• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
বৃষ্টি মাথায় রাজপথে শিক্ষকরা

এমপিওভুক্তির দাবিতে রাজধানীর তোপখানা রোডে অবস্থান ধর্মঘট পালক করেন শিক্ষকরা

ছবি : বাংলাদেশের খবর

বাংলাদেশ

বৃষ্টি মাথায় রাজপথে শিক্ষকরা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২০ জুন ২০১৮

এমপিওভুক্তির দাবিতে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি চলছে। গতকাল মঙ্গলবার বৃষ্টি উপেক্ষা করেই রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের বিপরীত পাশের রাস্তায় অবস্থান নেন আন্দোলনরতরা। এমপিও না নিয়ে তারা ঘরে ফিরবেন না বলে জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিন দেখা যায়, স্কুল ও মাদরাসার শতাধিক শিক্ষক বৃষ্টির মধ্যে রাস্তায় পলিথিন বিছিয়ে বসে আছেন। কয়েকজন বুকে ফেস্টুন নিয়ে পলিথিনের উপর শুয়ে আছেন। আন্দোলনকারী শিক্ষকরা এই প্রথমবারের মতো রাস্তায় ঈদ করেছেন।

নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন, ‘প্রতিদিনই পুলিশের বাধার মুখে আমরা লাগাতার অবস্থান করে যাচ্ছি। ঈদের দিন বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ঈদের নামাজ আদায় করে আমরা মিছিল করেছি। এখনো মন্ত্রণালয়ের কেউ আমাদের সঙ্গে কথা বলতে আসেননি।’ তিনি বলেন, ‘শিক্ষকরা শপথ নিয়েছেন যে, এমপিওর জন্য অর্থ বরাদ্দ না হলে রাজপথেই আত্মাহুতি দিতে পিছপা হবেন না।’

আগামী বৃহস্পতিবার থেকে আমরণ অনশনে যাওয়ার ইঙ্গিতও দিয়েছেন মাহমুদুন্নবী। তিনি বলেন, এ বিষয়ে আগামীকাল (বুধবার) চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, ‘অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা ১৫-২০ বছর ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন। অনেকের আবার চাকরি আছে আর ৫-১০ বছর। এ কারণে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আর অপেক্ষায় না রেখে সরকারের বর্তমান মেয়াদে এই সমস্যার সমাধান আমরা প্রত্যাশা করি। বাজেটে বরাদ্দ যথেষ্ট না হলেও আমরা কম বেতন নিতে রাজি আছি। পর্যায়ক্রমে কয়েক বছরে বেতন সম্পূর্ণ করা হলে তাতেও আমাদের আপত্তি নেই। এমপিওভুক্তির জন্য প্রয়োজনীয় বরাদ্দ না থাকলে বাঁচা-মরার মানবিক আবেদন নিয়েই জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে লাগাতার অবস্থান করব।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে টানা আট দিন অবস্থান কর্মসূচি পালনের পর গত রোববার বিকালে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায়। তিনি বলেন, ‘আমাদের আরো শিক্ষক এখানে এসে অবস্থান কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবেন। যতক্ষণ পর্যন্ত দাবি আদায় না হবে আমরা ঘরে ফিরে যাব না।’ তিনি আরো বলেন, ‘২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির বিষয়ে সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা নেই। আমাদের জন্য বাজেটে কোনো বরাদ্দ রাখা হয়নি। এতে আমরা হতাশ।’

বিনয় ভূষণ রায় বলেন, ‘এরই ম‌ধ্যে আমরা জানতে পেরেছি, শিক্ষামন্ত্রী আগেরবারের মতোই বলেছেন, বাজেটে টাকা না থাকলেও পর্যায়ক্রমে এমপিওভুক্ত করা হবে। কিন্তু আমরা তার এ বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করছি। সুনির্দিষ্ট কোনো গেজেট প্রকাশ করা না হলে আমরা আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

এমপিওভুক্তির দাবিতে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর থেকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে লাগাতার কর্মসূচি পালন করেন। টানা অবস্থান ও অনশনের একপর্যায়ে এ বছরের ৫ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে তার একান্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান আন্দোলনকারীদের দাবি পূরণের আশ্বাস দেন। এরপর শিক্ষক-কর্মচারীরা আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করেন। কিন্তু অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের যে বাজেট প্রস্তাব করেছেন, সেখানে নতুন এমপিওভুক্তির বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে কিছু বলা হয়নি। এবারের বাজেটে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের জন্য ৫৩ হাজার ৫৪ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads