• রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৪
ads
জোকোভিচের স্বপ্নভঙ্গ

রানার্সআপ হয়েই সন্তষ্ট থাকতে হয়েছে জোকোভিচকে (বাঁয়ে)

ছবি : ইন্টারনেট

টেনিস

জোকোভিচের স্বপ্নভঙ্গ

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৬ নভেম্বর ২০১৮

সেমিফাইনালে ফেদেরারকে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছিলেন নোভাক জোকোভিচ। তাই টেনিসপ্রেমীরা ধরেই নিয়েছিলেন ফাইনাল শেষে এ সার্বিয়ান তারকার হাতেই উঠতে যাচ্ছে প্যারিস মাস্টার্সের ট্রফি। কিন্তু বাস্তবতা অনেক কঠিন। ভক্ত-সমর্থকরা ভাবেন এক আর কোর্টে ঘটে আর এক। অন্য কিছু ঘটে যাওয়ার কারণেই শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে অঘটনের শিকার হয়েছেন জোকোভিচ। বিশ্বের নতুন নাম্বার ওয়ান মেগাস্টার আত্মসমর্পণ করেছেন রুশ প্রতিপক্ষ কারেন খাচানোভের কাছে। সুবাদেই খাচানোভের হাতে ধরা দেয় ক্যারিয়ারের প্রথম মাস্টার্স ১০০০ শিরোপা।

২২ বছরের খাচানোভ ৭-৫ ও ৬-৪ গেমে ধরাশায়ী করেন ১৪ গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিককে। টানা ২২ ম্যাচে অজেয় থাকার পর জোকোভিচের জয়রথ থামিয়ে দিতে খাচানোভ সময় নেন ১ ঘণ্টা ৩৭ মিনিট। এ নিয়ে র্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দশ খেলোয়াড়ের বিপক্ষে টানা চার ম্যাচ জিতলেন খাচানোভ।

হারলেও ৩১ বছরের সুপারস্টার জোকোভিচ ঠিকই ১৭ মেজর ট্রফির মালিক স্প্যানিশ তারকা রাফায়েল নাদালকে টপকে ফিরে পেয়েছেন র্যাঙ্কিং রাজত্ব। শিরোপা ঘরে তুলে খাচানোভ সাত ধাপ এগিয়ে উঠে গেছেন র্যাঙ্কিংয়ের ১১তম স্থানে। ২০০৯ সালে নিকোলাই ডেভিডেনকোর পর এই প্রথম রাশিয়ান হিসেবে মাস্টার্স ট্রফি জিতলেন তিনি। আর তাই নাম্বার ওয়ান জোকোভিচকে হারানোয় খাচানোভের খুশি যেন কিছুতেই ধরছে না- ‘তার মানে, পুরো দুনিয়া এখন আমার কাছে। আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম বড় শিরোপা এটি। এমনভাবে মৌসুম শেষ করে এতটা খুশি কখনোই হয়নি। কম কথা নয়, বিশ্বের নাম্বার ওয়ান নোভাক জোকোভিচকে হারিয়েছি।’

সপ্তাহ জুড়েই শরীরটা খুব একটা ভালো ছিল না জোকোভিচের। সব সময়ই ফ্লুর উপসর্গ জ্বালিয়ে মারছে তাকে। তবে প্রতিপক্ষের প্রশংসা করতে ভোলেননি জোকোভিচ, ‘আজ আমার অনুভূতি খুব একটা ভালো নয়। কিন্তু অসাধারণ এক ম্যাচ খেলার জন্য কারেনকে শ্রদ্ধা জানাই। যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে সে জিতেছে। সে-ই ট্রফির যোগ্য প্রাপক। আমি নিশ্চিত, ভবিষ্যতে তার কাছ থেকে আরো অনেক চমৎকার সব ম্যাচ দেখতে পাব।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads