• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
মা হলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

মা হওয়ার পর নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন ও তার বয়ফ্রেন্ড ব্রডকাস্টার ক্লার্ক গেইফোর্ড কন্যাকে নিয়ে সেলফি তুলে পোস্ট করেন ইনস্টাগ্রামে

ছবি ইন্সটাগ্রাম থেকে নেওয়া

বিদেশ

মা হলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২১ জুন ২০১৮

কন্যা সন্তান জন্ম দিয়ে প্রথমবারের মতো মা হয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা কেট লরেন আরডার্ন। গেল বছরের অক্টোবরে মাত্র ৩৭ বছর বয়সে নিউজিল্যান্ডের সবচেয়ে কম বয়সী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইন্সটাগ্রামে দেওয়া এক পোস্টে বৃহস্পতিবার জন্ম নেওয়া কন্যা সন্তানের একটি ছবিও তিনি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। ছবিতে জাসিন্ডা ও তার বয়ফ্রেন্ড ব্রডকাস্টার ক্লার্ক গেইফোর্ডের হাসিমাখা মুখ ফুটে উঠেছে।   

সদ্য জন্ম নেওয়া মেয়ের ছবি দিয়ে ইন্সটাগ্রামে জাসিন্ডা লেখেন, ‘স্বাগতম আমাদের উই ওয়ান গ্রামে। পৌনে পাঁচটার সময় পৃথিবীতে আসা তিন দশমিক ৩১ কেজি ওজনের স্বাস্থ্যবান কন্যা পেয়ে নিজেদের ভাগ্যবান মনে করছি।’ 

অকল্যান্ড সিটি হাসপাতালের দলটিকে ধন্যবাদ জানান তিনি। 

জাসিন্ডা আরডার্ন হলেন দেশটির ইতিহাসে প্রথম নারী, যিনি প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থাতেই সন্তানের জন্ম দিলেন।

জাসিন্ডা আরডার্ন দল লেবার পার্টি নির্বাচনে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করলেও কোনো দল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় ছোট দল ফার্স্ট পার্টির নেতা উইনস্টন পিটার্সের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করে। এ বছরের জানুয়ারিতে জাসিন্ডা জানান, অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি তিনি প্রথম বুঝতে পারেন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার ডাক পাওয়ার মাত্র ছয় দিন আগে। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, সন্তান প্রসবে চিকিৎসকদের বেঁধে দেওয়া সময়ের চারদিন পর বৃহস্পতিবার সকালে জাসিন্ডাকে অকল্যান্ডের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

জাসিন্ডা আরডার্ন ছয় সপ্তাহ মাতৃত্বকালীন ছুটি নিয়েছেন। তার অনুপস্থিতিতে দায়িত্ব পালন করবেন উপপ্রধানমন্ত্রী উইনস্টন পিটার্স। তবে ছুটিকালীন সময়েও মন্ত্রিসভার নথিপত্র পড়বেন বলে জানিয়েছেন তিনি। 

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads