• শনিবার, ৬ জুন ২০২০, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
‘ডুইং বিজনেস সূচকে এ বছর ৩০ ধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ’

সংগ‍ৃহীত ছবি

বাণিজ্য

‘ডুইং বিজনেস সূচকে এ বছর ৩০ ধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ’

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৯ মার্চ ২০২০

বিশ্বব্যাংকের ডুইং বিজনেস সূচকে চলতি বছর বাংলাদেশ ৩০ ধাপ এগিয়ে যাবে। আগামী বছর তা আরো কমে দুই অঙ্কের ঘরে নেমে আসবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। গতকাল রোববার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে ‘বিশ্বব্যাংকের ব্যবসা সহজীকরণ রিপোর্টের সম্পত্তি নিবন্ধন সূচক’ শীর্ষক এক কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন আইন সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রিজ (এমসিসিআই)-এর সভাপতি নীহাত কবির। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলোদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)-এর নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম।

সালমান এফ রহমান বলেন, ২০১৯ সালে বাংলাদেশ ডুইং বিজনেস সূচকে আট ধাপ এগিয়ে ১৯০টি দেশের মধ্যে ১৬৮তম স্থানে নেমে এসেছে। আমরা এখনো এই সূচকে অনেক পিছিয়ে রয়েছি। তবে আমি আশা করছি আগামী বছর নাগাদ আমরা এর সূচকে দুই অঙ্কের নিচে নেমে আসব।

তিনি বলেন, বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। তাই আমাদের ডুইং সূচকে পিছিয়ে থাকলে বিনিয়োগ কমে যাবে। তাই দেশে বিনিয়োগ বাড়াতে হলে বিশ্বব্যাংকের এই সূচকে বাংলাদেশকে আরো এগুতে হবে।

আইন মন্ত্রণালয় থেকে একটি আইন সংশোধন করার কারণে আমরা ডুইং বিজনেস সূচকে সাত পয়েন্ট পাব বলে উল্লেখ করে সালমান এফ রহমান বলেন, এই সাত পয়েন্টের কারণে বিশ্বব্যাংকের ব্যবসা সহজীকরণ সূচকে আমাদের অবস্থান আরো ভালো হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, একটা দেশের ব্যবসা করা কতটা কঠিন বা সহজ প্রতি বছর তার সূচক নির্ধারণ করে বিশ্বব্যাংক। মূলত ১০টি খাতের ওপর ভিত্তি করে বিশ্বব্যাংক প্রতি বছর এই সূচক তৈরি করে। তার মধ্যে অন্যতম হলো সম্পত্তি নিবন্ধনকৃত সম্পর্কিত সূচক। যেটি আইন ও বিচার বিভাগের সঙ্গে সম্পর্কিত।

তিনি বলেন, ব্যবসা সহজীকরণ সূচকে উন্নতি করতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আগামীতে এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান আরো ভালো হবে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ স্বল্প উন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার দ্বারপ্রান্তে রয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়ন, ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হবে।

এছাড়া আমাদের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি এবং বিনিয়োগের পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারলে আমাদের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে দেশে বিনিয়োগকারীদের সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে হবে। দেশের ক্রমবর্তমান উন্নয়ন ও শিল্পায়নের অন্যতম অবদান হলো বেসরকারি খাতের।

আইন সচিব গোলাম সারওয়ার বলেন, কোনো দেশের অর্থনীতির ১০টি মাপকাঠিতে ব্যবসা সহজীকরণ সূচক নির্ধারণ করা হচ্ছে। বর্তমানে ১৯০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশে অবস্থান ১৬৮। এটা অনেক বেশি। তাই এই সূচক যাতে কমে আসে সেজন্য সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আগামীতে এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান আরো উন্নতি করতে হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads