• রবিবার, ২৬ মে ২০১৯, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
সম্মতির ভিত্তিতে সম্পর্ক ধর্ষণ নয়

ছবি : সংগৃহীত

বিদেশ

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের রায়

সম্মতির ভিত্তিতে সম্পর্ক ধর্ষণ নয়

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ০৪ জানুয়ারি ২০১৯

উভয়ের সম্মতির ভিত্তিতে শারীরিক সম্পর্কের পর কোনো পুরুষ যদি সঙ্গীকে বিয়ে করতে না পারেন তাহলে সেই সম্পর্ক ধর্ষণ হিসেবে বিবেচিত হবে না। আর এই ব্যর্থতার দায়ে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলাও দায়ের করা যাবে না। তবে প্রতারণা মামলা করা যেতে পারে। গতকাল বৃহস্পতিবার ভারতের সুপ্রিম কোর্ট এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ধর্ষণের মামলার শুনানি শেষে এ রায় দেন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি একে সিকরি এবং এস আব্দুল নাজিরের বেঞ্চ এ রায় দেন। বিচারকরা বলেন, নিজেদের ইচ্ছেতে যে কোনো প্রাপ্তবয়স্ক নারী-পুরুষ একসঙ্গে থাকতে পারেন। চাইলে তারা শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতে পারেন। বিয়ের আগেই এই সম্পর্ক ভেঙে গেলে পুরুষ সঙ্গীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করা যাবে না। কারণ এটা ধর্ষণের পর্যায়ে পড়ে না। তবে ইচ্ছে করলে ওই নারী প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের মামলা করতে পারবেন। 

আদালত জানান, ধর্ষণ এবং সম্মতিসূচক যৌন সম্পর্কের মধ্যে স্পষ্ট পার্থক্য রয়েছে। প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের মামলার ক্ষেত্রে আদালতের ওপর বাড়তি দায়িত্ব থাকে। পুরুষ সঙ্গী কোনো বিশেষ কারণে বিয়ে করতে অক্ষম নাকি শুধুম যৌন লালসা চরিতার্থ করতে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন এটা জানা আদালতের জন্য জরুরি। অনিচ্ছাকৃত কথা না রাখা এবং ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা প্রতিশ্রুতির মধ্যে ব্যাপক ফারাক রয়েছে।

মহারাষ্ট্রের এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এক নার্স ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেন। শুনানি শেষে আদালত জানান, অভিযোগকারী নার্স নিজের ইচ্ছায় ওই চিকিৎসকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়েন।  নার্স নিজেও স্বীকার করেছেন, একাকিত্ব থেকে ওই চিকিৎসকের প্রেমে পড়েন তিনি এবং একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নেন। তার ওপর কোনো ধরনের বল প্রয়োগ হয়নি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads