• বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৬
ময়দানি লড়াই আজ

সংগৃহীত ছবি

বিপিএল

ময়দানি লড়াই আজ

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১১ ডিসেম্বর ২০১৯

জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে গত রোববার পর্দা উঠেছে বঙ্গবন্ধু বিপিএলের। তবে আজ থেকে শুরু হবে ময়দানি লড়াই। অর্থাৎ ২২ গজের কমব্যাট জোনে ব্যাট-বলের লড়াইয়ে অবতীর্ণ হবে সাতটি দল। উদ্বোধনী ম্যাচে আজ মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বেলা দেড়টায় মুখোমুখি হবে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও সিলেট থান্ডার। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচ সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায়। সেখানে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের প্রতিপক্ষ রংপুর রেঞ্জার্স।

শুরুটা জয় দিয়েই করতে চান সিলেট অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। চট্টগ্রামের বিরুদ্ধে জয়ের ব্যাপারে বেশ আশাবাদী তিনি। তিনি বলেন, ‘প্রথম থেকেই সবাই জানি এটা চ্যালেঞ্জিং টুর্নামেন্ট। অধিনায়ক হিসেবে মনে করি আমাদের দলের জন্যও চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। আমরা জেতার জন্যই নামব। জেতার চ্যালেঞ্জই আমার কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। আমার মনে হয় আমরা ভালো একটা দল। কাল ভালো একটা ম্যাচ খেলব। এখানে সব দলই ভালো। কারো বিদেশি খেলোয়াড় ভালো, কেউ আবার দেশি খেলোয়াড় ভালো নিয়েছে। আমি মনে করি সব দলই একইরকম। সব দলেই ভারসাম্য আছে।’

দল হিসেবে সিলেট থান্ডারও কম ভারসাম্যপূর্ণ নয়। বাংলাদেশ জাতীয় দলে খেলা ৫ ক্রিকেটারের (মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, নাজমুল ইসলাম অপু, রনি তালুকদার, নাইম হাসান) সঙ্গে উদীয়মান দেশি ও বিদেশিদের তালিকায় যারা আছেন তারাও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে কম অভিজ্ঞ নন। সৈকত বলেন, ‘স্থানীয় খেলোয়াড়ের দিক থেকে ম্যাচ বদলে দেওয়ার সামর্থ্য অবশ্যই আছে। আমরা ৩-৪ জন আছি যারা জাতীয় দলে বর্তমানে খেলছি। জাতীয় দলে ঢুকবে এমনও কয়েকজন আছে।  এছাড়া যারা আছেন ওরাও একসময় খেলেছেন। বিদেশিরাও নিজ দেশের জাতীয় দলের খেলোয়াড়। তাই আমি মনে করি টুর্নামেন্টে ফাইট করার মতো ভারসাম্যপূর্ণ দল আমরা।’

চট্টগ্রামের জন্য প্রথম ম্যাচেই দুঃসংবাদ। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে দলটি পাচ্ছে না নিয়মিত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। দ্বিতীয় ম্যাচেও তাকে পাবে না দল। ইনজুরির কারণে বেশ সতর্ক মাহমুদউল্লাহ। গতকাল একাডেমি মাঠে রিয়াদ বলেন, ‘হ্যামস্ট্রিংয়ের ইনজুরি বলেই একটু সতর্ক থাকতে হচ্ছে। তাড়াহুড়ো করে নেমে গেলে উল্টো ফল হতে পারে। টুর্নামেন্টের শুরুর দিকেই আমাদের অনেক ম্যাচ। সামনেই পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ। এই হ্যামস্ট্রিংয়ে আবার টান লাগলে লম্বা সময়ের জন্য বাইরে চলে যেতে হতে পারে। তাই ঝুঁকি নিতে চাচ্ছি না।’

দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে কুমিল্লার বিরুদ্ধে জয় পেতে মরিয়া রংপুর রেঞ্জার্স। দলটির অধিনায়ক আফগান অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবীর কণ্ঠেও দৃঢ় প্রত্যয়। বিপিএলে এবার তারুণ্যনির্ভর দল গড়েছে রংপুর। মোস্তাফিজ, তাসকিন, নাঈম শেখ, জাকির হাসান, সঞ্জিত সাহার মতো তরুণ ক্রিকেটার আছেন দলটিতে। অভিজ্ঞদের মধ্যে আছেন আরাফাত সানি, জহুরুল ইসলাম, নাদিফ চৌধুরী, ফজলে রাব্বিরা। বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে নবি ছাড়াও শাই হোপ, মোহাম্মদ শেহজাদ, জুনায়েদ খান, লুইস গ্রেগোরি, ক্যামেরন ডেলপোর্ট থাকছেন।

রেঞ্জার্সের নেতৃত্ব পাওয়ার পর নবী বলেন, ‘রংপুর রেঞ্জার্সের অধিনায়ক হিসেবে আমার ওপর আস্থা রাখায় টিম ম্যানেজমেন্টকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। একটি উইনিং কম্বিনেশন তৈরিতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। মেধাবী বাংলাদেশি ও বিদেশিদের নিয়ে আমরা একটি ভারসাম্যপূর্ণ দল করেছি। লিগে ভালো ফলাফলের জন্য আমাদের সেরাটাই দেব।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads