• বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫
ads
প্রথা ভাঙা রাজকীয় বিয়ে

সেন্ট জর্জ চ্যাপেল চার্চে ব্রিটিশ যুবরাজ হ্যারি এবং মেগান মার্কেল

ইন্টারনেট

যুক্তরাজ্য

প্রথা ভাঙা রাজকীয় বিয়ে

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২০ মে ২০১৮

রাজকীয় আয়োজনে কেসিংটন প্যালেসের উইন্ডসর ক্যাসলের সেন্ট জর্জ চ্যাপেল চার্চে ব্রিটিশ যুবরাজ হ্যারি এবং মেগান মার্কেলকে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। স্থানীয় সময় শনিবার দুপুর ১২টায় দেশ-বিদেশের অতিথিদের উপস্থিতিতে দুজনের মধ্যে আনুষ্ঠানিক আংটি বিনিময় হয়। এ সময় বিয়ের পোশাক পরিহিত মেগানকে উদ্দেশ্য করে আবেগাপ্লুত হ্যারি বলেন, ‘তোমাকে অসম্ভব সুন্দর লাগছে। তোমার অভাব বোধ করছিলাম।’ খবর বিবিসি ও ডেইলি মেইল। 

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার জন্য মেগানের সঙ্গে হেঁটে আসায় নিজের বাবা প্রিন্স চার্লসকে ধন্যবাদ জানান হ্যারি। অসুস্থতার কারণে মেগানের বাবা অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি। তবে বিয়ের অনুষ্ঠানে মেগানের বাবা থমাস মার্কেল যোগ দিতে না পারলেও তিনি টেলিভিশনে বিয়ের অনুষ্ঠান দেখেছেন বলে জানিয়েছে সেলিব্রেটি ওয়েবসাইট টিএমজেড। বিয়ের অনুষ্ঠানের সময় হ্যারির চোখ ছলছল করছিল। আর্চবিশপ শপথ পড়ানো শেষে যখন তাদের স্বামী-স্ত্রী ঘোষণা করেন, তখন দুজনের মুখেই হাসি দেখা যায়।

রীতি অনুসারে মেগানের সঙ্গে দুজন পেইজ বয় জর্জ চ্যাপেল পর্যন্ত আসে। এরপর সেখান থেকে মেগান একাই চ্যাপেলের মধ্যে প্রবেশ করেন। চ্যাপেলের উঁচু পাথরের উপর দাঁড়িয়ে হ্যারি এবং মেগান আর্চবিশপের নির্দেশে যখন একে অপরকে চুম্বন করছিল তখন গোটা চার্চে পিনপতন নীরবতা বিরাজ করছিল। এরপরই যখন তারা ‘আই ডু’ বাক্যটি উচ্চারণ করেন তখন চার্চে থাকা ৬০০ অতিথি একসঙ্গে করতালি দেন। এর মধ্য দিয়েই এখন থেকে যুবরাজ হ্যারি এবং মেগান হলেন ডিউক ও ডাচেস অব সাসেক্স।

নিজের শপথে মেগান তার স্বামীকে ‘মান্য’ করার প্রতিশ্রুতি দেননি। অপরদিকে প্রিন্স হ্যারিও রাজকীয় ঐতিহ্য ভেঙে স্ত্রীকে একটি বিয়ের আংটি পরিয়ে দেন। এরপর হ্যারির প্রয়াত মা প্রিন্সেস অব ওয়েলস ডায়ানার পক্ষ থেকে তার বোন লেডি জেন ফেলোউস একটি নির্বাচিত অংশ পাঠ করে শোনান। এরপর বর ও কনে একটি রেজিস্টারে স্বাক্ষর করেন।

বিয়েতে জর্জ ক্লুনি, বেকহ্যাম, ইদ্রিস এলবা, এলটন জন এবং অপরাহ উইনফ্রের মতো সেলিব্রেটি তারকারাও উপস্থিত ছিলেন। আর হ্যারি-মেগানের বিয়ে দেখতে ব্রিটিশ রাজপরিবার থেকে চ্যাপেলে উপস্থিত ছিলেন রানি এবং প্রিন্স ফিলিপ। হ্যারির বড়ভাই উইলিয়াম ও তার স্ত্রী কেট মিডলটনও উপস্থিত ছিলেন। চ্যাপেলের বাইরে ব্রিটিশ রাজপরিবারের লক্ষাধিক ভক্ত উপস্থিত ছিলেন নবদম্পতিকে একনজর দেখার জন্য। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে হ্যারি ও মেগান পরস্পরের হাত ধরে চ্যাপেল থেকে বের হয়ে উপস্থিত জনতার উদ্দেশে হাত নেড়ে অভিবাদন জানান। এরপর তারা রাজপরিবারের সদ্য বিবাহিত দম্পতি হিসেবে রাজকীয় ঘোড়ার গাড়িতে ক্যাসেলে যান।

মধ্যাহ্নভোজনে রানির আমন্ত্রণে অতিথি ছিলেন প্রায় ৬০০। এ ছাড়া হ্যারি এবং মেগানের আমন্ত্রণেও প্রায় দুই হাজার অতিথি উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন মেগানের বিয়ের পোশাকের ডিজাইনার ক্লারে কেলার ও হ্যারির সাবেক প্রেমিকা।

গত বছরের নভেম্বরে হ্যারি এবং মেগানের সম্পর্কের বিষয়টি প্রথম মিডিয়ায় আসে। তখন থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল মেগানই হতে পারেন হ্যারির স্ত্রী এবং এ নিয়ে ব্রিটিশ এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মিডিয়ায় লেখালেখি শুরু হয়। পরবর্তী সময়ে রানি অনুমতি দিলে হ্যারি এবং মেগানের বিয়ের দিন ধার্য হয়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads