• মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৫
ads
ইমিকে নিয়ে কনসার্ট মাতালেন জেনিফার লোপেজ

সংগৃহীত ছবি

শোবিজ

ইমিকে নিয়ে কনসার্ট মাতালেন জেনিফার লোপেজ

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১২ জুন ২০১৯

তার গুণের শেষ নেই। সবদিক থেকেই তিনি সফল। কখনো তিনি সংগীতশিল্পী, কখনো অভিনেত্রী আবার কখনো ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা কিংবা প্রযোজক। তিনি জেনিফার লোপেজ। সম্প্রতি নিজের ১১ বছরের মেয়ে ইমিকে নিয়ে লস অ্যাঞ্জেলেসের একটি কনসার্টে গান গাইলেন মার্কিন গায়িকা ও অভিনেত্রী জেনিফার লোপেজ। কনসার্টের একটি ভিডিও নিজের ইন্সট্রাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্টও করেছেন জনপ্রিয় এই গায়িকা।

গত শুক্রবার ‘লিমিটলেস’ গানটি গেয়ে মঞ্চ মাতান মা ও মেয়ে। এ সময় দুজনই লাল রঙের একই রকম ড্রেস পরে মঞ্চে পারফর্ম করেন। ভিডিওটিতে দেখা যায় মা ও মেয়ে দুজনই খুব উপভোগ করছেন কনসার্টটি। মেয়ের সঙ্গে এর আগেও গান গাইতে দেখা গেছে জেনিফার লোপেজকে। গেল মে মাসেও তার মেয়ে আলিসি কেসের একটি গানের কভার করেছে, যা ইউটিউবেও প্রকাশ পেয়েছে।

এদিকে ভালোবাসার ব্যাপারে নিজের কথা ফলাও করে জানান জেনিফার। বলেন, ‘ভালোবাসার ব্যাপারে আমি নিজেই একসময় নিজের সঙ্গে মিথ্যাচার করতাম। আমার কাজ নির্বাচনে বিবেচক হওয়া। আমরা আসলে যখন নিজেদের নিয়ে খুব ভাবি না, যখন আমরা প্রকৃতপক্ষে নিজেদের দিকে খেয়াল রাখি না, ঠিক তখনই আমরা ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকি। আমি কঠিনভাবেই এসব শিখেছি।’

পারস্পরিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে ঝুঁকিগুলোকে পাশ কাটিয়ে যেতাম। আমি এসব দেখতে পেতাম, কিন্তু নিজেকে বলতাম, ‘আমি তো এমন কিছু দেখছি না।’ আর শেষে পরিস্থিতির শিকার হয়েও বলতাম, আরে আমি তো এমনটা দেখতে পাইনি। আমি আমার তরুণ বয়সের তুলনায় এমন পরিস্থিতি এখন আরো দক্ষভাবে মোকাবেলা করি।

আমি এখন আর ‘সম্পর্কে জড়িয়েছি’ বা ‘সম্পর্কে জড়াইনি’ নিয়ে ভাবি না। আমার এখন ভালো বোধ হচ্ছে। ভালো বোধ হলে তার সঙ্গে থাকব নয়তো নয়, বলেন জেনিফার।

১৯৮৬ সালে মাই লিটল গার্ল নামক ছবির ছোট্ট একটি চরিত্রের মাধ্যমে বিনোদন জগতে প্রবেশ করেন জেনিফার লোপেজ। ১৯৯১ সালে ইন লিভিং কালারের একটি  অনুষ্ঠানে নাচের মাধ্যমে তিনি বিনোদন জগতে নিয়মিত হন। ১৯৯৭ সালে ‘সেলেনা’ নামক চলচ্চিত্রের কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি মূল ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। তার পরের বছর ‘আউট অফ সাইট’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করে লোপেজ লাতিন আমেরিকার প্রথম অভিনেত্রী হিসেবে দশ লাখ ডলার পারিশ্রমিক পান। একজন চলচ্চিত্র প্রযোজক কিংবা ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা হিসেবেও সফল তিনি। ১৯৯৯ সালে তার প্রথম গানের অ্যালবাম ‘অন দ্যা সিক্স’ বের হওয়ার পর তিনি অভিনয় জীবন থেকে সংগীতজগতে সার্থকভাবে পদার্পণ করেন। এখন তিনি আমেরিকার প্রথম সারির তারকা অভিনেত্রী ও গায়িকা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads