• শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৫
ads
ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ : পটুয়াখালীর উপকূলে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

ছবি : সংগৃহীত

আবহাওয়া

ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ : পটুয়াখালীর উপকূলে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

  • রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০২ মে ২০১৯

ঘূর্ণিঝড় ফণী যতই বাংলাদেশের উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে পটুয়াখালীর সাগর উপকূলীয় রাঙ্গাবালী উপজেলা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর ততটাই উত্তাল হয়ে উঠছে। আজ বৃহস্পতিবার আবহাওয়া অধিদপ্তর বঙ্গোপসাগর সংলগ্ন সমুদ্র অঞ্চলে ৭নং বিপদ সংকেত জারী করে লাল নিশান টাঙিয়ে দিয়েছে। রাঙ্গাবালী উপজেলার সমুদ্র এলাকায় ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) এর পক্ষ থেকে মাইকিং করে সর্তক বার্তা প্রদান করা হচ্ছে।

এছাড়াও রাঙ্গাবালী উপজেলার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দ্বীপগুলো থেকে গবাদি পশু ও মালামাল সরিয়ে আনার জন্য উপজেলা দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। বুধবার দুপুর থেকে সাগরে যাওয়া সকল মাছ ধরার ট্রলার ও ছোট ছোট নৌযান তীরে আসতে শুরু করেছে।

গভীর সমুদ্রে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ফণী’র আঘাত হানার আশংকায় বুধবার দুপুরে আবহাওয়ায় অধিদপ্তর ৭নং বিপদ সংকেত জারি করার পর থেকেই উপকূল জুড়ে ফণী নিয়ে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। এ ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের উপকূলে বড় ধরনের আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান আবহাওয়া অধিদপ্তর। এমন খবরে রাঙ্গাবালী উপজেলা প্রশাসন এলাকা গোটা এলাকা জুড়ে ব্যাপক প্রচার চালাচ্ছে। ফণী’র ক্ষয়-ক্ষতি থেকে উপকূলবাসীকে রক্ষা করতে বিভিন্নভাবে প্রস্তুতি নিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে পটুয়াখালী আবহাওয়া অধিদপ্তর উপকুলীয় এলাকায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত জারী করেছেন। বেশ কিছু এলাকায় লাল নিশান টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে ও মাইকিং করে জনগনকে সতর্ক করা হচ্ছে।

রাঙ্গাবালী উপজেলা দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তপন কুমার ঘোষ জানান, ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানলে দূর্গত এলাকা থেকে যাতে মানুষকে দ্রুত আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়া যায় সে জন্য সাইক্লোন শেল্টারগুলো প্রস্তুত করা হয়েছে। আর সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে উপজেলা প্রশাসন ও সংশ্লিষ্টরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.মাশফাকুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাত থেকে রাঙ্গাবালী উপজেলাবাসীকে রক্ষা করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। উপজেলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপগুলোতে ৫৪ টি সাইক্লোন শেল্টার প্রস্তত রাখা হয়েছে। এছাড়াও ৫টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে এবং কয়েকটি সেচ্ছাসেবী সংগঠন মাঠে কাজ করার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads