• বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৫
ads
উইকিলিকসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ গ্রেফতার

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ গ্রেফতার

ছবি : সংগৃহীত

যুক্তরাজ্য

উইকিলিকসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ গ্রেফতার

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ১২ এপ্রিল ২০১৯

দীর্ঘ সাত বছর আশ্রিত থাকার পর গ্রেফতার হলেন উইকিলিকসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। গতকাল বৃহস্পতিবার লন্ডনে তিনি গ্রেফতার হন। লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশ জানিয়েছে, আদালতে আত্মসমর্পণ না করায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে যত দ্রুত সম্ভব ওয়েস্টমিনিস্টার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেওয়া হবে।

যৌন নিপীড়নের এক মামলা এড়াতে ৪৭ বছর বয়সি জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ সুইডেন ছেড়েছিলেন। তারপর থেকে সাত বছর তিনি লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। সেখানে থাকাকালে তিনি দূতাবাস ত্যাগ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। তার অভিযোগ, তিনি দূতাবাস ছাড়লেই তাকে উইকিলিকসের কর্মকাণ্ডের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ। তিনি বলেন, আমি নিশ্চিত করছি, জুলিয়ান পুলিশ হাজতে আছেন। তাকে যুক্তরাজ্যেই বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। তিনি এজন্য ইকুয়েডরের সহযোগিতা এবং ব্রিটেনের মেট্রোপুলিশকে তাদের পেশাদারির জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট লেনিন মরেনো বলেন, আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করায় অ্যাসাঞ্জকে দেওয়া তার দেশের আশ্রয় নীতি প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে উইকিলিকসের টুইটার থেকে বলা হয়েছে, অ্যাসাঞ্জের এই গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে ইকুয়েডর তাদের রাজনৈতিক আশ্রয় প্রতিশ্রুতির লঙ্ঘন করেছে। এর আগে গত বছরের ১১ জানুয়ারি অ্যাসাঞ্জকে নাগরিকত্ব দেয় ইকুয়েডর।

২০১০ সালে আড়াই লাখ মার্কিন কূটনৈতিক তারবার্তা ও পাঁচ লাখ সামরিক গোপন নথি ফাঁস করে হইচই ফেলে দিয়েছিল উইকিলিকস। এর কিছুদিন পর সুইডেনে উইকিলিকসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়। ওই মামলায় বিচারের জন্য যুক্তরাজ্য সরকার তাকে সুইডেনের কাছে হস্তান্তর করতে চেয়েছিল। এরপর গত বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যের একটি আদালত অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারি পরোয়ানা বাতিলের সিদ্ধান্তও নেয়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads