• রবিবার, ৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭
ads

পর্যটন শিল্প

করোনায় ব্যবসায় ধস

সহায়তা চান পর্যটন খাতের ব্যবসায়ীরা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৭ মার্চ ২০২০

করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বের সব দেশের নাগরিকদের জন্য বাংলাদেশে প্রবেশে (অন-অ্যারাইভাল) ভিসা বন্ধের সিদ্ধান্তকে যৌক্তিক বলছে পর্যটন খাতের ব্যবসায়ীদের সংগঠন ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব)। তবে ক্ষতি পুষিয়ে দিতে সরকারের কাছে ভর্তুকি দাবি করে বিশেষ তহবিল গঠনের দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। টোয়াব আয়োজিত ১০ম শেয়ারট্রিপ বাংলাদেশ ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ফেয়ারের (বিটিটিএফ) তারিখ পেছানোর সিদ্ধান্ত জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছিল। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে ওই মেলা আগামী ৩ ও ৪ এপ্রিলের পরিবর্তে ২৯ থেকে ৩১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করায় এবং বিভিন্ন দেশে মৃতের সংখ্যা বাড়তে থাকায় ৩১ মার্চ পর্যন্ত বিশ্বের সব দেশের নাগরিকদের জন্য বাংলাদেশে প্রবেশে অন-অ্যারাইভাল ভিসা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। অন-অ্যারাইভাল ভিসা বন্ধ করার পাশাপাশি ৩১ মার্চ পর্যন্ত ইউরোপ ও করোনা আক্রান্ত দেশগুলো থেকে বাংলাদেশে কেউ আসতে পারবেন না। এমন পরিস্থিতিতে ব্যাপক ক্ষতির মধ্যে পড়েছে সারা বিশ্বের পর্যটন খাত। অন-অ্যারাইভাল ভিসা বন্ধের ঘোষণা দেওয়ার দুই দিনের মাথায় দেশের পর্যটন খাতের ব্যবসায়ীদের সংগঠন টোয়াবের সভাপতি মো. রাফেউজ্জামান বলেন, ‘পর্যটনের ভরামৌসুমে করোনা ভাইরাস এসেছে। পর্যটন মৌসুমে আমাদের সাড়ে ৪ থেকে ৫ হাজার কোটি টাকার লেনদেন হয়। করোনা ভাইরাসের কারণে পর্যটন খাতে কী পরিমাণ ক্ষতি হবে, তা বলা সম্ভব নয়। তবে ৮০ শতাংশের মতো ট্যুর বাতিল হয়েছে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে টোয়াবের সভাপতি বলেন, ‘ভিসা বন্ধের যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জাতীয় স্বার্থে আমরা তা যৌক্তিক মনে করি। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এলে আবার সবকিছু চালু করতে হবে।’

মো. রাফেউজ্জামান বলেন, ‘করোনার কারণে ট্যুর বাতিল হওয়ায় খুব ক্ষতি হচ্ছে। কারণ, সব লোকসান আমাদের বহন করতে হচ্ছে। এ কারণে আমাদের ভর্তুকি দিতে হবে। এ জন্য সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ তহবিল গঠন করতে হবে।

এ ছাড়া সহজ সুবিধায় ও কম খরচে ভিসা দেওয়া, বন্দর ও বিমানবন্দরগুলোতে অপ্রয়োজনীয় বিধিনিষেধ শিথিল করা, পর্যটকদের ওপর আরোপিত ট্যাক্স কমানো, ভ্রমণ স্থানগুলো প্রচারে বরাদ্দ বাড়ানো, বিমানের টিকিটের ট্যাক্স কমানো, সরকারের পক্ষ থেকে ট্যুর অপারেটরদের ইনসেনটিভ দেওয়া এবং সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাবেদ আহমেদ, টোয়াবের সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ, পরিচালক আনোয়ার হোসেন, মো. সাহেদ উল্লাহ প্রমুখ।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads