• রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫
ads
মুসলিম নারীদের প্রকাশ্যে গণধর্ষণ করতে বলায় বহিষ্কার বিজেপি নেত্রী

ছবি : সংগৃহীত

বিদেশ

মুসলিম নারীদের প্রকাশ্যে গণধর্ষণ করতে বলায় বহিষ্কার বিজেপি নেত্রী

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০১ জুলাই ২০১৯

সোশ্যাল মিডিয়ায় ধর্মবিদ্বেষী মন্তব্য এবং উস্কানি দেয়ার ঘটনায় মহিলা মোর্চার এক নেত্রীকে বহিষ্কার করেছে বিজেপি। উত্তরপ্রদেশের রামকোলা মণ্ডলের বিজেপি মহিলা মোর্চার প্রেসিডেন্ট সুনীতা সিং গৌড় ফেসবুকে এক পোস্টের মাধ্যমে মুসলিম নারীদের গণধর্ষণের আহ্বান জানিয়ে এই সাজার মুখে পড়লেন।

সুনীতা তার ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, মুসলিমদের জন্য একটাই সমাধান রয়েছে। হিন্দু ভাইদের ১০ জন করে দল তৈরি করে মুসলিম মা ও বোনদের প্রকাশ্য রাস্তায় গণধর্ষণ করা উচিত। এরপর সবাইকে দেখানোর জন্য তাদের বাজারের মাঝখানে ঝুলিয়ে দেয়া উচিত।

বিজেপির এই নারী নেত্রী আরো লিখেছেন, মুসলিম মা- বোনদের উচিত নিজেদের সম্ভ্রম লুট করতে দেয়া। কারণ দেশকে রক্ষা করতে এছাড়া আর অন্য কোনও উপায় নেই।

ফেসবুকে সুনীতার এমন পোস্টের পর তা ভাইরাল হয়ে যায়। তুমুল সমালোচনায় মুখর হয় নেটিজেনরা। পরে প্রবল চাপের মুখে সুনীতাকে দলীয় পদ থেকে সরিয়ে দেয় বিজেপি।

তবে বিজেপি মহিলা মোর্চার সর্বভারতীয় সভানেত্রী বিজয়া রাহাতকর প্রথমে সুনীতার সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন। কিন্তু দলের তদন্তের পর জানায়, সুনীতা বিজেপির রামকোলা মণ্ডল মহিলা মোর্চার সভাপতি। এরপরই পদক্ষেপ নেয় গেরুয়া শিবির। বহিষ্কার করা হয় সুনীতাকে। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে নিজেই এ কথা জানিয়েছেন বিজয়া।

তিনি বলেন, নিশ্চিন্তে থাকুন, বিজেপি মহিলা মোর্চা এমন কোনও মন্তব্যকে সমর্থন করে না, যা ঘৃণা ছড়ায়। এই নারীকে ইতোমধ্যেই বহিষ্কার করা হয়েছে।

এদিকে ব্যাপক সমালোচনার পর ২৭ জুন ওই ফেসবুক পোস্ট ডিলিট করে দেন সুনীতা।

উল্লেখ্য, মোদি সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর বিভিন্ন রাজ্যে মুসলিম ব্যক্তিদের নির্যাতিত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। এরই মধ্যে মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগ তুলে ঝাড়খণ্ডে তাবরেজ আনসারি নামের এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করে হিন্দুত্ববাদীরা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads