• মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৪ আষাঢ় ১৪২৫
ads
ঈদে হলমুখী দর্শক

ছবি : সংগৃহীত

শোবিজ

ঈদে হলমুখী দর্শক

  • সালেহীন বাবু
  • প্রকাশিত ০৯ জুন ২০১৯

এক পশলা বৃষ্টি দিয়ে ঈদের দিনটি শুরু। রাজধানী ঢাকা ছিল প্রায়ই ফাঁকা। তারপরও ঈদের দিন থেকে পরের দিনগুলোতে বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেও ঢাকাবাসীর অনেকেই বাইরে বেরিয়েছেন। এর মধ্যে আবার শুরু হয়েছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট। অন্যদিকে দেশীয় চলচ্চিত্রের অবস্থাও খুব একটা ভালো নয়। হলগুলো আর আগের মতো দর্শক টানতে পারে না। এতসব চ্যালেঞ্জের মধ্যেও এবার ঈদে মুক্তি পেয়েছে মোট চারটি চলচ্চিত্র। ছবিগুলো হলো ‘পাসওয়ার্ড’, ‘নোলক’, ‘গোয়েন্দাগিরি’ ও ‘আবার বসন্ত’।

ঢাকার প্রেক্ষাগৃহসহ ঢাকার বাইরে অন্যান্য সিনেমা হলের কর্তৃপক্ষ দুশ্চিন্তায় ছিলেন, আদৌ দর্শক প্রেক্ষাগৃহে ছবি দেখতে আসবে কি না। এই সংশয়গুলোকে একেবারে মিথ্যা প্রমাণ করলেন দর্শকরা। সব সংশয় কাটিয়ে দর্শক দল বেঁধে এবার প্রেক্ষাগৃহে ছুটেছেন। এমনকি ঈদের চতুর্থ দিন পর্যন্ত অনেক প্রেক্ষাগৃহের অনেক শো হাউজফুল হয়েছে।

ঈদের চারটি ছবির মধ্যে বাণিজ্যিক ধারার দুটি ছবি ‘পাসওয়ার্ড’ ও ‘নোলক’ মোট ২৫৩টি হলে মুক্তি পায়। বিকল্পধারার ছবি ‘আবার বসন্ত’ মুক্তি পায় ৭টি হলে। আর বাকি একটি ছবি ‘গোয়েন্দাগিরি’ মুক্তি দেওয়া হয় একটি বেসরকারি টেলিভিশনে। ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে শবনম বুবলী ও ‘নোলক’ ছবিতে ইয়ামিন হক ববি। ‘গোয়েন্দাগিরি’ ছবিতে কল্যাণ কৈরাইয়ার বিপরীতে অভিনেত্রী শম্পা হাসনাইন এবং ‘আবার বসন্ত’ ছবিতে তারিক আনাম খানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়া।

অন্য ছবিগুলো মুখ থুবড়ে পড়লেও একমাত্র বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্র ‘পাসওয়ার্ড’ দর্শকদের প্রত্যাশা মিটাতে সক্ষম হয়েছে। ঈদের দিন ঢাকাসহ ৬৪ জেলায় শাকিবভক্তরা হাউজফুলের তকমা লাগিয়েছে ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিতে। বিগত বছরে বাংলাদেশের বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও এই প্রথমবার ঈদে ছবি হিটের তকমা লাগল দেশীয় চলচ্চিত্র অঙ্গনে। শাকিব খান অভিনীত ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির বুকিংয়ের দায়িত্ব পান প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান হার্ডবিট প্রডাকশন। বুকিং এজেন্ট মো. সোহাগের সাথে মুঠোফোনে কথা হয় তার সঙ্গে। তিনি জানান, ‘ইতোমধ্যে সারা দেশ থেকে ছবিটি নিয়ে ব্যাপক প্রশংসা পাচ্ছি। প্রথমত আমাদের পরিকল্পনা ছিল ১৫০টি হলে শুভমুক্তি দেওয়ার। সেভাবেই পোস্টার আর ব্যানার তৈরি করা হয়েছিল। সেখানে হল মালিকরা জোর করে আরো ২৭টি হল বেশি নিয়ে মুক্তি দিয়েছে। যাতে আমাদের পোস্টার আর ব্যানার নিয়ে অনেক হিমশিম খেতে হয়েছে। তাই আমরা হিমশিম খাওয়ার আগেই ঈদের দ্বিতীয় সপ্তাহের জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।

এই ছবির পর চলচ্চিত্র ‘নোলক’-এ দর্শকের আনাগোনা দেখা যায়। এ ছবির বুকিংয়ের দায়িত্ব পায় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া। সেখানে বুকিং এজেন্ট মাস্টার দা জানান, ‘নোলক’ ছবিটি মুক্তি দেওয়া হয় খুব তড়িঘড়ি করে। তা না হলে আরো হল পাওয়া যেত। তবে আমি এক কথায় বলতে পারি ‘নোলক’ ছবিটি সপরিবারে দেখার মতো একটি ছবি।

ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সে ঈদের তিনটি ছবিই মুক্তি পেয়েছে। ছবিগুলো হলো ‘পাসওয়ার্ড’, ‘নোলক’ ও ‘আবার বসন্ত’। প্রতিষ্ঠানটির জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক মেসবাহ উদ্দিন বলেন, ‘দর্শক আগ্রহ ও ব্যবসায়িক দিক তুলনা করলে পাসওয়ার্ড এগিয়ে আছে। প্রতিটি শো-ই হাউজফুল। নোলক গড়পড়তা ব্যবসা দিচ্ছে। আর আবার বসন্ত আমাদের একটু হতাশ করেছে। এখন দেখি, দ্বিতীয় সপ্তাহে অন্য ছবিগুলো ঘুরে দাঁড়াতে পারে কি না।’

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির বর্তমান সভাপতি ও মধুমিতা প্রেক্ষাগৃহের কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘আমার প্রেক্ষাগৃহে পাসওয়ার্ড চলছে। প্রতিদিন চারটি শো হয়। ঈদের দিন থেকে ম্যাটিনি ও ইভনিংয়ের দুটি শো হাউজফুল। দুপুরের শোতে দর্শক একটু কম আর খেলার কারণে রাতের শোতে দর্শক উপস্থিতি একেবারেই কম। তবে মোটেই হতাশাব্যঞ্জক নয়। ব্যবসায়িকভাবে আমি সন্তুষ্ট। ’

ঢাকার বলাকা প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে অনন্য মামুন পরিচালিত ‘আবার বসন্ত’ ছবিটি। ১ হাজার ১১ আসন ধারণক্ষমতার প্রেক্ষাগৃহে প্রতিদিন ছবিটির তিনটি করে প্রদর্শনী হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপক এস এম শাহীন বলেন, ‘আমাদের ব্যবসা মোটামুটি আশানুরূপ। দর্শক ধীরে ধীরে বাড়ছে। আমাদের প্রেক্ষাগৃহের বেশির ভাগ দর্শক বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজপড়ুয়া তরুণ-তরুণী। ঈদের ছুটিতে তাদের বেশির ভাগই ঢাকার বাইরে আছেন। আশা করছি, আগামী সোমবার থেকে দর্শক বাড়বে। ছবিটা ভালো।’

সরেজমিনে ঢাকার বিভিন্ন হল ঘুরে দর্শকের মধ্যে দেখা গেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। খিলগাঁওয়ের বাসিন্দা কাজী শফিক মোস্তফা চঞ্চল স্ত্রী ও মেয়ে লাবিবাকে  নিয়ে ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সে ছবি দেখতে এসেছেন। তিনি বলেন, ‘ঈদে ছবি দেখার রেওয়াজ সেই ছাত্রজীবন থেকেই। এখন পরিবার নিয়েই ছবি দেখতে আসি। আর আমার পরিবার শাকিবের ভক্ত। পাসওয়ার্ড ছবিটি দারুণ লেগেছে।’

এখানে ছবি দেখতে এসেছেন যারীন তাসনিম বিন্তী তার বান্ধবীদের নিয়ে। তিনি বলেন, ‘আবার বসন্ত’ ছবিটি দেখতে এসেছি। ব্যতিক্রম ছবি বলে ছবিটি দেখতে এসেছি। ফেসবুকে ‘নোলক’ ছবির কথা শুনেছেন। এ ছবিটিও দেখার ইচ্ছা আছে তাদের।

সার্বিক পরিস্থিতি বিচার করলে এবারের ঈদে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিগুলো ভালোই দর্শক টানছে। সিনেমা হলমুখী হতাশ দর্শকরা আবার হলমুখী হওয়া শুরু করেছেন। বিষয়টি এদেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনের জন্য সুখবরও বটে। এভাবে সিনেমা হলগুলো দর্শকপ্রিয়তায় থাকলে আমাদের চলচ্চিত্র অঙ্গন নতুন করে ঘুরে দাঁড়াবে। এই ঘুরে দাঁড়ানোকেই শক্তিতে পরিণত করতে হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads