• মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
সাগরে নিম্নচাপ, ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা

ছবি : সংগৃহীত

আবহাওয়া

সাগরে নিম্নচাপ, ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২৬ এপ্রিল ২০১৯

দেশজুড়ে টানা তিন দিন ধরে চলা তাপপ্রবাহ প্রশমিত হতে শুরু করেছে। তবে দাবদাহের সময়ে সাগরে জন্ম নেওয়া লঘুচাপটি নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। আবহাওয়াবিদদের আশঙ্কা সেটি রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ খোন্দকার হাফিজুর রহমান জানান, দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হওয়ার পর আজ শুক্রবার তা নিম্নচাপের আকার নিয়েছে। এটি আরো ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে এবং শনিবার ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিতে পারে।

নিম্নচাপটির সম্ভাব্য গতিপথ এখন ভারতের উড়িশা উপকূলের দিকে। তবে সাগর উত্তাল থাকায় দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সঙ্কেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অফিস।

টানা তিন দিন ধরে দাবদাহ চলছে রাজধানীসহ দেশের সর্বত্র। শুক্রবার রাঙামাটিতে দেশের সর্বোচ্চ ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগের দিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, শুক্রবার বিকালের পর দেশের অনেক এলাকায় তাপপ্রবাহ কিছুটা কমতে শুরু করেছে। তবে ঢাকা, মাদারীপুর, রাঙামাটি, নোয়াখালী. ফেনী, রাজশাহী, যশোর, বাগেরহাট, পটুয়াখালী জেলাসহ সিলেট বিভাগের প্রতিটি জেলায় এখনো মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

থার্মোমিটারের পারদ চড়তে চড়তে যদি ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে, আবহাওয়াবিদরা তাকে মৃদু তাপপ্রবাহ বলেন। আর উষ্ণতা বেড়ে ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে বলা হয় মাঝারি তাপপ্রবাহ। তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র তাপপ্রবাহ হিসেবে বিবেচনা করে আবহাওয়া অফিস।

আবহাওয়ার বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়টি শুক্রবার বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ২১৭০ কিলেমিটার দক্ষিণে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ২০৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২১৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ২১৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল।

নিম্নচাপ কেন্দ্রের কাছে সাগর উত্তাল থাকায় এবং ঝড়ো হাওয়ার আশঙ্কায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সঙ্কেত দেখাতে বলা হয়েছে।

পাশাপাশি উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গভীর সাগরে বিচরণ না করার পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

এদিকে কাল শনিবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে কুমিল্লা অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা ও ঢাকা দুয়েক জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বৃষ্টির সঙ্গে বাতাসের উত্তাপ আরো কমে আসতে পারে। শুক্রবার বগুড়ায় ১ মিলিমিটার ও বৃহস্পতিবার তেঁতুলিয়ায় ১৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads