• শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

এক ভুক্তোভোগী

ছবি : বাংলাদেশের খবর

বাংলাদেশ

শাহবাগে চরম দুর্ভোগ

কথায় কথায় অবস্থান

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৮ এপ্রিল ২০১৮

কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের দাবিদাওয়া আদায়ে রাজধানীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এলাকা শাহবাগ মোড় ব্যবহার যেন স্বাভাবিক নিয়মে পরিণত হয়েছে। এতে নগরীর অনেকাংশে দীর্ঘ সময়ের স্থবিরতা সৃষ্টি হচ্ছে। চরম দুর্ভোগে পড়ছেন অসংখ্য মানুষ। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অনেক সময় কঠোর হচ্ছে। তবে আসছে না স্থায়ী সমাধান।

শাহবাগে রয়েছে দেশের বিভিন্ন জাতীয় স্থাপনা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ও বারডেম হাসপাতালের মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের অবস্থান শাহবাগ মোড়েই। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) যেতে অনেককেই এই মোড় ব্যবহার করতে হয়। রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিদিন এসব চিকিৎসাপ্রতিষ্ঠানে আসেন অসংখ্য রোগী। কিন্তু দাবিদাওয়া আদায়ে অবস্থানকারীরা অন্যের দুর্ভোগ ও কষ্ট কখনো বোঝার চেষ্টা করেন না।

শাহবাগ মোড়ে গতকাল রোববারের চিত্রও ছিল ভয়াবহ। সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থা ১০ শতাংশে নামিয়ে আনাসহ পাঁচদফা দাবিতে এদিন এ মোড়ে অবস্থান নেন অনেক শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থী। একই দাবি আদায়ের উদ্দেশ্যে এর আগেও কয়েকবার আন্দোলনকারীরা এ মোড়ে অবস্থান নিয়ে কর্মসূচি পালন করেন। তবে গতকালের দুর্ভোগ যেন সীমা ছাড়িয়ে যায়।

এদিন বেলা ৩টার দিকে কোটা সংস্কারপন্থিরা মিছিল নিয়ে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন। এতে শাহবাগ থেকে মতিঝিল, ফার্মগেট, নিউমার্কেট ও দোয়েল চত্বরে যাওয়ার সড়কগুলোয় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুর্বিষহ এ পরিস্থিতিতে নাভিশ্বাস ওঠে সবার।

ভুক্তভোগী অনেকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অনেক রোগী ঠিক সময়ে হাসপাতালে পৌঁছাতে পারেননি। অনেককে অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামিয়ে কোলে করে হাসপাতালে নিতে হয়েছে। অনেকের ক্ষেত্রে তাও সম্ভব হয়নি। এতে রোগীর জীবন সঙ্কটে পড়েছে।

ক্যানসারে আক্রান্ত আবদুল মজিদকে একটি পরীক্ষা করানোর জন্য চিকিৎসক সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে যেতে পরামর্শ দেন। তার স্বজনরা গতকাল ওই পরীক্ষার জন্য অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে রওনা দেন ওই হাসপাতালের উদ্দেশে। তারা দুপুরের দিকে হাসপাতাল থেকে বের হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক মিলনায়তনের (টিএসসি) দিকে আসতেই পড়েন যানজটে।

জানতে চাইলে বিএসএমএমইউর অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ এ প্রসঙ্গে বলেন, কর্মসূচি চললেও রোগীদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। অনেক মুমূর্ষু রোগী অ্যাম্বুলেন্সে থাকেন। আন্দোলনকারীদের বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।

নীলক্ষেত থেকে বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিতে আসা বেসরকারি একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক আনোয়ার হোসেন বলেন, শাহবাগের রাস্তা অবরোধ করলে রোগীদের বিপদে পড়তে হয়। তাই এখানে এভাবে কর্মসূচি পালন নিষিদ্ধ করা উচিত।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads