• মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads
‘অভিনেতা’ অঞ্জন দত্ত

ছবি : সংগৃহীত

টালিউড

‘অভিনেতা’ অঞ্জন দত্ত

  • বিনোদন প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৮ জুলাই ২০১৯

পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অঞ্জন দত্তের পরিচিতি একজন গায়ক হিসেবেই। এ দেশের মানুষও তাকে চেনেন সংগীতশিল্পী হিসেবে। কিন্তু এই পরিচয় ছাপিয়ে তার আরো একটা বড় গুণ আছে। তিনি একজন ভালো অভিনেতা।

এবার ঢাকা দর্শক অঞ্জন দত্তকে দেখবে অভিনয়শিল্পী হিসেবে। আগামী ৯ জুলাই শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চস্থ হবে অঞ্জন দত্ত নির্দেশিত-অভিনীত নাটক ‘সেলসম্যানের সংসার’। নাটকে মধ্যবিত্ত সমাজের সংকট ধরতে চেয়েছেন পরিচালক।

দার্জিলিংয়ের বোর্ডিং স্কুলে অঞ্জনের হাতেখড়ি হয়েছিল গিটার ও অভিনয়ের। পরবর্তী সময়ে কণ্ঠশিল্পী হিসেবে পরিচিতি পান। কিন্তু কণ্ঠশিল্পীর চেয়েও অঞ্জন দত্ত বেশি হতে চেয়েছিলেন অভিনয়শিল্পী। এ জন্য সদ্য জন্ম নেওয়া শিশুপুত্র নীল ও স্ত্রীকে কলকাতায় রেখে ছুটে যান জার্মানিতে। অভিনয়ের নেশাটা এমনই ছিল অঞ্জনের। এসব কথা উঠে এসেছে সাজ্জাদ হুসাইনের লেখা ‘অঞ্জনযাত্রা’ বইয়ে।

অঞ্জন দত্ত বলেন, ‘আমার একটা স্বপ্ন ছিল ঢাকায় গিয়ে অভিনয় করব। আপনারা অনেকেই আমার গানের ভক্ত। অনেকবার গেছি গান করতে। কিন্তু অভিনয় আমার প্রথম প্রেম। সেই ২১ বছর বয়স থেকে অভিনয় করে চলেছি। নাটক করার জন্য বহু দিন জার্মানিতেও লড়াই করেছি। আজ এত দিন পর শেষ বয়সে এসে অভিনয় করতে যাচ্ছি ঢাকায়, যেখানে আমার অসংখ্য শ্রোতা আছে।’

‘নাট্যঞ্জন’ বইয়ের ভূমিকায় অঞ্জন দত্ত লিখেছেন, ‘নাটক বা অভিনয় আমার আসল পরিচয়। সেই পরিচয়টা আমার দর্শক বা শ্রোতাদের কাছে পৌঁছাতে পারেনি। তা নিয়ে একটা প্রচণ্ড আক্ষেপ ছিল। আমার চারপাশের পরিবেশের সঙ্গে লড়াই করে, বাবার ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে যেটা করতে গেলাম এবং খ্যাতি পেলাম, কত দেশ-বিদেশের মানুষের ভালোবাসা পেলাম, অথচ যা দিয়ে যাত্রা শুরু, সেটা খুব একটা কেউ জানল না।’

আজ সোমবার ঢাকায় আসবেন অঞ্জন দত্ত। পরদিন সন্ধ্যায় শিল্পকলায় প্রদর্শিত হবে নাটক ‘সেলসম্যানের সংসার।’ নাটক শেষে ছাপাখানার ভূত থেকে প্রকাশিত হবে তার নাট্যজীবন নিয়ে বই ‘নাট্যঞ্জন’। পাশাপাশি গুণী এই শিল্পী তার বর্ণাঢ্য জীবন নিয়েও কথা বলবেন। দর্শকদের অনুরোধে অনুষ্ঠানে তিনি গানও গাইবেন।

নাটক এবং বইয়ের এসব আয়োজনে অংশ নিতে তিন ক্যাটাগরির রেজিস্ট্রেশন ফি বা টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে ১৫০০, ২০০০ ও ৩০০০ টাকা। সাজ্জাদ হুসাইন জানান, ‘নাট্যঞ্জন’ বইয়ের দাম ১০০০ টাকা। নাটকের টিকিটের সঙ্গে দেওয়া হবে বইটিও। পরে বইটি বাজারে পাওয়া যাবে।

ধানমন্ডির কে ক্র্যাফটের আউটলেটে টিকিট পাওয়া যাচ্ছে। অথবা ছাপাখানার নামের এই ফেসবুক পেজে ইনবক্স করে বিকাশের মাধ্যমে নিবন্ধন করা যাবে। এ ছাড়া বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির বুকিং কাউন্টারে শোর দিন সকাল থেকে টিকিট বিক্রি হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads