল তিনি ফিরবেন’

  • অভি মঈনুদ্দীন
  • প্রকাশিত ২৩ মে ২০১৯

কিছুদিন আগের কথা, এটিএম শামসুজ্জামানের সঙ্গে এসএ হক অলিক পরিচালিত ‘জায়গীর মাস্টার’ ধারাবাহিক নাটকের শুটিং করছিলেন এ সময়ের অন্যতম অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে একুশে পদকপ্রাপ্ত গুণী এই অভিনেতার সঙ্গে নানান ধরনের গল্পে মেতে উঠতেন অপূর্ব। অপূর্ব এটিএম শামসুজ্জামানের বলা সেসব গল্প বেশ মনোযোগ দিয়েই শুনতেন। বলা যায়, নীরব থেকেই অপূর্ব সেসব গল্প শুনতেন। কারণ অপূর্ব মনে করতেন, এমন একজন কিংবদন্তি অভিনেতার সঙ্গে কাটানো সময়টা যেমন মহামূল্যবান, ঠিক তেমনি তার মুখে বলা গল্পগুলোও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আগামী দিনের চলার পথে তার অনেক কাজে লাগতে পারে। সেই ভাবনা থেকে গল্প বেশ আগ্রহ নিয়েই শুনতেন।

এরই মধ্যে গেল এপ্রিলে এটিএম শামসুজ্জামান ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েন। অনেকের মতো স্বাভাবিকভাবেই অপূর্বরও মন খারাপ হয়ে যায়। কারণ এটিএম শামসুজ্জামান শুধুই অপূর্ব’র একজন সহশিল্পীই নন, তার একজন অভিভাবক হিসেবেও মনে করেন অপূর্ব। যে কারণে অপূর্ব যতটুকু পেরেছেন নিজের ব্যস্ততার ফাঁকে ফাঁকে এটিএম শামসুজ্জামানের খোঁজখবর নিয়েছেন।

সামনে যেহেতু ঈদ, তাই ঈদের ব্যস্ততার জন্য হাসপাতালে যাওয়ার সময় না পেলেও তিনি মন থেকে দোয়া করেছেন। অপূর্বরও বিশ্বাস ছিল আমাদের সবার মাঝে এটিএম শামসুজ্জামান সুস্থ হয়ে নিশ্চয়ই ফিরবেন। সবার মনের দোয়া আল্লাহ কবুল করেছেন। তাই এখন এটিএম শামসুজ্জামান বেশ সুস্থ আছেন। লাইফ সাপোর্ট খুলে দেওয়ার পর এটিএম শামসুজ্জামান বর্তমানে রাজধানীর পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালের কেবিনে আছেন। খবরটি শোনার পর অপূর্বর মধ্যেও এক অন্যরকম প্রশান্তি বয়ে যায়।

অপূর্ব বলেন, ‘এটিএম আঙ্কেল আমার অনেক প্রিয় একজন অভিনেতা। তবে এর বাইরে তিনি আমার একজন অভিভাবকও বটে। আমাকে তিনি ভীষণ স্নেহ করেন, এটা আমার পরম সৌভাগ্য। তিনি আমাদের সত্যিকারের একজন কিংবদন্তি শিল্পী। তার সঙ্গে যতটুকু সময় আমি কাটাই, মনে হয় জীবনের অন্যতম সেরা সময় কাটাচ্ছি। জায়গীর মাস্টার নাটকে আমরা অনেক মজা করে শুটিং করেছি। শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে তার কাছে শোনা নানান ধরনের গল্প আমাকে অভিনয়ে সমৃদ্ধ করেছে। এত বড়মাপের একজন অভিনেতা হয়েও তিনি যে কত সাধারণ একজন মানুষ তা ভাবাই যায় না। হাসপাতালে তিনি যখন মুমূর্ষু অবস্থায়, তখন মহান আল্লাহর কাছে অনেক দোয়া করেছি। আমার বিশ্বাস ছিল তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন এবং আল্লাহ তা-ই করেছেন। এটিএম আঙ্কেল এখন অনেকটাই সুস্থ এবং আমার বিশ্বাস আমরা আবার একসঙ্গে কাজ করব। সেদিনের অপেক্ষায় আছি। পরিশেষে একটি কথাই বলব, আঙ্কেল আপনাকে আমরা অনেক অনেক ভালোবাসি। আপনি আমাদের দেশের গর্ব।’ 

উল্লেখ্য, ‘জায়গীর মাস্টার’ ধারাবাহিকটি প্রতি বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে বাংলাভিশনে নিয়মিত প্রচার হচ্ছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads