• শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে সেতুমন্ত্রী বেপরোয়া পথচারীও দায়ী

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

সংরক্ষিত ছবি

যোগাযোগ

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে সেতুমন্ত্রী বেপরোয়া পথচারীও দায়ী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১১ জুলাই ২০১৮

সড়ক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে শুধু চালক বা সড়ক নয়, বেপরোয়া পথচারীও দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে এ কথা বলেন তিনি। এদিন সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রীকল্যাণ সমিতির করা প্রতিবেদনে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মন্ত্রী।

কাদের বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা শুধু রাস্তার জন্যই হয়, ব্যাপারটা এমন নয়। জনসচেনতারও প্রয়োজন রয়েছে। এখানে শুধু বেপরোয়া ড্রাইভারই দায়ী নন, আবার রাস্তাও দায়ী না। বেপরোয়া পথচারীরাও অনেক ক্ষেত্রে সড়ক দুর্ঘটনার কারণ।’ সংসদ অধিবেশনে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিনের সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আমি কিছুক্ষণ আগে যখন রাস্তা দিয়ে আসছিলাম। দুটি পয়েন্টে দেখতে পেলাম, হঠাৎ করে একঝাঁক তরুণ রাস্তায় নেমেছে। গাড়ি তো রাস্তায় চলমান। সে সময় যদি কেউ গাড়ির তলায় পিষ্ট হয় কাকে দায়ী করবেন? এর পরপরই দেখলাম একটা মেয়ে রাস্তা পার হচ্ছে মোবাইলে কথা বলতে বলতে। সে অবস্থায় চলমান গাড়ি যদি তাকে চাপা দেয়, সেটার জন্য কে দায়ী হবে? বাস্তবে কেউ আইন মানতে চান না। ফুটওভারব্রিজ ব্যবহার না করে চলমান যানবাহনের মধ্য দিয়ে অনেকে রাস্তা পার হন। অনেক সময় যাত্রীরা আনন্দে বাসের জানালা দিয়ে হাত বাড়ান, বাইরে হাত রেখে মোবাইলে কথা বলেন। তখন আরেকটা গাড়ি এসে হাতটা নিয়ে গেলে কে দায়ী?’

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর পরিসংখ্যান নিয়ে যাত্রীকল্যাণ সমিতির প্রতিবেদনকে ভুয়া আখ্যায়িত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনায় আমাদের দেশ এশিয়া মহাদেশের মধ্যে এগিয়ে- এটা সত্য নয়। ভুয়া একটা যাত্রীকল্যাণ সমিতি আছে বাংলাদেশে। যাদের কোনো রেজিস্ট্রেশন নেই। চরম সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করে এমন একটা লোক এ সংগঠনের নেতৃত্ব দেয়। মাঝেমধ্যেই এরা মনগড়া তথ্য প্রকাশ করে।’

অর্ধেক চালকের লাইসেন্স নেই : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের এক প্রশ্নের উত্তরে সেতুমন্ত্রী জানান, চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন পাওয়া যানবাহনের সংখ্যা ৩৪ লাখ ৯৮ হাজার ৬২০টি। এর মধ্যে ২২ লাখ ৬ হাজার ১৫৫টিই মোটরসাইকেল। এসব যানবাহনের বিপরীতে ড্রাইভিং লাইসেন্সপ্রাপ্ত চালকের সংখ্যা ১৮ লাখ ৬৯ হাজার ৮১৬ জন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads